Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬, ০৩ রজব ১৪৪১ হিজরী

ভারত জুড়ে এনআরসি আতঙ্ক,বাংলাভাষীরা ভিড়ছে সীমান্তে

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৮:১২ পিএম

ভারত জুড়ে বাংলাভাষীদের মধ্যে এনআরসি আতঙ্ক বিরাজ করছে। ভারতের আসামসহ জেলায় জেলায় বিক্ষোভ চলছে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাসের বিরুদ্ধে। দৈনিক আজকাল, প্রতিদিন ও গণশক্তিসহ ভারতীয় পত্র-পত্রিকা এ খবর দিয়েছে। তারা উল্লেখ করেছে, আসাম অগ্নিগর্ভ, ইতোমধ্যে পুলিশের গুলীতে ৩জন নিহত হয়েছে, কার্ফ্যূ উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমেছে। ওপারের একাধিক সূত্র জানায়, বিভিন্ন রাজ্যে বাংলাভাষীরা চরম আতঙ্কে রয়েছেন। তাদের অনেকেই বাংলাদেশ সীমান্তে জড়ো হচ্ছে। বিএফএফ তাদের বাংলাদেশে পুশ ইনের জন্য অতিমাত্রায় তৎপর হয়ে উঠেছে। যশোর ৪৯ বিজিবি’র কমান্ডিং অফিসার লেঃ কর্ণেল সেলিম রেজা দৈনিক ইনকিলাবকে জানান, সীমান্তে কঠোর সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে অনুপ্রবেশরোধে। তবে গত দু’দিনে কোন বাংলাভাষী পুশ ইন হয়নি। সীমান্ত সূত্র জানায়, ওপারে এনআরসি আতঙ্কে অনেক বাংলাভাষী স্বেচ্ছায় সীমান্তে ভিড়ছে। তাদের জড়ো করে বাংলাদেশে পুশইনের চেষ্টা চালাচ্ছে বিএসএফ।

ভারতীয় পত্রিকার খবর, ভারতের এনআরসির প্রতিবাদে এবার গণ আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তিনি বলেছেন, আমরা ক্যাব-এনআরসি করতে দেব না। যে বিজেপি করবে, তাকেই শুধু নাগরিকত্ব দেওয়া হবে? বাকিদের না? আসামে আগুন জ্বলছে দেখুন, কী অত্যাচার চলছে! বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক কোথায় দাঁড়িয়েছে আজ।
শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) দিঘায় এক সমাবেশে আগামী (রোববার থেকে বুধবার) টানা চারদিন কলকাতাসহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দিয়ে তিনি এ কথা বলেন।
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বলেন, নো এনআরসি, নো ক্যাব। আইন পাস হলেও আমাদের সরকার তা কার্যকর করবে না। সকলকে বলছি, ধর্ম-বর্ণ-জাতি নির্বিশেষে সকলে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে প্রতিবাদ করুন। সব রাজ্যে গণ আন্দোলন করুন। বাংলাতেও গণ আন্দোলন গড়ে তুলুন।
মোদি সরকারকে উদ্দেশ্য করে মমতা বলেন, ক্যাব-এনআরসি নিয়ে অনেক বুঝিয়েছি। বেড়ালের গলায় ঘণ্টা বাজিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করেছি। কতবার বলেছি, আগুন নিয়ে খেলতে যেও না, শোনেনি। আসাম, মেঘালয়, ত্রিপুরাসহ সব রাজ্যের আলাদা আবেগ রয়েছে। বিজেপিকে আক্রমণ করে মমতা আরও বলেন, বিজেপি এখন ওয়াশিং মেশিন। বিজেপিতে গেলে সাফ, না হলে জেলে। সাম্প্রদায়িকতার রং নিয়ে খেলছে বিজেপি। দেশজুড়ে অস্থিরতা চলছে। দেশের অর্থনীতি কালো মেঘে ছেয়ে গেছে। বেকারত্ব বাড়ছে, দারিদ্রতা বাড়ছে।
এদিকে, ভারতে বাংলাভাষীদের মধ্যে এনআরসি আতঙ্কের পাশাপাশি দক্শিষ-পশ্চিমাঞ্চলসহ গোটা সীমান্তের বিভিন্ন মানুষের মধ্যে নানা উদ্বেগ-উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। গত ১১ ডিসেম্বরের পর এ্ অঞ্চলের সীমান্তে কোন পুশ হয়নি বলে বিজিবি জানিয়েছে। আমাদের ঝনিাইদহ জলো সংবাদদাতা জানান, ১১ ডিসেম্বর ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ভৈরবা এলাকার সাখরখাল এলাকা দিয়ে অবৈধ ভাবে সীমান্ত পারাপারের সময় ৪জন নারী কে আটক করে বিজিবি খালিশপুর ৫৮ ব্যাটেলিয়ান। বুধবার সকালে ওই এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয় ।বিজিবি খালিশপুর ৫৮ ব্যাটেলিয়ান এর উপ-পরিচালক কামরুল হাসান এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান আটককৃত ৪জন নারীর অনুপ্রবেশ ঘটেছে, তাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ পাসপোর্ট অধ্যাদেশ ১৯৭৩ এর ১১(১)(গ) ধারায় মহেশপুর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ