Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪ আশ্বিন ১৪২৭, ০১ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

রাশিয়া থেকে সুদান, প্রতিবাদ জানালেন বিশ্বের নারীরা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ নভেম্বর, ২০১৯, ৫:১০ পিএম

শুরুটা করেছিলেন ফ্রান্সের কিছু মহিলা। তাদের বিরুদ্ধে চলা দীর্ঘ নির্যাতনের প্রতিবাদে কয়েকদিন আগে পথে নেমেছিলেন ফরাসি মহিলাদের একাংশ। খুব সম্প্রতি রাস্তায় নামতে দেখা গিয়েছে লেবাননের প্রতিবাদী মহিলাদেরও। এ বার রাশিয়া, সুদান, গুয়াতেমালা, তুরস্কের মতো দেশের নারীরাও সংগঠিত আন্দোলন গড়ে তুলছেন। দেশ আর ভাষা ভিন্ন হলেও প্রতিবাদে তারা এক। বছরের পর বছর ধরে চলা অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হচ্ছেন বিশ্বের নানা প্রান্তের নারীরা।

জাতিসংঘের সাম্প্রতিক একটি রিপোর্টে জানিয়েছে, শুধু ২০১৭ সালেই ৮৭ হাজার মহিলা ও কিশোরী খুন হয়েছেন সমগ্র বিশ্বে। তাদের বিরুদ্ধে হয়ে চলা লাগাতার অত্যাচার আর নির্যাতনের বিরুদ্ধে গত সপ্তাহে পথে নামেন ফরাসি মহিলারা। বিশাল মিছিলে শামিল হন তারা। চাপে পড়ে ফ্রান্সের সরকার জানিয়েছে, এখন থেকে নারীদের বিরুদ্ধে নির্যাতন হলে সেই তথ্য জানাতে পারবেন চিকিৎসকেরা। শারীরিক নির্যাতনের মতো মানসিক নির্যাতনের শিকার মহিলারাও যাতে সুচিকিৎসা পান, সেই বন্দোবস্ত করার কথাও বলেছে ফরাসি সরকার।

গত সোমবার ছিল আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন বিরোধী দিবস। আর সেই উপলক্ষেই তুরস্কের রাজধানী ইস্তানবুলে বিক্ষোভে শামিল হতে দেখা গিয়েছে প্রায় দু’হাজারেরও বেশি মহিলাকে। সেই বিক্ষোভ ঠেকাতে কাঁদানে গ্যাস, প্লাস্টিক বুলেটও ছুড়তে হয়েছে পুলিশকে।

নির্যাতন বন্ধের দাবিতে রাস্তায় নেমেছিলেন রুশ মহিলারাও। মস্কো শহরে বিশাল মিছিল করে নারী অধিকার রক্ষা নিয়ে সরব হন তারা। সরকার যাতে এ নিয়ে বিশেষ বিল পাশ করে, মিছিলে সেই দাবিও রেখেছেন রুশ মহিলারা। সুদানেও একই ছবির দেখা মিলেছে কাল। গত কয়েক দশকে এই প্রথম খার্তুমে পথে নামেন প্রতিবাদী মহিলারা। তাদের স্লোগান ছিল, ‘স্বাধীনতা, শান্তি আর সুবিচার।’ স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদেও একই ধরনের প্রতিবাদ চোখে পড়েছে। চলতি বছরে নিজেদের সঙ্গী বা প্রাক্তন সঙ্গীদের হাতে খুন হয়েছেন কমপক্ষে ৫২ জন স্প্যানিশ মহিলা। ফ্রান্সে সেই সংখ্যাটাই ১১৭। কালকের দিনটি স্মরণে রাখতে মাঝ রাতে এক মিনিট স্তব্ধ ছিল আইফেল টাওয়ারের আলো। ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী এদোয়ার ফিলিপের বক্তব্য, এই ধরনের আন্দোলন সরকারের কাছে ইলেকট্রিক শকের মতো কাজ করবে বলে তিনি আশা করেন। নারীবাদী আন্দোলনের চাপে পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সরকারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছে গোটা দেশ থেকে লিঙ্গবৈষম্য দূর করার।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রতিবাদ

১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন