Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার , ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

বগুড়ায় চুরি হওয়া শিশু উদ্ধার আটক ১

বগুড়া ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ১৬ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

 বগুড়া শহীদ জিয়াউর মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালের গাইনী ওয়ার্ড থেকে চুরি যাওয়া নবজাতক ২৪ ঘণ্টার মধ্যে উদ্ধার এবং চুরির সাথে জড়িত রেশমা খাতুন (৩৫) নামের এক নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত নারী স্বামী পরিত্যক্তা ও শাজাহানপুর উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত সাত্তার মন্ডলের কন্যা বলে জানতে পেরেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় শহরের কলোনী এলাকা থেকে শিশুটি উদ্ধারের পর শজিমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তার মায়ের কাছে হস্তান্তর করেন বগুড়া জেলা পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূইয়া। শিশুটির নাম নাবিলা সাকিদার রেখে পুলিশ সুপার নাবিলার মায়ের হাতে উপহার হিসেবে নিজেরে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ১০ হাজার টাকাও প্রদান করেন। শিশুটিকে ফিরে পেয়ে শিশুর বাবা মা ও স্বজনরা আনন্দে আতœহারা হয়ে পড়েন । বগুড়া জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সানতন চক্রবর্তী জানান, শিশু চুরি হওয়ার পর সদর থানায় মামলা রেকর্ডের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে উদ্ধার করে জড়িত এক নারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের গাইনী বিভাগ থেকে এই সদ্য ভূমিষ্ঠ শিশুটি গত বুধবার দুপুর ২ টায় চুরি হয়ে যায়। মামলা রেকর্ড হওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১১টায় নব জাতককে শহরের লতিফপুর কলোনী থেকে জনৈক ফারুকের বাড়ি থেকে নব জাতককে উদ্ধার করে পুলিশ।
বগুড়ার শহীদ জিয়া মেডিকেল কলেজ ফাঁড়ির ইনচার্জ আজিজ মন্ডল জানান, উল্লেখিত শিশু চুরির ঘটনাটি স্যোশাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে ভাইরাল হলে শিশুচোর রেশমার গ্রামের লোকজন মোবাইল ফোনে তাকে রেশমার অবস্থান জানিয়ে দেন। তবে ওই গ্রামে অভিযানের আগেই রেশমা পালিয়ে এসে বগুড়া শহরের লতিফপুরে এসে জনৈক ফারুকের বাড়িতে আশ্রয় নেয় তবে সে খবরও সোর্স মারফত পুলিশের কাছে পৌঁছে গেলে পুলিশের হাতে রেশমা ধরা পড়ে যায়। শিশু চুরির কারন সম্পর্কে পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ।
গত বুধবার বগুড়ার কাহালু উপজেলার নলখড়িয়া গ্রামের মো. সৌরভ এর স্ত্রী নাহিদা আকতার (২৮) এর প্রসব বেদনা উঠলে দুপুর ১টায় এই শজিমেক হাসপাতালের গাইনী বিভাগে ভর্তি হয়। ভর্তি হওয়ার পর সে একটি পুত্র সন্তান প্রসব করেন। প্রসবের পর এক অপরিচিত মহিলা শিশুটিকে শিশু ওয়ার্ডে নিয়ে চিকিৎসা করার কথা বলে নিয়ে গিয়ে আর ফিরে আসেনি।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ