Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ০৫ মাঘ ১৪২৭, ০৫ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

গাইবান্ধায় এমপি লিটন হত্যা মামলায় ৭ জনকে ফাঁসিতে মৃত্যুদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত

গাইবান্ধা থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:১১ পিএম | আপডেট : ১:৫৯ পিএম, ২৮ নভেম্বর, ২০১৯

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগের জাতীয় সংসদ সদস্য নিহত মনজুরুল ইসলাম লিটন হত্যা মামলায় বাংলাদেশ দঃবিঃ ৩০২/৩৪/১২০-খ ধারা অনুযায়ী দোষী সাম্ভস্থ্য হওয়ায় ৭ জনকে রশিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। দন্ডপ্রাপ্ত আসামীদের মৃত্যু নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত রশিতে ঝুলিয়ে এই দন্ডাদেশ কার্য্যকর করতে হবে। আজ বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে জেলা ও দায়রা জজ দীলিপ কুমার ভৌমিক এ রায় ঘোষণা করেন। জনাকীর্ণ আদালতে আলোচিত এ মামলার রায় ঘোষনা করেন। সর্বোচ্চ সাজার আদেশ পাওয়া দন্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন একই আসনের সাবেক জাতীয় পার্টির (জাপা) কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক এমপি আবদুল কাদের খান, কাদের খানের একান্ত সচিব (পিএস) শামসুজ্জোহা, গাড়িচালক আবদুল হান্নান, গৃহকর্মী শাহীন মিয়া, মেহেদী হাসান, আনোয়ারুল ইসলাম রানা ও চন্দন কুমার সরকার। ৬ জন রায় ঘোষনার সময় কাঠগড়াতেই উপস্থিত ছিলেন। অপর আসামি চন্দন সরকার অনুপস্থিত ছিলেন।
সরকার পক্ষের পিপি এ্যাড: শফিকুল ইসলাম এই রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। রায় ঘোষনার পরে এমপি লিটনের বড় বোন ফাহমিদা কাকলী বুলবুল এই রায় দ্রুত কার্যকর দাবি জানান।
জাতীয় সংসদ সদস্য নিহত মনজুরুল ইসলাম লিটনের স্ত্রী খুরশীদ জাহান স্মৃতি জানান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলে আইনের সাশন রয়েছে বলে আমি আমার স্বামীর হত্যার ন্যায় বিচার পেয়েছি।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙ্গার মাস্টারপাড়ার নিজ বাড়িতে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হন এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন। এ ঘটনায় অজ্ঞাত ৮ জনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় মামলা করে লিটনের বড় বোন ফাহমিদা কাকলী বুলবুল। তদন্ত শেষে এই হত্যা মামলায় কাদের খানসহ আট জনের বিরুদ্ধে ২০১৭ সালের ৩০ এপ্রিল আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। বিজ্ঞ আদালত এই মামলাটি ২২ কার্য্য দিবসে ৫৯ জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহন করে আজ এ রায় ঘোষনা করেন।

উল্লেখ্য: ২০০৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধা-১ আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট থেকে নির্বাচিত হন জাপার নেতা কাদের খান। আর মনজুরুল ইসলাম লিটন ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর নিজ বাড়িতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এমপি লিটন


আরও
আরও পড়ুন