Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার , ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১১ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

প্রশ্ন : যারা মোবাইলে টাকা লোড দেয়, তারা সাধারণত ১টাকা কম দেয়। ইসলামে এই ১টাকার হুকুম কি?

খাইরুল ইসলাম
ই-মেইল থেকে

প্রকাশের সময় : ২ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৮:২৫ পিএম

উত্তর : এটি পরস্পরের সম্মতির সাথে যুক্ত। অপারগ অবস্থায় যদি প্রাপক এতে সম্মতি দেয়, তাহলে এই এক টাকা রিচার্জ ব্যবসায়ীর জন্য হালাল। আর যদি এক টাকার কয়েন কিংবা চকলেট দিয়ে হলেও ব্যবসায়ী স্বচ্ছ থাকতে চান, তাহলে এটি তার জন্য উত্তম। এখন বাধ্য হয়ে অধিকাংশ মানুষ এক টাকা ছেড়ে দেয় আর অপারেটররাও ব্যবসায়ীদের এক টাকা করে পাইয়ে দেওয়ার জন্য এমন কৌশলি রেট করেন। মানুষের অসন্তুষ্টিতে কৌশলে এভাবে টাকা রেখে দেওয়া মূলত জায়েজ নয়। কারণ, এখানে ১০/২০ বা ১০০ জনের কাছ থেকে এক টাকা করে রাখা হচ্ছে। দাতার সম্মতি না থাকলে এ টাকাগুলো হালাল হবে না। এরপরও বাধ্য হয়ে দেওয়া নেওয়া চলতে থাকলে একটি প্রচ্ছন্ন সম্মতি এসে যায়। সে বিচারে ব্যবসায়ী ও গ্রাহক সমঝোতা হয়ে গেলে হালাল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

ইসলামিক প্রশ্নোত্তর বিভাগে প্রশ্ন পাঠানোর ঠিকানা
inqilabqna@gmail.com



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন

প্রশ্ন : কিছুদিন আগে আমার স্ত্রী আমাকে বলে যে, আমি যেন আমার দুধের শিশুকে আমার সাথে নিয়ে যাই। এ কথার উত্তরে আমি তাকে বলি, ‘তোমার মতো মায়ের আমার দরকার নাই, যে তার দুধের শিশুকে অন্যের কাছে ছেড়ে যায়।’ উল্লেখ্য যে, তখন আমার স্ত্রীর হায়েজ (মাসিক) চলছিল। পরে অবশ্য আমার কথা ফিরিয়ে নিয়ে আমি বলি যে, ‘তোমার দরকার আছে’। এখন প্রশ্ন হলো, একথার দ্বারা কি আমার স্ত্রী তালাক হয়ে গেছে। আর উপরোক্ত কথা যখন বলি, তখন আমার তালাকের নিয়ত ছিল কি না, এখন আর খেয়াল নেই।

উত্তর : যেহেতু খেয়াল নেই, তাই তালাক না হওয়ারই কথা। এরপরও যদি হয়ে থাকে তাহলে সেটি ছিল প্রত্যাবর্তনযোগ্য এক তালাক। যা স্ত্রীকে কমবেসী ৩ মাসের

প্রশ্ন : আমার বোনের স্বামী উনাকে তালাকনামা পাঠিয়ে দিয়েছেন। তালাকনামায় তিন তালাকের কথা উল্লেখ করেছেন। তালাকনামার এক কপি চেয়ারম্যান, এক কপি আমার আব্বু আর এক কপি আমার বোনের কাছে পাঠিয়েছেন। প‚র্বে উনি অনেকবার মুখেও বলেছিলেন তালাক এর কথা (এক বার করে)। কিন্তু এরপর আবার স্বামী-স্ত্রী স্বাভাবিক হয়ে যান। কিন্তু এইবার এই কাজ করে ফেলেছেন। এখন উনি বলছেন উনি তালাক নামা বাতিল করবেন। আমরা জানি যে এই দেশের আইন অনুযায়ী তালাকনামা বাতিল যোগ্য। কিন্তু আমার প্রশ্ন ইসলামের দৃষ্টিতে কি এই বিয়ে আর আছে নাকি? তালাকনামায় অনেক ধরনের মিথ্যা কথা উল্লেখ করেছেন। আসলে আমার নিজের বোন দেখে বলছিনা। সত্যি যেসকল কারণ দেখিয়েছেন সব মিথ্যা আর বানোয়াট।

উত্তর : প্রথম এক তালাক দিয়ে সংসারে ফিরে আসায় বিয়ে বহাল আছে। এবারও কাগজপত্রে তিন তালাক দিয়ে আপনার দুলাভাই মূলত কী বোঝাতে চান বা আসলে

প্রশ্ন : বেশ কিছুদিন হলো বিবাহ করেছি, তারা তিন বোন, সে ছোট। প্রথমদিন শ্বশুরবাড়ি গিয়েই দেখি স্ত্রীর বড় দুলাভাই শালীদের জড়িয়ে ধরে ও চুমু খায়। আমার শাশুড়িও বলেছে বড় জামাই শালীদের বোনের মত দেখে, এটা স্বাভাবিক। আমার স্ত্রী ও দুলাভাইরা একে অপরকে ইয়ার্কি করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং ইমো, ম্যাসেঞ্জারে কে কি করছে সে ছবি দেয়, গালিগালাজ করে। যা আমার কাছে দৃষ্টিকটু লাগে। এসব ব্যাপারে স্ত্রীকে বলায় আমাকে ছোট মনমানসিকতার বলা হয়েছে। এসম্পর্কে বিধান কি?

উত্তর : আপনি যে বর্ণনা দিয়েছেন, আমাদের সমাজে ভাই বোনেরা পরস্পরে কি এমন করে? বোনেরা আপন ভাইয়ের সাথে যতটুকু খোলামেলা, ভাইয়ের মতো বা বোনের মতো

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ