Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার , ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৮ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

‘কিরিচ রহিম’ আতঙ্ক!

পটিয়া (চট্টগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৭ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০২ এএম

পটিয়া উপজেলা কচুয়াই গ্রামের কালা মসজিদ এলাকার লোকজন বর্তমানে ‘কিরিচ রহিম’ আতংকে ভুগছে। আবদুর রহিম ওরফে ‘কিরিচ রহিম’ কালা মসজিদ এলাকার হাবিবুর রহমানের পুত্র। প্রবাসে অবস্থানকারী আবদুর রহিম গত ২০০১ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ৪টি ঘটনায় ১৬ জনের অঙ্গহানি ঘটিয়েছে। প্রত্যেকটি ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মামলা হলেও সে প্রবাসে পালিয়ে যাওয়ার কারণে বারবার অধরা থেকে যাচ্ছে। সর্বশেষ ঘটনাটি ঘটায় গত ৯ নভেম্বর। এ ঘটনায় কিরিচ ও চাইনিজ কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে মহিলাসহ ১১ জনকে জখম করে। রহিমের গ্রæপে ১০/১২ জন সদস্য রয়েছে। বিদেশ থেকে দেশে আসলেই ঘটনা ঘটিয়ে পুনরায় বিদেশে ফিরে যায় রহিম। যে কোনো ঘটনায় সে কিরিচ নিয়ে আক্রমন করে বলে তার নাম রাখা হয়েছে কিরিচ রহিম। গত ৯ নভেম্বরের ঘটনায় ১১ জনকে জখমের ফলে আহতদের হাত, পা, মাথা, কানসহ বিভিন্ন অঙ্গহানি ঘটেছে। এ ঘটনায় জেএসসি পরীক্ষার্থী আবদুর রহমান (১৩) বর্তমানে চমেক হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। অন্যদের অবস্থাও খারাপ পর্যায়ে রয়েছে। এ ঘটনায় ৬ জন আসামির মধ্যে পুলিশ ফোরকান ও হাসান নামের ২ জনকে ইতোমধ্যে গ্রেফতার করেছে। কিন্তু অধরা রয়ে গেছে কিরিচ রহিম। গত ২০০১ সালে সরু মিয়া নামের এক ব্যাক্তিকে কুপিয়ে জখম করে রহিম বিদেশে চলে যায়। ২০১৫ সালে বিদেশ থেকে এসে মোহাম্মদ জাফর নামের আরেক ব্যক্তিকে কুপিয়ে জখম করে সে। ২০১৭ সালে আবারও সে বিদেশ থেকে এসে মোজাফফরসহ ৩ জনকে কুপিয়ে জখম করে। গত ২ মাস আগে বিদেশ থেকে এসে ৯ নভেম্বর আরেকটি ঘটনায় ১১ জনকে জখম করে এ কিরিচ রহিম। তার সাথে সহযোগি হিসেবে রয়েছে তার ভাই সোলায়মানসহ আরও ১০/১২ জন। গত ৯ নভেম্বর সিএনজি চালক নুরুন্নবী প্রকাশ বাইট্টা অলিরহাট যাওয়ার পথে রহিমের পিতা হাবিবুর রহমানের গায়ে সিএনজি টেক্সি লাগার ঘটনাকে কেন্দ্র করে তাকে মারধরসহ তার পায়ের রগ কেটে দেয়। এতে এলাকার লোকজন তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাদেরকেও কুপিয়ে জখম করা হয়। এ ব্যাপারে পটিয়া থানার ওসি বোরহান উদ্দীন থেকে জানতে চাইলে তিনি বলেন রহিমসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ