Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার , ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১ পৌষ ১৪২৬, ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

ধূমপায়ী ব্যক্তির দান করা ফুসফুস নিয়ে তোলপাড়

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ৪:০৬ পিএম

মৃত্যুর পরে দেহদান বা অঙ্গদান অবশ্যই এক ভালো পদক্ষেপ। তবে সিগারেট খেয়ে পুড়িয়ে ফেলা ফুসফুস অন্যকে দান করা জীবনদান নয়, বরং মৃত্যুকেই ত্বরান্বিত করা। ধূমপান যে স্বাস্থ্যের জন্য কতখানি ক্ষতিকর সকলেই জানেন, তবু হেলদোল নেই ধূমপায়ীদের। সম্প্রতি এমনই এক ধূমপায়ী ব্যক্তির ফুসফুসের ছবি ও ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। এই ভিডিওটি ৩০ বছর ধরে ধূমপান করে চলা বছর ৫২-র এক ব্যক্তির। ভিডিওতে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে, ধূমপান করে করে একেবারে কালো হয়ে গিয়েছে তার ফুসফুস।

চিনের ইউকসি পিপলস হসপিটালে নিজের ফুসফুস দান করেন ধূমপায়ী এক ব্যক্তি। কিন্তু দেখা যায় ধূশপানের কারণে তার ফুসফুস পুড়ে কালো হয়ে গিয়েছে। সেখানকার ডাক্তার চেন জিয়াংগু এবং তাদের অঙ্গ প্রতিস্থাপনকারী দল এই ফুসফুস নিয়ে গবেষণা চালাচ্ছেন। তিনি জানিয়েছেন, যে ব্যক্তি এই ফুসফুস দান করেছেন তার মস্তিষ্কের মৃত্যু ঘটেছে। কিন্তু এই ফুসফুসের ভয়ঙ্কর অবস্থা দেখার পর অন্য কোনও রোগীর দেহেই তা বসানো যায় না। যদি কোনও রোগীর দেহে এই ফুসফুস প্রতিস্থাপন করা হয় তবে তার লাং ক্যালসিফিকেশন, বুলোস লাং ডিজিস এবং পালমোনারি এমফাইসেমার  মতো ফুসফুসের নানা রোগ হতে পারে। ডাক্তার জিয়াংগু আরও বলেন, ‘আমার দল এই ফুসফুসের প্রতিস্থাপন করতে অস্বীকার করছে। যদি কোনও ব্যক্তি ভীষণ সিগারেট খান, বেশিই ধূমপান করেন তাহলে তাদের ফুসফুস কখনই অন্য কাউকে দান করা উচিৎ নয়।’ ডাক্তার আরও জানিয়েছেন, নিজের ফুসফুস দান করার আগে এই ব্যক্তির সিটি স্ক্যান করা হয়নি। কারণ তার আগেই এই রোগীর মস্তিষ্ক কাজ করা বন্ধ করে দেয়। সূত্র: ডেইলি মেইল।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুসফুস
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ