Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৯ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

ভুল চিকিৎসায় স্কুল শিক্ষিকা মৃত্যুর ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ডা. ডিউকসহ ৩ চিকিৎসক কারাগারে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১ জানুয়ারি, ২০২০, ৫:১৮ পিএম

ভুল চিকিৎসায় স্কুল শিক্ষিকার মৃত্যুর অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সমালোচিত চিকিৎসক ডিউক চৌধুরীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। গতকাল বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টায় ডিউকসহ অন্য দুই চিকিৎসক ও মামলার আসামি ডা. অরুনেশ্বর পাল অভি ও ডা. শাহাদাত হোসেন রাসেলের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ সফিউল আজম।

এরআগে হাইকোর্ট থেকে নেয়া চার সপ্তাহের জামিন শেষে গত ১৮ ডিসেম্বর জেলা ও দাযরা জজ আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন ডা. ডিউক, ডা. অভি ও ডা. রাসেল। তখন অবকাশকালীন বিচারক মো. হাসানুল ইসলাম মামলাটি অধিকতর শুনানীর জন্য আগামী ১ জানুয়ারী ধার্য্য করেন।
গতকাল সকালে ওই তিন চিকিৎসক আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন। দুই দফায় শুনানী শেষে বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে তিনজনকেই কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাত জানান, মামলার তিন আসামি হাইকোর্টের নির্দেশ মোতাবেক আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করেন। পরে অবকাশকালীন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক জামিন না দিয়ে মামলার অধিকতর শুনানীর জন্য পরবর্তী দিন ধার্য্য করেন। বুধবার অধিকতর শুনানী শেষ বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আসামি পক্ষের আইনজীবী শাহ পরান বলেন, আমরা ন্যায় বিচার পাইনি। আমরা উচ্চ আদালতে যাবো।

উল্লেখ্য, ভুল চিকিৎসায় জেলা শহরের মুন্সেফপাড়ায় ক্রিসেন্ট কিন্ডার গার্টেনের সহকারী শিক্ষিকা নওশিন আহমেদ দিয়ার মৃত্যু অভিযোগে তার বাবা শিহাব আহমেদ গেন্দু ওই তিন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে গত ১৩ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলা সূত্রে জানা গেছে, স্কুল শিক্ষিকা নওশিন আহমেদ দিয়া গত ৩০অক্টোবর প্রসব বেদনা নিয়ে শহরের মুন্সেফপাড়ায় ডা. ডিউক চৌধুরীর মালিকানাধীন খ্রীস্টিয়ান মেমোরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি হন। দিয়া অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে আগাম একটি কন্যা সন্তান ভূমিষ্ঠ হয়। কিন্তু সুস্থ্য হওয়ার আগেই তাকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। পরবর্তীতে ৪ নভেম্বর ভোরে ব্যথা শুরু হলে দিয়াকে আবারও খ্রীস্টিয়ান মেমোরিয়াল হাসপাতালে নেয়া হয়। তখন ডিউক চৌধুরী, অরুনেশ্বর পাল অভি ও মো. শাহাদাত হোসেন রাসেল ‘ভুল ইনজেকশন এবং ওষুধ’ প্রয়োগ করার পর দিয়া অজ্ঞান হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে তার মৃত্যু হলেও তার মুখে অক্সিজেন মাস্ক লাগিয়ে ওইদিন দুপুর একটার দিকে দ্রুত তাকে ঢাকা নিয়ে যেতে বলেন। ওই দিন বিকেল সাড়ে ৪টায় ঢাকার ল্যাব এইড হাসপাতালে পৌঁছানোর পর চিকিৎসকরা কয়েক ঘণ্টা আগেই দিয়ার মৃত্যু হয় বলে জানান।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কারাগার

২৯ জানুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ