Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার , ১৮ জানুয়ারী ২০২০, ০৪ মাঘ ১৪২৬, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

রাজধানীসহ সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০৮ এএম

বিএনপির চেয়ারপারসন কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন আদালতে খারিজ হওয়ার প্রতিবাদে রাজধানীসহ সারাদেশে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি নেতাকর্মীরা। গতকাল (বৃহস্পতিবার) দুপুরে আদালতের আদেশে জামিন আবেদন খারিজ হওয়ার পরপরই তাৎক্ষণিক রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিএনপি, ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দলের নেতাকর্মীরা।

বেলা দেড় টায় রাজধানীর বাংলামোটরে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল করেন দলটির নেতাকর্মীরা। অবশ্য পুলিশের ধাওয়ায় মিছিল বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। এসময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা, মহানগর পশ্চিম ও মোহাম্মদপুর থানা বিএনপি এবং ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন।
একই সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজের প্রতিবাদে ও তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামলের নেতৃত্বে মিছিলটি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে থেকে শুরু হয়ে পলাশী অভিমুখে গিয়ে শেষ হয়। এসময় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। মিছিলে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল নেতা কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, আল মেহেদী তালুকদার, জাকিরুল ইসলাম জাকির, হাফিজুর রহমান, পার্থদেব ম-ল, আমিনুর রহমান আমিন, আবু তাহের, তানজিল হাসান, খায়রুল আলম সুজন, আমান উল্লাহ আমান, নাছির, এসমএম হলের তরিকুল ইসলাম, রাজু আহমদসহ ঢাবির বিভিন্ন হল ও ইউনিটের দুই শতাধিক নেতাকর্মী।

মিছিল পরবর্তী সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ছাত্রদল সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন বলেন, গণতন্ত্রের মাতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণ মিথ্যা মামলায় অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। জামিনযোগ্য মামলায় সরকার প্রধানের হস্তক্ষেপে জামিন দেয়া হচ্ছে না। তিনি সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ছাত্রদলের অতীত আন্দোলনের ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিন, স্বৈরাচার এরশাদ জানে ছাত্রদল রাজপথে নামলে কি পরিণতি হয়। আবারও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার জন্য রাজপথে নেমেছে, প্রয়োজনে নিজের জীবন বিলিয়ে দেবে কিন্তু দেশনেত্রীকে মুক্ত না করে ঘরে ফিরে যাবে না।

যুবদল: জামিন আবেদন খারিজের প্রতিবাদে ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজধানীর গতকাল দুপুরে কমলাপুর এলাকায় এই মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্ব দেন যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, এবং সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু। এসময় তারা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। বিক্ষোভ মিছিলে আরও উপস্থিত ছিলেন যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন, যুগ্ম সম্পাদক মামুন হাসান, মহানগর দক্ষিণের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু, মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মওলা শাহিনসহ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।
অন্যদিকে, রাজধানীর পান্থপথ এলাকায় রাজপথে বিক্ষোভ করেছে মহানগর উত্তর যুবদল। উত্তরের সভাপতি এসএম জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মিল্টনের নেতৃত্বে মিছিলটি পান্থপথ বসুন্ধরা সিটির সামনে থেকে শুরু হয়। মিছিলে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে স্লোগান দেন যুবদল নেতাকর্মীরা।

স্বেচ্ছাসেবক দল: রাজধানীর মালিবাগে বিক্ষোভ মিছিল করে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল। সংগঠনটির সভাপতি শফিউল বারী বাবু ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূইয়া জুয়েলের নেতৃত্বে মিছিলটি মালিবাগ ফরচুন মার্কেটের সামনে থেকে শুরু হয়ে রেলগেইটে গিয়ে শেষ হয়। এসময় মিছিলে অংশগ্রহণ করেন স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি গোলাম সরোয়ার, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, যুগ্ম সম্পাদক সাদরেজ জামান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি এসএম জিলানী, সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, উত্তরের সাধারণ সম্পাদক গাজী রেজওয়ান হোসেন রিয়াজ, দক্ষিণের সিনিয়র সহ-সভাপতি রফিক হাওলাদার, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল কাদির ঝিলন, উত্তরের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আজিজুর রহমান মুসাব্বির, সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা আনু মোঃ শামীম আজাদ, আক্তারুজ্জামান বাচ্চুসহ প্রায় দুই শতাধিক নেতাকর্মী।

২জন আটক: খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজের প্রতিবাদ ও তাঁর মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ প্রদর্শনের সময় দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন- পল্টন থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফিরোজ পাটোয়ারী ও পল্টন থানা ছাত্রদলের সাবেক নেতা ইব্রাহিম খলিল। জামিন আবেদন খারিজ হওয়ার এর পরই হাইকোর্টের মাজার গেটের মূল ফটকের বিপরীত পাশে কার্জন হলের পাশে ফুটপাতে দাঁড়িয়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে শ্লোগান দেন। তখনই পুলিশ তাদের ধাওয়া করে এবং সেখান থেকে দুজনকে আটক করে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আমাদের সংবাদদাতারা জানিয়েছেন এ সম্পর্কিত তথ্য :
রাজশাহী ব্যুরো জানায় :বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু বলেছেন, বেগম জিয়া কোন প্রকার দুর্নীতি না করেও জেল খাটছেন। তিনি অসুস্থ হওয়া সত্ত্বেও এই সরকার বেগম জিয়াকে জামিন দিচ্ছেন না। গতকাল ছিল তাঁর জামিনের শুনানী। কিন্তু আওয়ামীপন্থী বিচারক তাঁকে জামিন না দিয়ে আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন। বেগম জিয়াকে জেলের মধ্যে মেরে ফেলার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে এই সরকার।

বেগম জিয়ার জামিনের শুনানীকে কেন্দ্র করে গতকাল সকাল থেকেই মালোপাড়াস্থ বিএনপি দলীয় কার্যালয়ের সামনে নেতাকর্মীরা জড়ো হন। সেখানেই চলে সমাবেশ। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপি’র আহবায়ক আবু সাঈদ চাঁদ। প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য জননেতা মিজানুর রহমান মিনু। বিশেষ অতিথি ছিলেন
বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক, রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক রাসিক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন ও সদস্য সহিদুন্নাহার কাজি হেনা অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন। এছাড়াও মহানগর জেলা বিএনপি’র সদস্য সৈয়দ মহসিন আলী, মিজানুর রহমান মিজান, রাজপাড়া থানা বিএনপি’র সভাপতি শওকত আলী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক রানা, জেলা বিএনপি’র সদস্য আনোয়ার হোসেন উজ্জল, তাজমুল তান টুটুল, শাহ্ মখ্দুম থানা বিএনপি’র সভাপতি মনিরুজ্জামান শরীফ, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন, মতিহার থানা বিএনপি’র সভাপতি আনসার আলী উপস্থিত ছিলেন।

বগুড়া ব্যুরো জানায় : বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন নাকচ হওয়ার খবর মিডিয়ায় প্রচার হওযার পরপরই বগুড়ায় বিএনপির নেতাকর্মীরা দলীয় কার্যালয়ে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্ব দেন দলের সিনিয়র নেতা রেজাউল করিম বাদশা, আলী আজগর তালুকদার হেনা, এম আর ইসলাম স্বাধীন,ওমর ফারুক খান, তৌহিদুল আলম মামুন, শেখ তাহাউদ্দিন নাহিন। একই সময়ে বগুড়া বার চত্বরে বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীগন এবং পৃথকভাবে বগুড়া মহিলা দল ও বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।
নওগাঁ জেলা সংবাদদাতা জানান : নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলা বিএনপির উদ্যোগে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করা হয়।

দলীয় কার্যালয় থেকে মিছিলটি বের হয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। অন্যদের মধ্যে উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব মো: রবিউল আলম বুলেট, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো: আব্দুল মতিন মন্ডল, সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন, বিএনপি নেতা আফতাব উদ্দিন, আমিনুল ইসলাম আমিন, যুবদল নেতা শাহাদৎ হোসেন শান্ত, ছাত্রদল নেতা কাজী সামসুজ্জোহা মিলন প্রমুখ মিছিলে নেতৃত্ব দেন। পরে বাসস্ট্যান্ডে আয়োজিত সমাবেশে উপজেলা বিএনপির সভাপতি রবিউল আলম বুলেট বক্তব্য দেন।

স্টাফ রিপোর্টার নারায়ণগঞ্জ থেকে জানান : জামিন আবেদন খারিজের প্রতিবাদে তাৎক্ষনিক বিক্ষোভ মিছিল করেছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের নেতাকর্মীরা। একই সাথে অবিলম্বে তার মুক্তির দাবি করেন তারা। মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ ও সাধারণ সম্পাদক মমতাজ উদ্দিন মন্তুর নেতৃত্বে এ বিক্ষোভ মিছিল হয়।
মিছিলটি শহরের উকিলপাড়া থেকে শুরু হয়ে চাষাঢ়ার দিকে আসার সময় নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের সামনে পুলিশের বাধায় পড়ে। এসময় মিছিল থেকে নেতাকর্মীদের ব্যানার কেড়ে নিয়ে নেতাকর্মীদের ধাওয়া দিলে পুলিশের সাথে তাদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। তবে এ ঘটনায় কোন আহত কিংবা আটক নেই।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাজধানী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ