Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬, ০১ রজব ১৪৪১ হিজরী

ব্যালন ডি’অর জিতেছেন মেসি!

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০২ এএম

ফুটবলের সম্মানজনক পুরস্কার ব্যালন ডি’অর এবার কার হাতে উঠছে তা অফিশিয়ালি জানা যাবে আর এক সপ্তাহ পড়ই। তবে ফুটবল পাড়ায় জোর গুঞ্জন উঠেছে বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসির হাতেই উঠছে এ পুরস্কার। স্প্যানিশ সংবাদ মাধ্যম মুন্ডো দিপার্তিভো জানিয়েছে, মেসিকেও নাকি জানানো হয়েছে এ পুরস্কার পাওয়ার কথা! আর এমনটা হলে নতুন রেকর্ড গড়বেন ক্ষুদে জাদুকর। ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে পেছনে ফেলে রেকর্ড ষষ্ঠবারের মতো এ পুরস্কার হাতে উঠবে আর্জেন্টাইন অধিনায়কের।

সংবাদ অনুযায়ী, বার্সেলোনা দলপতিকে এরমধ্যেই জানানো হয়েছে যে তিনিই পাচ্ছেন এবারের ব্যালন ডি’অর। যদিও ফ্রান্স ম্যাগাজিদের দেওয়া এ সম্মানজনক পুরস্কারের ঘোষণা আসবে আগামী সোমবার (২ ডিসেম্বর রাতে)। জানানো হয়েছে তার প্রতিদ্বন্দ্বীদেরও। সংক্ষিপ্ত তালিকায় মেসির প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী লিভারপুলের ডাচ তারকা ভার্জিল ভ্যান ডাইক। তিন জনের তালিকায় অপর নামটি রোনালদো।

এবার ফিফার বর্ষসেরা পুরস্কারও জিতেছেন মেসি। স্বাভাবিকভাবেই ব্যালন ডি’অরেরও ফেভারিট তালিকায় তিনি। যদিও উয়েফার বর্ষসেরা হয়েছিলেন ভ্যান ডাইক। তাই দুই জনের মধ্যেকার প্রতিদ্বন্দ্বিতাটা তুমুল হওয়ারই কথা। মেসি পুরস্কার জিতবেন জেনে ফিফার সে বর্ষসেরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না রোনালদো। যদিও সে অনুষ্ঠান হয়েছিল ইতালিতেই। তাই ধারণা করা হচ্ছে ব্যালন ডি’অরের অনুষ্ঠানেও থাকবেন এ পর্তুগিজ তারকা। মুন্ডো দিপার্তিভোর সংবাদ অনুযায়ী এ পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এবার ভ্যান ডাইকও অনুপস্থিত থাকতে পারেন। তবে উয়েফার বর্ষসেরা পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এ তিন প্রধান তারকাই।

গত মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৫১ ম্যাচ খেলে মেসি গোল করেন ৫০টি। কেবল লিগে ৩৬ গোল করায় জেতেন লা লিগা ও ইউরোপের সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার। চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও ১২ গোল নিয়ে গোলদাতাদের তালিকায় শীর্ষে ছিলেন তিনি। ক্লাবের হয়ে জেতেন লিগ শিরোপা। ক্যারিয়ারের দশম লালিগা শিরোপা। কোপা আমেরিকায় তার দল আর্জেন্টিনা দখল করে তৃতীয় স্থান।

তবে মেসির প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী লিভারপুলের ডিফেন্ডার ভ্যান ডাইকও দারুণ মৌসুম কাটিয়েছিলেন। চোখ ধাঁধানো পারফর্ম করে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। লিভারপুলকে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতাতে রাখেন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। জাতীয় দলের জার্সিতেও সফল তিনি। নেদারল্যান্ডসকে উয়েফা নেশন্স লিগের ফাইনালে ওঠানোর পেছনে অবদান ছিল তার।

গত মৌসুমটা দারুণ কাটান রোনালদোও। জুভেন্টাসের হয়ে প্রথম মৌসুমেই ইতালিয়ান সিরি আ শিরোপার পাশাপাশি জেতেন সুপার কাপও। পর্তুগালের জার্সিতেও তিনি ছিলেন সফল। জেতেন দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক শিরোপা। নতুন চালু হওয়া নেশন্স লিগের ফাইনালে হারান ভ্যান ডাইকের নেদারল্যান্ডসকে। পুরো মৌসুমে ৪৩ ম্যাচ খেলে রোনালদো গোল করেন ২৮টি।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মেসি

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
১৫ জানুয়ারি, ২০২০
২ জানুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন