Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার , ২৫ জানুয়ারী ২০২০, ১১ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

গণহত্যা মামলা মিয়ানমারের রাজনৈতিক পরাজয় : লুবিনা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে মিয়ানমারের রাজনৈতিক ও সশস্ত্র নেতৃত্বের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ এনেছে গাম্বিয়া। আন্তর্জাতিক আদালতে মামলার শুনানি বিষয়ে মিয়ানমারবিষয়ক বিশেষজ্ঞ মিশায়েল লুবিনা বলেছেন, এ গণহত্যা মামলা মিয়ানমারের জন্য রাজনৈতিক পরাজয়। মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ এবং পররাষ্ট্র নীতির ওপর এই মামলার প্রভাব কী হতে পারে সে বিষয়ে ডয়চে ভেলে তিনি এক সাক্ষাৎকারও দিয়েছেন- তিনি বলেন, মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক খ্যাতির ওপর এটি আরেকটি আঘাত। আমি ঠিক জানি না দেশটির সাধারণ মানুষ এটা বুঝতে পারছে কিনা যে, রোহিঙ্গা সংকট তাদের আন্তর্জাতিক ভাবমূর্তি যথেষ্টক্ষুণ্ণ করেছে। আমি ধারণা করি, অধিকাংশ মানুষ এ সম্পর্কে সচেতন নয়, কিংবা, বিষয়টিকে এড়িয়ে যাচ্ছেন। বিশেষ করে দেশটির সেনাবাহিনীর মধ্যে এ ধারনা রয়েছে যে, এ ইস্যুতে তারা পার পেয়ে যাবে। নিরাপত্তা বাহিনীগুলো মনে করছে, আগের অনেক অপরাধের মতো এবারও তাদের জবাবদিহিতার মুখে পড়তে হবে না। কিন্তু, যেহেতু বিষয়টি আন্তর্জাতিক আদালতে পৌঁছেছে, তাই সেটিকে আর হালকা করে দেখার সুযোগ নেই। এটাও ঠিক, এই মামলার ভবিষ্যৎ কী হবে সেটা এখনই বলা যাচ্ছে না, কেননা, গণহত্যা প্রমাণ করা বেশ কঠিন ব্যাপার। তবে এ কথা এখনোই বলা যায় যে, মামলার ফলাফল যা-ই হোক পুরো প্রক্রিয়াটির কারণে রাজনৈতিকভাবে মিয়ানমারের পরাজয় ঘটেছে। মিয়ানমারের পক্ষে সাফাই গাইতে সু চি নিজেই আন্তর্জাতিক আদালতে যাওয়ার কারণ কী বলে আপনার মনে হয়? আমি তার এ সিদ্ধান্তের কথা শুনে প্রথমে বিস্মিত হয়েছি। কিন্তু তারপর বুঝতে পেরেছি যে, এটি তাদের স্বার্থে একটি চমৎকার রাজনৈতিক পদক্ষেপ। সু চি আগামী বছরে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনের আগে তার প্রতি জনসমর্থন বাড়াতে চাচ্ছেন। আর সেটা পেতে এই হেগ যাত্রা বেশ কাজে আসবে। এই জাতীয়তাবাদী অনুভূতিকে পুঁজি করে সু চি আগামী নির্বাচন জয়ের চেষ্টা করবেন। সু চির এই সফরের পেছনে আরেকটি গোপন কারণও থাকতে পারে। কিন্তু এখন যেহেতু তিনি আন্তর্জাতিক স্তরে সামরিক বাহিনীর পক্ষে দাঁড়াচ্ছেন, সেহেতু দুই পক্ষের মধ্যকার সম্পর্কের উন্নতি ঘটতে পারে। আমাদের খেয়াল রাখতে হবে, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী দেশটির সরকারকে যে কোনো সময় উৎখাত করতে পারে। সু চিও এটা জানেন। ডয়চে ভেলে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন