Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬, ০৩ রজব ১৪৪১ হিজরী

মহাখালীস্থ মসজিদে গাউছুল আজমে মরহুম হযরত মাওলানা শামছুল হক সাহেবের জীবনাদর্শের উপর বিশেষ আলোচনা ও ছওয়াব রেছানী অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৯:৪০ পিএম | আপডেট : ১০:০৬ পিএম, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯

বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সাবেক সহ-সভাপতি, গুলশান সেন্ট্রাল মসজিদের সম্মানীত সাবেক খতিব ও ইমাম, উত্তর বাড্ডা ইসলামিয়া কামিল মাদরাসার সাবেক অধ্যক্ষ, শামছাবাদ দরবার শরীফ গজীপুর এর পীর সাহেব, দেশ বরেণ্য আলেমেদ্বীন, মুর্শিদে সাদিক অধ্যক্ষ আলহাজ্ব হযরত মাওলানা শামছুল হক সাহেবের রূহের মাগফিরাত কামনায় দেশের মাদরাসা শিক্ষক কর্মচারীদের একমাত্র পেশাজীবি অরাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের কেন্দ্রীয় কার্যালয় মহাখালীস্থ মসজিদে গাউছুল আজম কমপ্লেক্সে গতকাল বাদ মাগরীব ইছালে ছওয়াব ওয়াজ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। মাহফিলে প্রধান অতিথি বক্তব্যে জামিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভাপতি ও দৈনিক ইনকিলাব সম্পাদক আলহাজ্ব এ এম এম বাহাউদ্দীন বলেন, আমার জীবনে অসংখ্য আলম-ওলামা দেখেছি তন্মধ্যে মাওলানা শামছুল হক সাহেব ছিলেন অন্যতম। তিনি এতবড় আলেম ও তাছাওফের শিক্ষক ছিলেন যার কোন লোভ, রাজনৈতিক চিন্তা, স্বার্থের চিন্তা ছিলনা। সর্বদাই তিনি মানুষের কল্যাণে, দ্বীনের পথের নির্দেশনা দানে ব্যস্ত সময় পার করতেন। আমার পিতা মরহুম মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.) এর অত্যন্ত কাছে ও আস্থাভাজন মানুষ ছিলেন তিনি। মাওলানা শামছুল হক সাহেবের কাছে যেকোন সমস্যা নিয়ে গেলে তিনি অত্যন্ত সাবলিল ও হাসিমুখে নির্দিধায় তা সমাধানের পথ বলে দিতেন। আমার নিজের দেখা এতবড় আলেম ও আদ্ধাত্মিক ব্যক্তি দেশে খুব কমই আছে। শুধু আমাদের দেশেই নয় সারা বিশ্বেই এখন ভোগবাদী আলেমদের ছড়াছড়ি, যখন সবাই নিজ নিজ আখের ঘুচাতে ব্যস্ত ঠিক সেই সময়ে একজন স্বার্থত্যাগী ও মানব কল্যাণে আত্মনিয়োগকারী ব্যাক্তি তিনি। চাইলেই তিনি সম্পদের পাহাড় গড়তে পারতেন, পারতেন দেশের ধনী ব্যাক্তিদের তালিকায় নিজের নাম লেখাতে, কিন্তু তিনি তা করেননি বরং যা আয় করেছেন তার সিংহ ভাগই দান করে দিয়েছেন। বর্তমানে সারা দেশের আলেম ও ওয়াজিনদের মধ্যেই নিজেকে সোস্যাল মিডিয়া তথা ফেইসবুক ইউটিউবে প্রতিষ্ঠিত করার প্রবনতা দেখা যায় কিন্ত আজ পর্যন্ত আমি তার ভিতরে তেমন কোন আগ্রহ দেখিনি। 

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে যদি মাওলানা শামছুল হক সাহেবে মত আলেম ও হক্কানী পীর থাকতো তাহলে হয়তো দেশের এতটা সংকট ও অন্যায় থাকতো না। দেশের মধ্যে আল্লাহর রহমত বিরাজ করত। সর্বত্রই এখন অশান্তি ও উসৃংখলতা বিরাজ করছে, আমাদের মোবাইল ফোনে যতগুলো না কোরআনের আয়াত রয়েছে তার থেকে বেশী অশ্লিল ডকুমেন্টারী থাকে। যার ফল আমরা আমাদের বাস্তব জীবনে ভোগ করছি।
ওয়াজ ও দোয়া মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন জামিয়াতুল মোদার্রেছীনের মহাসচিব ও শ্রীপুর ভাংনাহাটি রহমানিয়া কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওলানা শাব্বীর আহমদ মোমতাজী। ওয়াজ ও আলোচনা পেশ করবেন, আলহাজ্ব মাওলানা কবি রূহুল আমীন খান- সিনিয়ার সহ-সভাপতি বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীন ও নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক ইনকিলাব, আলহাজ্ব মাওলানা ইউনুস আল-আযহারী- সাবেক প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ মহাখালী হোসাইনিয়া কামিল মাদরাসা, মাওলানা নূরুল আমীন আতেকী- খতিব মিরপুর আন্নূরী জামে মসজিদ, মাওলানা আব্দুল বাতেন- সাবেক জমিয়াত ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য, মাওলানা আব্দুর রহমান বেলাসী- সাবেক জমিয়াত স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য, মাওলানা আনোয়ার হোসাইন মোল্লাহ্- অধ্যক্ষ উত্তর বাড্ডা ইসলামিয়া কামিল মাদরাসা, মাওলানা ইসাম উদ্দীন আত্তারী, মাওলানা এজহারুল হক- অধ্যক্ষ মোহাম্মাদপুর গাউছিয়া কামিল মাদরাসা, ড. মাওলানা নজরুল ইসলাম আল মারুফ- অধ্যক্ষ মহাখালী হোসাইনিয়া কামিল মাদরাসা। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মরহুম হযরত মাওলানা শামছুল হক (রহ.) সাহেবের মুরিদান, ভক্ত, আাশেকীনগণ মহতী মাহফিলে অংশ নেন। সবশেষে মরহুম পীর ছাহেব কেবলার বড় ছাহেবজাদা মহাখালী হোসাইনিয়া কামিল মাদরাসার মুহাদ্দিস ও পূর্ব রাজাবাজার জামে মসজিদের খতিব আলহাজ্ব মাওলানা মাহবুবুর রহমান মরহুমের আত্মার মাগফিরাতে ও দেশের সার্বিক কল্যাণে দোয়া ও মোনাজাত করেন।



 

Show all comments
  • সাইফুল ইসলাম চঞ্চল ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১০:০৬ পিএম says : 0
    আল্লাহ ওনাকে বেহেস্ত নাসিব করুন। আমাদের ওয়ালেদ মুহতারাম মহান আল্লাহ তায়ালার এক নিষ্ঠমুত্তাকীবান্দা ছিলেন। ব্যক্তি জীবনেবহু দীনিমাদারেস ও মাছাজেদ প্রতিষ্ঠাকরেন।
    Total Reply(0) Reply
  • মোহাম্মদ মোশাররফ ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১০:০৬ পিএম says : 0
    আল্লাহ ওনাকে বেহেস্ত নাসিব করুন।
    Total Reply(0) Reply
  • মেহেদী ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১০:০৮ পিএম says : 0
    মাওলানা শামছুল হক সাহেবে বিনয়ী, সদালাপী, পরোপকারী, অতিথীপরায়ন, অনাথ-দুস্থদের সাহায্যকারী ছিলেন।
    Total Reply(0) Reply
  • কাজী হাফিজ ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১০:০৮ পিএম says : 0
    এক কথায় হযরত ছিলেন রাসূলে আকরাম (সঃ) এর সুন্নতেরপূর্ণ অনুসারী। আল্লাহ উত্তম প্রতিদান দিন।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ আসাদুজ্জামান ২১ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০৬ এএম says : 0
    দৈনিক ইনকিলাব সম্পাদকের এমন তথ্যবহুল আলোচনায় আমি মুগ্ধ। আমার সৌভাগ্য হয়েছিল প্রোগ্রামটিতে অংশগ্রহণ করার। এমন স্বার্থান্বেষী হুজুরদের বিরুদ্ধে সম্পাদক মহোদয়ের জোড়ালো ভূমিকা আশা করছি।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জমিয়াতুল মোদার্রেছীন

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ