Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার , ২০ জানুয়ারী ২০২০, ০৬ মাঘ ১৪২৬, ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

প্রতিবাদ-সংঘাতের মধ্যেই নাগরিকত্ব বিলে রাষ্ট্রপতি রামনাথের স্বাক্ষর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১১:৫৯ এএম

ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বিক্ষোভ-প্রতিবাদ উলঙ্গ মিছিল চলছে। এরূপ উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যেই তাড়াহুড়ো করে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে স্বাক্ষর করে একে আইনে পরিণত করেছেন দেশটির রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। এই সংশোধনী বিল অনুযায়ী, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান, জৈনসহ সংখ্যালঘুরা ভারতে নাগরিকত্বের দাবি জানাতে পারবেন। তবে এতে মুসলমানদের জন্য তেমন কোনো ব্যবস্থা রাখা হয়নি।
নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে সংঘর্ষে উত্তাল পরিস্থিতি সামলাতে হচ্ছে ভারতের আসাম ও ত্রিপুরা রাজ্যকে। পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। এ পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার রাতে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে সম্মতি দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের পর নাগরিকত্ব সংশোধনী এই বিল আইনে পরিণত হলো।
এর আগে বুধবার রাজ্যসভায় পাস হয় এই বিল। গত সোমবার লোকসভায় পাস হয়েছিল এই বিল। বিরোধীদের প্রবল বিতর্কের মধ্যেও বিল পাস আটকে রাখা যায়নি।
এই বিল পাসকে কেন্দ্র করেই বিক্ষোভ-প্রতিবাদ চলছে ভারতে। কারফিউ ভেঙে রাস্তায় নামা জনতার সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েছে।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজ্যের গুয়াহাটিতে পুলিশের গুলিতে অন্তত তিনজন নিহত ও আরও অনেকে আহত হয়েছেন।
বিলটির বিষয়ে লোকসভাতেই বিরোধীদের জবাব দিয়ে অমিত শাহ জানিয়েছেন, ভারতীয় মুসলিমদের ওপর কোনো প্রভাব পড়বে না। ভারতে বসবাসকারী মুসলিমরা সম্মানের সঙ্গেই বাঁচতে পারবেন।
এই বিল পাস হওয়ার পর থেকেই জ্বলে উঠেছে উত্তর-পূর্ব ভারত। বিক্ষোভে অচল হয়ে পড়েছে আসাম, ত্রিপুরাসহ উত্তর পূর্বাঞ্চলের বিভিন্ন রাজ্য। আসাম ও ত্রিপুরার উত্তপ্ত পরিস্থিতির কারণে দুই রাজ্যে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। বারবার বিক্ষোভ মিছিল ও গুলি চালানোর ঘটনায় আসামের সর্বত্র প্রবল অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়েছে। এবার ভারতের রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরে বিলটি আইনে পরিণত হওয়ায় বিক্ষোভের পরেও স্পষ্টত তা সংশোধনের পরিকল্পনা নেই শাসক দলের।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন