Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ৬ কার্তিক ১৪২৭, ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

যার ঘোষণায় দেশ স্বাধীন তার স্ত্রী কারাগারে

সাংবাদিকদের মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

যিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন তাঁর স্ত্রী আজকে কারাগারে আটক রয়েছেন এটাই জাতির জন্য সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ৪৯ বছর আগে আজকের এই দিনে আমরা দীর্ঘ ৯ মাস একটি রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্য দিয়ে এ দেশ স্বাধীন করেছিলাম। কিন্তু দুর্ভাগ্যের কথা, আজকে ৪৯ বছর পরে এ দেশ সম্পূর্ণ গণতন্ত্রবিহীন হয়ে পড়েছে। সবচেয়ে দুঃখজনক ব্যাপার, স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় যিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন, তার সহধর্মিণী (খালেদা জিয়া) সে সময় পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর হাতে বন্দী হয়েছিলেন, নির্যাতনের শিকার হয়েছিলাম, তাকে আজকে অন্ধকার কারাগারে আটক করে রাখা হয়েছে।

গতকাল (সোমবার) সকালে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।
শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের অলিখিত ঘোষণার মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়েছিল মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, এই যুদ্ধের মূল চেতনা ছিল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ও গণতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা। কিন্তু দুর্ভাগ্যের কথা আজ ৪৯ বছর পরে এই দেশ সম্পূর্ণভাবে গণতন্ত্রবিহীন হয়ে পড়েছে। এই দেশে আজ মানুষের কোনও অধিকার নেই, ভোটের অধিকার নেই। গণতান্ত্রিক অধিকারগুলো সব হরণ করা হয়েছে। এমনকি মানুষের ন্যূনতম মৌলিক অধিকারগুলোও আজ হরণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়া দীর্ঘ ৯ বছর স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই ও সংগ্রাম করেছিলেন। তিনি জনগণের ভোটে তিন বার প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছিলেন। দুই বার বিরোধীদলীয় নেত্রী ছিলেন। গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করতে গিয়ে আজ অন্যায় ও নির্মমভাবে তাকে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। আমরা আজকের এই দিনে শপথ গ্রহণ করছি, যে চেতনার ভিত্তিতে আমরা মুক্তিযুদ্ধ করে দেশকে স্বাধীন করেছিলাম, সেই চেতনাকে সামনে নিয়ে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে, গণতন্ত্রকে মুক্ত করবো, দেশনেত্রীকে মুক্ত করবো।

শ্রদ্ধা নিবেদনের সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আব্দুল মঈন খান, বিএনপি চেয়াপরপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আব্দুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি ডা. দেওয়া সালাউদ্দিন বাবু, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবু আশফাক, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূইয়া জুয়েলসহ নেতাকর্মীরা।

জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর গতকাল দুপুরে বিএনপি নেতাকর্মীরা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। বিএনপি মহাসচিবের নেতৃত্বে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ কয়েক হাজার নেতাকর্মী জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তারা কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন এবং শহীদ জিয়ার রুহের মাগফেরাত কামনায় বিশেষ মুনাজাত করেন। বিজয় দিবস উপলক্ষে সকাল ৯টা থেকেই নেতা-কর্মীরা ব্যানার নিয়ে ‘স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া, লও লও লও সালাম’ ¯েøাগান দিয়ে মাজার প্রাঙ্গণে সমবেত হন। তারা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতেও ¯েøাগান দেন। এ সময় অন্যদের মধ্যে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আবদুল মঈন খান, সেলিমা রহমান, কেন্দ্রীয় নেতা মোহাম্মদ শাহজাহান, জয়নুল আবদিন ফারুক, আবদুস সালাম, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, ফজলুল হক মিলন, শিরিন সুলতানা, হাবিবুল ইসলাম হাবিব, শামীমুর রহমান শামীম, মীর নেওয়াজ আলী, হায়দার আলী লেলিন, আমিরুল ইসলাম খান আলিম, আমিরুজ্জামান শিমুল, রফিক সিকদার, আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, মুক্তিযোদ্ধা দলের ইশতিয়াক আজিজ উলফাত, সাদেক আহমেদ খান, তাঁতী দলের আবুল কালাম আজাদ, মহানগর বিএনপির কাজী আবুল বাশার, নবী উল্লাহ নবী, এজিএম শামসুল হক, স্বেচ্ছাসেবক দলের শফিউল বারী বাবু, গোলাম সারোয়ার, আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, মহিলা দলের আফরোজা আব্বাস, হেলেন জেরিন খান, উলামা দলের শাহ নেছারুল হক, মৎস্যজীবী দলের আবদুর রহিম, জাসাসের হেলাল খান, ছাত্রদলের ফজলুর রহমান খোকন, ইকবাল হোসেন শ্যামল সহ যুবদল, ড্যাব, জেটেব, কৃষক দল, শ্রমিক দলের নেতারা নিজ নিজ সংগঠনের ব্যানারে জিয়ার মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে প্রকাশিত রাজাকারের তালিকায় সাবেক প্রেসিডেন্ট আবদুর রহমান বিশ্বাস ও প্রধানমন্ত্রী শাহ আজিজুর রহমানের নাম রয়েছে এ বিষয়ে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এই সরকার তার নিজের রাজনৈতিক প্রয়োজনে হীন উদ্দেশ্য নিয়ে বিভিন্ন তালিকা তৈরি করেছে এবং সেই তালিকা দিয়ে আজকে বিএনপিকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এই সমস্ত তালিকা তারা প্রকাশ করেছে। এটা সম্পর্কে বিস্তারিত না জেনে আমাদের বলা সম্ভব নয় যে, ৪৯ বছর পরে প্রকাশিত রাজাকারের তালিকা কতটুকু সঠিক হয়েছে না হয়েছে? আমাদের দাবি একমাত্র হচ্ছে- সুষ্ঠুভাবে প্রকৃত তালিকা নির্ধারণ করা। সেটা কেবল মুক্তিযোদ্ধারাই করতে পারেন এবং শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের দল বিএনপিই সেটা করতে পারে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, জনগণের দ্বারা নির্বাচিত নয়, জোর করে ক্ষমতায় এসেছে এই সরকার। তারা একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রবর্তন করার জন্যে সমস্ত রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবহার করে প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভেঙে ফেলছে এক এক করে। আজকের এদিনে আমরা এসেছি আমাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত করতে এবং তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে। এখানে আমরা শপথ নিয়েছি যে, জনগণকে সংগঠিত করে আমরা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করব এবং গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনব ইনশাল্লাহ।

ড্যাবের শ্রদ্ধাঞ্জলি: বিজয় দিবস উপলক্ষে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে এবং বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব)। গতকাল সোমবার সকালে শেরেবাংলা নগরে শহীদ জিয়ার মাজারে শ্রদ্ধা জানানোর সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ড্যাবের সাবেক আহŸায়ক অধ্যাপক ডাঃ ফরহাদ হালিম ডোনার, ড্যাবের সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ হারুন আল রশিদ, মহাসচিব অধ্যাপক ডাঃ আবদুস সালাম, সিনিয়র সহ-সভাপতি ডাঃ মোঃ আবদুস সেলিম, দফতর সম্পাদক ডাঃ মোঃ ফখরুজ্জামান, ড্যাব বিএসএমএমইউ শাখার সভাপতি ডাঃ মোঃ শেখ ফরহাদ, ডাঃ গালিব সহ ড্যাবের কেন্দ্রীয় ও বিভিন্ন ইউনিটের শত নেতাকর্মী। এরআগে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ড্যাব নেতৃবৃন্দ।

এদিকে নান্দাইলে বিএনপি নেতা মামুন বিন আব্দুল মান্নানের নেতৃত্বে বিজয় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও শোভাযাত্রা বের করা হয়। এসময় নান্দাইল উপজেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।#



 

Show all comments
  • মোঃসহেল মোঃসহেল ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:৫৪ এএম says : 0
    স্যার আপনি সঠিক বলেছেন।কিন্তু আপনাদের বসে থাকলে হবে না।জীবন মরন আন্দোলন করতে হবে।তা না হলে এই দেশ থেকে চিরতরে আপনাদেরকে বিদায় নিতে হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Abdul Kadir Probashi Probashi ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:৫৩ এএম says : 0
    ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য,অথবা সরকার পরিবর্তনের জন্য,ইতিহাস বিকৃত করা জরুরী নয়।সারা পৃথিবী জানে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের মধ্যে দিয়েই মুক্তিযুদ্ধের সুচনা।
    Total Reply(0) Reply
  • Sajib Sayed Khan ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:৫৫ এএম says : 0
    বঙ্গবন্ধুর পক্ষে ঘোষনাপত্র পাঠ করেই স্বাধীনতার ঘোষক হয়ে গেলেন? আরো তো অনেকেই পাঠ করেছেন।
    Total Reply(0) Reply
  • ShahJalal M. Sabit ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:৫৬ এএম says : 0
    আর যারা যুদ্ধের সময় পালিয়ে ছিলো আজ তারাই ক্ষমতায়!
    Total Reply(0) Reply
  • HM Lavlu ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:৫৬ এএম says : 0
    স্বাধীনতার ঘোষক নিয়া,বিতর্ক সৃষ্টির কোন সুযোগ নেই,।জিয়া বঙ্গবন্ধুর পহ্মে ঘোষণা পাঠক মাত্র।পাঠক কি করে ঘোষক হয়??
    Total Reply(0) Reply
  • Monir Hossain ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:৫৭ এএম says : 0
    সাধারন নাগরিক হিসেবে আমরা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা রয়েছে, খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনটা ছিলো মানবিক আবেদন। মানুষের মাঝে বিবেচনা বোধের বিবেচনা থাকলে খালেদা জিয়ার কেনো জামিন নামঞ্জুর হয়। অসুস্থ মানুষের সাথে অমানবিক আচরণ নিশ্চয়ই জাতির জন্য লজ্জাজনক।
    Total Reply(0) Reply
  • Syed Kutub Uddin ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:৫৭ এএম says : 1
    ২৬শে মার্চ স্বাধীনতার ঘোষণা দেন জিয়া রহমান।যা চিরন্তন সত্য।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মির্জা ফখরুল


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ