Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার , ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

ভারতের সাথে দর-কষাকষির ক্ষমতাও নেই সরকারের

আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

বাংলাদেশের সমস্যাগুলো নিয়ে ভারতের সাথে দরকষাকাষি করা, কথা বলার ক্ষমতা বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আমরা ভারতের বিরুদ্ধে কথা বলতে তো কখনো বলি না, ভারতের সঙ্গে আমাদের তো বিরোধ নেই। সমস্যাটা হচ্ছে, আজকে এমন একটা সরকার, যে আমার সমস্যাগুলো নিয়ে ভারতের সঙ্গে কথা বলতে পারে না। সেই শক্তি তার নেই, সেই বার্গেনিং ক্যাপাবিলিটি তার নেই। কারণ, সে তাদের ওপর নির্ভর করে ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য।
গতকাল (শনিবার) সকালে রাজধানীর হোটেল পূর্বাণীতে অ্যাসোসিয়েশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (অ্যাব)-এর উদ্যোগে ‘ফেনী নদীর পানি প্রত্যাহার চুক্তি : বাংলাদেশের সম্ভাব্য বিপর্যয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

বর্তমান সরকার যতদিন ক্ষমতায় থাকবে বাংলাদেশের স্বার্থ ক্ষুণœ হবে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, সরকার যতদিন থাকবে ততই বাংলাদেশের স্বার্থ ক্ষুন্ন হবে, একে একে নষ্ট হবে এবং বাংলাদেশ নিঃস্ব হয়ে যাবে। বিএনপি মহাসচিব ফেনী নদীর পানি ভারতকে দেয়ার বিষয়ে বলেন, এটা অভিন্ন নদী নয়। সেই ফেনী নদীর পানি নিয়ে যাচ্ছে অথচ আমাদের প্রধানমন্ত্রী বলছেন, খাওয়ার পানি চাইলে পানি দেবো না? ভালো কথা পানি দেবেন। তা আমার যে লাখ লাখ মানুষ তিস্তার অববাহিকায় আজকে পুরোপুরিভাবে নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে, তাদের ফসল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, জীবন-জীবিকা ধবংস হয়ে যাচ্ছে- সে বিষয়ে আপনি (প্রধানমন্ত্রী) একটি কথাও বলবেন না? সীমান্তে আমার লোকদের গুলি করে মেরে ফেলে দিচ্ছেÑ আপনারা বলছেন যে, এটা কমে এসছে। আমরা তো কমতে দেখছি না।

ভারতের সঙ্গে চুক্তিগুলো সম্পূর্ণ প্রকাশের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, চুক্তিগুলো নিয়েও একটা আলোচনা হয়নি। আমাদের সংবিধানে বলা আছে, যে কোনো চুক্তি সংসদে উপস্থাপন করতে হবে। সেখানে আলোচনা করতে হবে এবং সেটাকে রেটিফাই করতে হবে সংসদে। সেটা কখনোই করা হয় না।

বিদেশে নারী শ্রমিকদের নির্যাতন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, সউদী আরব থেকে আমাদের মহিলা ও নারী শ্রমিকরা যারা ফিরে আসছেন, তার মধ্যে ৫৩ জন নিহত হয়েছে। সবচেয়ে মারাত্মক হচ্ছে যে, আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, এটা স্বাভাবিক ব্যাপার, সংখ্যা কম। তার আগে ভারতের সাথে সম্পর্কের ব্যাপারে উনি (পররাষ্ট্রমন্ত্রী) বলেছেন, আমাদের সম্পর্ক এমন সুন্দর জায়গায় গেছে, আমি সেটা বলতে চাই না।

সরকারের সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশের অর্থনীতির অবস্থা একদম ভঙ্গুর হয়ে পড়েছে। খুব বড়াই করে তারা (সরকার) বলছে যে বাংলাদেশ রোল মডেল। সেই রোল মডেল এমন হয়েছে যে, শুধু ঋণের ওপর তাদেরকে টিকে থাকতে হচ্ছে। সমস্ত ব্যাংক ফোকলা হয়ে গেছে। অর্থনীতিবিদরা অনেকে বলেই ফেলছেন যে, অর্থনীতির ভবিষ্যৎ কিন্তু খারাপ। আজকের পত্রিকায় দেখবেন, গার্মেন্টসের রপ্তানি বহু কমে গেছে। বহু গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ম্যানুফ্যাকচারড ইন্ডাস্ট্রিজ আজকে বাংলাদেশে হচ্ছে না। কৃষকরা ধানের দাম পায় না। তাহলে স্বয়ংসম্পূর্ণতা থাকবে কী করে? এই অবস্থা থেকে উত্তরণে সরকার পরিবর্তনের কোনো বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেন ফখরুল।

তিনি বলেন, এই সরকারকে সরাতে হবে। সমস্ত দলমত নির্বিশেষে সকলকে এক করে এই যে দানবের মতো বসে আমাদের সবকিছু তছনছ করে দিয়েছে, তাকে সরাতে হবে। এই নির্বাচন করেছে তারা ডাকাতির নির্বাচন, এই নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে অবিলম্বে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় একটি নতুন নির্বাচন হবে। সেই আন্দোলনকে এগিয়ে নিতে খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে সবাইকে নেমে পড়ার আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের প্রফেসর ড. মো. আখতার হোসেন। বিএনপি সমর্থক প্রকৌশলীদের সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রিয়াজুল ইসলাম রিজুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা এ জেড এম জাহিদ হোসেন, মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর জি কে মোস্তাফিজুর রহমান, সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতা এম আবদুল্লাহ, কাদের গনি চৌধুরী, এগ্রিচালচারিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের শামীমুর রহমান শামীম, অ্যাবের আবদুস সালাম, আশরাফ উদ্দিন বকুল, গোলাম মাওলা, এ কে এম জহিরুল ইসলাম, সাহাদাত হোসেন বিপ্লব প্রমুখ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মির্জা ফখরুল


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ