Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার , ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৫ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

৩০ বছর পর চার আসামি গ্রেফতার

ভিকারুননেসা স্কুলের সামনে সগিরা মোর্শেদ হত্যাকান্ড

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৫ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

৩০ বছর আগে ভিকারুননেসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে সগিরা মোর্শেদ সালাম নামের এক নারীকে গুলি করে হত্যা মামলার চার আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। গ্রেফতার হওয়া চারজন হলেনÑ সগিরা মোর্শেদের স্বামীর ভাই ডা. হাসান আলী চৌধুরী, তার স্ত্রী সায়েদাতুল মাহমুদা শাহীন, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের কর্মকর্তা আনাস মাহমুদ রেজওয়ান ও আবাসন ব্যবসায়ী মারুফ রেজা। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পিবিআইর ধানমন্ডির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার এসব কথা জানান।
তিনি বলেন, গত ১০ নভেম্বর আনাস মাহমুদ, ১১ নভেম্বর ডা. হাসান আলী চৌধুরী ও তার স্ত্রী সায়েদাতুল মাহমুদা শাহীন, ১৩ নভেম্বর মারুফ রেজাকে গ্রেফতার করা হয়। চারজনই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
পিবিআই প্রধান বলেন, ১৯৮৯ সালের ২৫ জুলাই মেয়েকে স্কুল থেকে আনতে গিয়ে হত্যার শিকার হন সগিরা মোর্শেদ। এ ঘটনায় তার স্বামী আব্দুছ ছালাম চৌধুরী রমনা থানায় মামলা করেন। এই মামলায় মন্টু নামে একজনকে দায়ী করে অভিযোগপত্র দাখিল করে ডিবি পুলিশ। কিন্তু হত্যার সময় মোটরসাইকেলে দু’জন থাকায় ভুক্তভোগী নারীর পরিবার আদালতে নারাজি দেয়। পরবর্তীতে এক আইনজীবীর রিটের কারণে মামলাটি দীর্ঘদিন আদালতে চাপা পড়ে থাকে। পরে চলতি বছরের ১১ জুলাই পিবিআইকে তদন্ত করার নির্দেশ দেন আদালত।
বনজ কুমার বলেন, এই হত্যাকা-ে চার জনের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। চার জনকেই গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তদন্ত শেষে করে অভিযোগপত্র দাখিল করার জন্য আরও দু’মাস সময় চাওয়া হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে অভিযোপত্র দাখিল করা হবে।
হত্যার কারণ সম্পর্কে পিবিআই প্রধান বলেন, নিহত সগিরা ও গ্রেফতার সায়েদাতুল মাহমুদা শাহীন সম্পর্কে জা। পারিবারিক দ্বদ্বে সগিরাকে শায়েস্তা জন্য মারুফ রেজাকে হত্যার কন্টাক্ট দেওয়া হয়। সায়েদাতুলের পরিকল্পনায় যুক্ত হন তার স্বামী ডা. হাসান আলী চৌধুরী। তার রোগী ছিলেন প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের কর্মকর্তা আনাস মাহমুদ রেজওয়ান। শায়েস্তা করার কথা আনাস মাহমুদকে জানান হাসান আলী। তখন আনাস মাহমুদ মারুফ রেজাকে হত্যার কাজ দেন। ওই অনুযায়ী মারুফ রেজা প্রথমে ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেন। বাধা দেওয়ার পর সগিরা মোর্শেদকে গুলি করেন। এতেই তিনি মারা যান।
পিবিআই ও আদালত সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার ডা. হাসান ও তার স্ত্রী শাহীন চৌধুরীকে আদালতে হাজির করে পিবিআই। বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত তারা ঢাকার মহানগর হাকিম তোফাজ্জল হোসেনের খাস কামরায় ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

 

 



 

Show all comments
  • Md Shahjahan ১৫ নভেম্বর, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
    সঠিক বিচার করা হোক।
    Total Reply(0) Reply
  • Ojanta Orin ১৫ নভেম্বর, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
    সাগর রুনি,তনু ওদেরও হবে ইনশাল্লাহ।
    Total Reply(0) Reply
  • ইয়াসিয়া তনু ১৫ নভেম্বর, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
    এমন কতশত মামলা যে কোর্টে ঝুলে আছে আল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • Aminul Islam ১৫ নভেম্বর, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
    পাপ বাপকেউ ছাড়ে না
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammad Shamsuddoha Tapos ১৫ নভেম্বর, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
    একদিন সাগর রুনির ও হবে
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ