Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার , ২৭ জানুয়ারী ২০২০, ১৩ মাঘ ১৪২৬, ০১ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

কাশ্মীরে হিন্দু বসতি গড়তে ‘ইসরাইল মডেল’ প্রস্তাব সমালোচনা পাকিস্তানের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০২ এএম


কাশ্মীরে ‘ইসরাইল মডেল’ প্রয়োগ করা নিয়ে যে মন্তব্য করা হয়েছে, তার তীব্র সমালোচনা করেছেন পাকিস্তানি কর্মকর্তা ও কাশ্মীরীরা। তারা বলেছেন, এই মন্তব্য কাশ্মীরে ভারতের সাম্প্রতিক পদক্ষেপগুলোর আসল প্রকৃতিই উন্মোচন করে দিচ্ছে।
পাকিস্তান সরকার নিউইয়র্কে ভারতের কনসাল জেনারেলের মন্তব্যের কঠোর সমলোচনা করেছে। তিনি সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে বলেছিলেন যে, ইসরাইল যেভাবে ফিলিস্তিনি ভূখ-ে বসতি স্থাপন করছে, ভারতের উচিত হবে সেভাবে কাশ্মীরে হিন্দু বসতি স্থাপন করানো।

গত সপ্তাহান্তে কাশ্মীরী হিন্দুস (প-িত নামেও পরিচিত) আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে কনসাল জেনারেল সন্দীপ চক্রবর্তী বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে এমনটা ঘটেছে। ইসরাইলি জনগণ যদি তা পারে, তবে আমাদেরও তা পারা উচিত।
তুরস্কে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সাইরাজ সাজ্জাদ কাজি টিআরডি ওয়ার্ল্ডকে বলেন, এসব মন্তব্য কষ্টকর, তবে মোটেই বিস্ময়কর নয়। তিনি বলেন, অধিকৃত ফিলিস্তিনি ভূখ-ের ইসরাইলি বসতি স্থাপন প্রতিরোধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অক্ষমতার কারণেই দৃশ্যত ভারত একই উপনিবেশিক কৌশল অনুসরণ করছে।
গত আগস্টে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার পর থেকেই এই ভূখ- নিয়ে অনেক খবর প্রকাশিত হচ্ছে। ভারত সরকার মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্যটির বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে একে দুটি অংশ ভাগ করেছে এবং দুটি অংশকেই কেন্দ্র শাসিত এলাকা বলে ঘোষণা করেছে। ভারত সেখানে নিরাপত্তা সদস্যদের উপস্থিতিও ব্যাপকভাবে বাড়িয়েছে। এছাড়া সেখানে কারফিউ জারি করা হয়েছে, যোগাযোগব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছে।
কূটনীতিকের মন্তব্যের জবাবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান টুইটে বলেছেন, এটি ভারত সরকারের আরএসএস মতাদর্শের ফ্যাসিবাদী মানসিকতাই ফুটে উঠেছে।

ইমরান খান ইতঃপূর্বে ভারত সরকারকে নাৎসিদের সাথে তুলনা করেছিলেন। তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে অ্যাডলফ হিটলার হিসেবে অভিহিত করেছিলেন। তিনি অভিযোগ করেছিলেন যে, মোদি চান ভারতের মুসলিমদের শেষ করার মাধ্যমে কাশ্মীরের ‘চূড়ান্ত সমাধান।’
এদিকে কাশ্মীরভিত্তিক সাংবাদিক হিলাল মির টিআরটি ওয়ার্ল্ডকে বলেন, কনসান জেনারেলের মন্তব্য কেবল কাশ্মীরী মুসলিমদের ওই আশঙ্কাই সত্য বলে প্রতিপন্ন করছে যে, সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা বাতিলের আসল উদ্দেশ্য হলো জনসংখ্যার পরিবর্তন করা।

ভারতের কট্টরপন্থী হিন্দু জাতীয়তাবাদী বিজেপি সরকারের ইচ্ছা হলো মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্যে দুই থেকে তিন লাখ কাশ্মীরী প-িতকে আবার বসতি স্থাপনের ব্যবস্থা করা। তারা কাশ্মীরী বিদ্রোহের কারণে কয়েক দশক আগে পালিয়ে গিয়েছিল।
চলতি বছরের প্রথম দিকে বিজেপির জাতীয় সাধারণ সম্পাদক (কাশ্মীরের দায়িত্বপ্রাপ্ত) রাম মাধব বলেছিলেন, ভারত সরকারের ইচ্ছা হলো বিরোধপূর্ণ অঞ্চলটিতে হিন্দু বসতি স্থাপনের ব্যবস্থা করা।

ম্যাসাচুসেটস কলেজ অব লিবারেল আটর্সের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ জুনায়েদের মতে, ভারতীয় কর্মকর্তাদের নতুন পাগলামিতে একটি উপনিবেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার এজেন্ডাই ফুটে উঠেছে। তারা চাচ্ছে কাশ্মীরের জনসংখ্যায় পরিবর্তন আনতে। রাষ্ট্রদূত কাজির মতে, ভারত ও ইসরাইল উভয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের ঘোষিত আন্তর্জাতিক আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন ঘটাচ্ছে। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নীবরতার সুযোগেই ভারত তার উপনিবেশ গর্বকে উৎসাহিত করছে। তিনি বলেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে কাশ্মীরী ও ফিলিস্তিনিরা একই ধরনের দুর্দশায় পতিত হয়েছে।

কাশ্মীরে ইসরাইলি মডেল যথার্থ নির্দেশিকা মন্তব্য করা ওই কূটনীতিক ঠিক কাজ করেছেন কিনা সে সম্পর্কে জানতে চাইলে ইস্তাম্বুলে ভারতীয় কনস্যুলেটের ফার্স্ট সেক্রেটারি অদিত্য ঝা বলেন, এ ব্যাপারে আমাদের কিছু জানা নেই। সূত্র : সাউথ এশিয়ান মনিটর।

 



 

Show all comments
  • hossain ২৯ নভেম্বর, ২০১৯, ৯:৩৩ এএম says : 0
    Hammas and Hisbullah would be form in kashmir
    Total Reply(0) Reply
  • hossain ২৯ নভেম্বর, ২০১৯, ৯:৩৬ এএম says : 0
    HAMMAS AND HISBULLAH WOULD BE FORM IN KASHMIR
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন