Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার , ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৭ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

ইসলামি কর্মতৎপরতা

| প্রকাশের সময় : ২৮ নভেম্বর, ২০১৯, ৯:০২ পিএম

খাদেমুল ইসলাম বাংলাদেশ

গওহরডাঙ্গা মাদরাসার মোহতামিম ও খাদেমুল ইসলাম বাংলাদেশের আমীর আল্লামা মুফতি রুহুল আমীন বলেছেন, শহীদের রক্ত কখনো বৃথা যায় না। ভোলা জেলার বোরহান উদ্দিনের চার শহিদের রক্তও বৃথা যাবে না। তাদের রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশে সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখে ধর্ম অবমাননারোধ ও শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি অসাল্লামের মর্যাদা সংরক্ষণ আইন পাশ হবে ইনশাআল্লাহ। আজ কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড গওহরডাঙ্গা বাংলাদেশ কতৃক আয়োজিত তিন শতাধিক মাদরাসার মোহতামিম ও শিক্ষদের সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
মুফতি রুহুল আমীন বলেন, আমরা কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড গওহরডাঙ্গা বাংলাদেশ দীর্ঘদিন ধরে সাংবাদিক সম্মেলন, স্বারকলীপি প্রদান, মানববন্ধণ, সভা-সমাবেশ এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে ব্যক্তিগত ভাবে সাক্ষাতকালে সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখে ধর্ম অবমাননারোধ ও শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ সা. এর মর্যাদা সংরক্ষণ আইন পাশের দাবী জানিয়ে আসছি। কিন্তু এ ব্যপারে সরকারের কার্যকারী পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় এবং ধর্ম অবমাননার প্রচলিত যে আইন আছে তার যথাযত প্রয়োগ না থাকায় দিন দিন নানা ভাবে ধর্ম অবমাননার মতো অনাকাঙ্খিক ঘটনা ঘটছে। যা কোন ভাবেই কাম্য নয়। সরকার এর দায় ভার এড়াতে পারে না।
মুফতি রুহুল আমীন ভোলার তৌহিদি জনতার ছয় দফা দাবী দ্রুত সময়ের মধ্যে বাস্তবায়ন করে পুলিশ কতৃক দায়ের কৃত মামলা প্রত্যাহার আটককৃতদের মুক্তি দেওয়ার দাবী জানান।
সভায় বক্তাগন দ্রুত সময়ের মধ্যে দোষী ব্যক্তিদের গ্রেফতার করে সর্বোচ্চ শাস্তির প্রদানের দাবী জানান। অন্যথায় আগামীতে এরকম কোন পরিস্থিতির তৈরী হলে যে কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনার দায় ভার সরকার কেই বহন করতে হবে।
মুফতি মোহাম্মদ তাসনীম ও মুফতি মাকসূদুল হকের পরিচালনায় অন্যনের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, গওহরডাঙ্গা মাদরাসার শাইখুল হাদিস মুফতি আব্দুর রউফ সংগঠনের মহাসচিব মাওলানা শামছুল হকে, সহসভাপতি মাওলানা কাবিরুল ইসলাম, মাওলানা আবুল কালাম, মুফতি আব্দুল হাফিজ, মুফতি মঈনুদ্দিন, মাওলানা হায়াত আলী, মাওলানা শিহাব উদ্দিন, হাফেজ আবু মুসা, তানজীমুল মুদাররিসিননের মাওলানা জিন্নাত আলী, মাওলানা জাহিদ আল হাসান, মাওলানা আতাউর রহমান সহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।
সভা শেষে গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেওয়া হয়।

বায়তুশ শরফ মজলিসুল ওলামা বাংলাদেশ
বায়তুশ শরফ মজলিসুল ওলামা বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা মামুনুর রশীদ নূরী বলেছেন, ইসলাম মানব চরিত কোন মত বা পথ নয়। এটা আল্লাহ কর্তৃক ও রাসুল (স:) প্রবর্তিত একটি জীবন ব্যবস্থা এবং ইসলামই হচ্ছে বিশ^ মানবতার মুক্তির সনদ। তিনি আরো বলেন, রাসুলের (স:) সাম্যনীতি, উদারতা ও মহানুভবতা মানব ইতিহাসে এক আলোকময় অধ্যায়। যেটা পাশ্চাত্যের বড় বড় পন্ডিত ও আইন রচয়িতাদেরকেও বিমুগ্ধ ও বিমোহিত করে তুলেছে। কারণ রাসুলে করিম (স:) হচ্ছেন সর্বকালের ও সর্বযুগের সার্বজনীন শান্তির প্রতীক ও রহমত।
তিনি কদমতলী মহল্লা কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত ঈদে মিলাদুন্নবী (স:) মাহফিলে প্রধান অতিথি আলোচনায় উপরোক্ত কথা বলেন। কদমতলী মহল্লা কমিটির সভাপতি আলহাজ¦ মনজুর আলম মঞ্জু সর্দারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মাহফিলে আরো উপস্থিত ছিলেন আলহাজ¦ আবদুস শুক্কুর সর্দার, আলহাজ¦ জাহাঙ্গীর আলম সর্দার, আলহাজ¦ লিয়াকত আলী সর্দার ও আলহাজ¦ নুরুল আলম সর্দার প্রমুখ।
আলোচনায় তিনি আরো বলেন, রাসুলে করীম (স:) জীবন চরিত হচ্ছে একটি জীবন্ত কুরআন। আর কুরআনই হচ্ছে তারঁই শ্রেষ্ট মুজিজা। বর্তমান ঝঞ্চা বিক্ষুদ্ধ পৃথিবীতে ঘুনেধরা সমাজ ব্যবস্থাকে আদর্শিক রূপে ফিরিয়ে আনতে হলে রাসুলের (স:) ভালবাসা ও আদর্শের বিকল্প নেই।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ