Inqilab Logo

বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ০২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৮ মুহাররম ১৪৪৪

মৎস্য বন্দর মহিপুর শহরের প্রধান সড়কের খানাখন্দে হেলেদুলে চলে গাড়ি

প্রকাশের সময় : ২২ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) উপজেলা সংবাদদাতা

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার নবগঠিত মহিপুর থানা শহরের সড়কের অসংখ্য খানাখন্দ সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য একটু বৃষ্টি হলে পরেই এ সড়কগুলোর বিভিন্ন পয়েন্টে বড় বড় গর্তে পানি জমে যায়। এর ফলে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও জনসাধারণসহ স্কুল-কলেজ পড়–য়া ছাত্রছাত্রীদের চলাচলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। বর্ষা মৌসুমে মোটকথা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্মিত বেড়িবাঁধ এ সড়কগুলো এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। জরুরি ভিক্তিতে মেরামত করার দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, সড়কগুলোর এতটাই বেহালদশা যে, কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসলাদি বাজারজাত করতে পরিবহন নিয়ে এসে বিপাকে পড়ছে। মহিপুর জিরো পয়েন্ট থেকে পশ্চিমদিকে ৩ কিলোমিটার ও পূর্ব দিকে ৪ কিলোমিটার রাস্তা চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। প্রতিদিনই এ সড়ক দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে স্কুল-কলেজ পড়–য়া ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকসহ যানবাহন চলাচল করছে। স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, নবগঠিত মৎস্য বন্দর মহিপুর থানায় ভূমি অফিস, সরকারি-বেসরকারি ব্যাংক, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মুক্তিযোদ্ধা মেমোরিয়াল কলেজসহ ২০-২২টি বরফ কল ও অর্ধশতাধিক মাছের আড়ৎ রয়েছে। এসব সড়ক ব্যবহার করে প্রতিদিন বিভিন্ন শেণী-পেশার লোকের মৎস্য বন্দর মহিপুর থানা শহরে আসতে হয়। বর্ষা মৌসুমে বেহাল অবস্থা হয়ে পড়ায় ওইসব লোকজন বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে। মহিপুর শহরের বাসিন্দা মো. মনিরুল ইসলাম জানান, উপজেলার অন্যতম সাপ্তাহিক বাজার ও মৎস্য বন্দর হিসাবে মহিপুরের গুরুত্ব অনস্বীকার্য। এ অঞ্চলের কৃষকসহ সাধারণ মানুষ তাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি নিয়ে এ দুটি সড়ক ব্যবহার করে ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য বাজারে আসেন। জরুরি ভিক্তিতে এসব সড়ক মেরামত করা প্রয়োজন বলে তিনি জানিয়েছেন। মহিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ. ছালাম আকন জানান, মহিপুরের রাস্তাঘাট সংস্কারের জন্য স্ব-স্ব দফতরের কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। এ ব্যাপারে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান জানান, ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলোর ইতোমধ্যে আমরা তালিকা করে বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরণ করেছি। এখন বরাদ্দ পেলে কাজ করা হবে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মৎস্য বন্দর মহিপুর শহরের প্রধান সড়কের খানাখন্দে হেলেদুলে চলে গাড়ি
আরও পড়ুন