Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৫ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৩ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

মৃত্যুদণ্ডের বিরুদ্ধে লাহোর হাই কোর্টে পারভেজ মোশারফের আপিল

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৬:৩৮ পিএম

মৃত্যুদণ্ডের বিরুদ্ধে এবার লাহোর হাই কোর্টের দ্বারস্থ হলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশারফ। আজ শুক্রবার দুবাই থেকে আইনজীবীর মাধ্যমে রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন জানান তিনি।

কয়েকদিন আগেই সাবেক পাক সেনাপ্রধানকে রাষ্ট্রদোহিতার মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে পাকিস্তানের একটি বিশেষ আদালত। রায়ে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় মোশারফকে। এই রায়ের বিরুদ্ধেই এবার হাই কোর্টে আপিল জানিয়েছেন তিনি। বর্তমানে চিকিৎসার জন্য দুবাইয়ে রয়েছেন এককালের দাপুটে পাক সেনাপ্রধান ও কার্গিল যুদ্ধের অন্যতম নায়ক।

এক ভিডিও বার্তায় মোশারফ দাবি করেছেন, ব্যক্তিগত প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতেই তাকে ফাঁসির সাজা দেয়া হয়েছে। বিশেষ করে বিচারের ৬৬ পরিচ্ছদ নিয়ে আপত্তি করেছেন তিনি। রায়ের ওই পরিচ্ছদ বা ‘ডিসেন্ট নোট’ লিখেছেন পেশাওয়ার হাই কোর্টের বিচারপতি ওয়াকার আহমেদ শেঠ। উল্লেখ্য, বিশেষ আদালতের তিন সদস্যের বেঞ্চের শীর্ষে ছিলেন বিচারপতি শেঠ। ওই পরিচ্ছদে বলা হয়েছে, মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ার আগেই মৃত্যু হলে, পারভেজ মোশারফের দেহ তিনদিন ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রাখা হবে।

উল্লেখ্য, ১৯৯৯ সালে থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত পাকিস্তানে ক্ষমতায় ছিলেন মোশারফ। কার্গিল যুদ্ধে হারের পর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের উপর দায় চাপিয়ে ক্ষমতা দখল করেন তিনি। তার আমলেই আজাদ কাশ্মীরে ভারত বিরোধী কার্যকলাপ তুঙ্গে পৌঁছায়। ২০০১ সালে ৯/১১ হামলার পর মোশারফের নেতৃত্বে আফগানিস্তানে মার্কিন লড়াইয়ে যোগ দেয় পাকিস্তান। তাৎপর্যপূর্ণভাবে, মোশারফের আমলে বেশ মজবুত হয় পাক অর্থনীতি। ২০০২ সালে প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হলেও প্রতিশ্রুতি মতো সেনাপ্রধানের পদ ছাড়তে অস্বীকার করেন তিনি। ২০০৭ সালে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের হওয়ায় সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতিকে বরখাস্ত করেন তিনি। তারপর থেকেই প্রাক্তন সেনাপ্রধানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের হাওয়া বইতে শুরু করে। বাধ্য হয়ে ক্ষমতা ছাড়তে হয় তাকে। সূত্র: আল-জাজিরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন