Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার , ১৮ জানুয়ারী ২০২০, ০৪ মাঘ ১৪২৬, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

পাটকল শ্রমিকদের সঙ্গে বিজেএমসির বৈঠক আজ

পাটকল শ্রমিকের মৃত্যুতে জাবিতে বিক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০২ এএম

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের শ্রমিকদের বকেয়া বেতন ভাতা পরিশোধ ও মজুরি কমিশন বাস্তবায়নসহ ১১ দফার আন্দোলনের মুখে জরুরি সভা ডেকেছে বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি)। বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের মহা ব্যবস্থাপক (প্রশাসন ও সা. সেবা নাসিমুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এই জরুরি সভার প্রেক্ষিতে গত শুক্রবার গভীর রাতে আন্দোলনরত শ্রমিকরা আগামী ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত তাদের অমরণ অনশন স্থগিতের ঘোষণা দেন।
এদিকে রাজশাহী জুট মিলস সিবিএ সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি জিল্লুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) চেয়ারম্যান জরুরি সভা ডেকেছেন। সভায় পাটকল শ্রমিক লীগ নেতৃবৃন্দ ও সব মিলের সিবিএ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে নিয়ে রোববার বিকেল ৩টায় বিজেএমসির সভা কক্ষে এ সভা ডাকা হয়েছে। তিনি বলেন, ওই সভায় দাবি মানা হলে আমাদের আন্দোলন প্রত্যাহার করা হবে। আর দাবি মানা না হলে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।
মজুরি কমিশন বাস্তবায়নসহ ১১ দফা দাবিতে খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত নয়টি পাটকলের শ্রমিকরা গত ২৩ নভেম্বর থেকে দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সভা, বিক্ষোভ মিছিলসহ ধর্মঘটের মত কর্মস‚চি পালন করে আসছে। এ ১১ দফার মধ্যে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারীর সিদ্ধান্ত বাতিল, কাঁচা পাট কিনতে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ, অবসরে যাওয়া শ্রমিকদের বকেয়া পরিশোধ করার দাবি রয়েছে। গত ১০ ডিসেম্বর দেশের ২৬টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের মধ্যে ১২টির শ্রমিকরা আমরণ অনশন কর্মস‚চি শুরু করেন। রাজশাহীতে একটি, খুলনা অঞ্চলে নয়টি, নরসিংদীতে একটি ও চট্টগামে একটি পাটকলের শ্রমিকরা এ আমরণ অনশনে যোগ দেন।
এর মধ্যে খুলনায় অংশ নেওয়া এক শ্রমিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এছাড়া অন্যান্য জায়গার মত রাজশাহীতেও অনশন চলাকালে বেশ কয়েকজন শ্রমিক অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। যাদের মধ্যে সাতজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অনশন স্থগিত ঘোষণার পর আন্দোলনরত এই ১২টি পাটকলের একটি রাজশাহীর কাটাখালীতে অবস্থিত রাজশাহী জুটমিলের প্রধান ফটকের সামনে থেকে শ্রমিকরা বাড়ি ফিরে গেছেন।
পাটকল শ্রমিকের মৃত্যুতে জাবিতে বিক্ষোভ
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পাটকল শ্রমিকদের নিয়মিত মজুরি পরিশোধসহ ১১ দফা দাবির সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে আমরণ অনশনরত শ্রমিক আবদুস সাত্তারের মৃত্যুতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের জাবি শাখার নেতাকর্মীরা। গতকাল শনিবার দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানবিকী অনুষদ সংলগ্ন মুরাদ চত্বর থেকে ‘সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ ব্যানারে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক ঘুরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হয়।
এ সময় সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতাকর্মীরা পাটকল শ্রমিকদের ১১ দফা দাবি মেনে নেওয়ার জন্য সরকারকে অনুরোধ জানান। সমাবেশে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ জাবি শাখার আহ্বায়ক শাকিলউজ্জামান বলেন, সরকারকে আমরা বলতে চাই খুলনায় পাটকল শ্রমিকদের আমরণরত অনশনে আবদুস সাত্তার যে মারা গেলেন অনতিবিলম্বে তাদের মজুরি কমিশনসহ ১১ দফা দাবি মেনে নিন। মেনে না নিলে এদেশের ছাত্র সমাজ, শ্রমিক জনতা একত্র হয়ে এ দাবিসমুহ বাস্তবায়নে রাজপথে নামবে।
ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ জাবি শাখার ম‚খপাত্র খান মুনতাসির আরমান বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশে বসবাস করার জন্য আমরা যে সংগ্রাম ও লড়াই করেছিলাম আমাদের শ্রমিক ভাইদের পরিশ্রমে সেই বাংলাদেশ অনেকে দ‚রে পৌঁছে গেছে। শ্রমিক ভাইদের রক্তে ঘামে বাংলাদেশ গড়ে উঠেছে তাদের জন্য আমরা কি দিচ্ছি? আমরা আমাদের বিক্ষোভ মিছিল থেকে বলতে চাই এদেশে ৫২ এর ভাষা আন্দোলন, ৬৯ এর গণভ্য‚ত্থান, ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধ, ৯০ এর স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে ছাত্র শ্রমিক জনতা একত্র হয়ে সংগ্রাম করেছে। তাই এ বাংলাদেশে আমাদের শ্রমিক ভাইদেরকে মেহনতি মানুষদেরকে দ‚রে রেখে ছাত্ররা অভিজাতন্ত্র কায়েম করতে দিবে না।
নিয়মিত মজুরি পরিশোধসহ ১১ দফা দাবিতে খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলের শ্রমিকরা আমরণ অনশন শুরু করেন। এতে বৃহস্পতিবার প্লাটিনাম জুবলি জুট মিলের শ্রমিক আব্দুস সাত্তার (৫৫) মারা যান।



 

Show all comments
  • ** হতদরিদ্র দিনমজুর কহে ** ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৯:২৬ এএম says : 0
    আলোচনা করে শ্রমিকদের দাবী মেনে নিন।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাট

২ জানুয়ারি, ২০২০
২৯ ডিসেম্বর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ