Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

স্বপ্ন পূরণের মঞ্চে রহমতগঞ্জ-বসুন্ধরা

জাহেদ খোকন | প্রকাশের সময় : ৫ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

ঘরোয়া ফুটবলের মৌসুম সূচক টুর্নামেন্ট টিভিএস ফেডারেশন কাপে স্বপ্ন পূরণের ফাইনালে আজ মুখোমুখি হচ্ছে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটি ও বসুন্ধরা কিংস। বিকেল ৪টায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শুরু হবে ম্যাচটি। এ ম্যাচ জিতে দু’দলই চাইবে নিজেদের স্বপ্নপূরণ করতে। তবে রহমতগঞ্জের লক্ষ্য থাকবে ইতিহাস গড়া। কারণ ১৯৩৩ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে স্বগৌরবে ঢাকার ফুটবলে নিয়মিত অংশ নিলেও এখন পর্যন্ত লিগ বা অন্য কোন টুর্নামেন্টের ট্রফি জিততে পারেনি রহমতগঞ্জ। এবারের ফেডারেশন কাপে চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেই আক্ষেপ ঘোচাতে চাইবে তারা। ঢাকার ফুটবলে জায়ান্ট কিলার খ্যাত রহমতগঞ্জ ফেডারেশন কাপের ৩৯ বছরের ইতিহাসে কখনো ফাইনাল খেলতে পারেনি। এবারই প্রথম ফাইনালে খেলছে দলটি। তাই তো ম্যাচ জিতে ইতিহাস গড়ার লক্ষ্য তাদের। প্রতিপক্ষ কঠিন হলেও রহমতগঞ্জের কোচ সৈয়দ গোলাম জিলানী জয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে চান। তার কথায়,‘আল্লাহ্র কাছে শুকরিয়া। আমার কোচিংয়ে রহমতগঞ্জ এই প্রথম কোন টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠেছে। আমার স্বপ্ন ছিল এই আসরের সেমিতে সরাসরি জিতেই ফাইনালে ওঠা। কেননা গ্রুপ পর্বে আমরা দুই ম্যাচেই ড্র করেছি। শেষ আটে জিতেছি টাইব্রেকারে। সেই অর্থে এ আসরে আমাদের কোন জয়ই ছিল না। বলা যায় সেমিতে মোহামেডানের বিপক্ষেই প্রথম জয় ছিল আমাদের। ফাইনালে খেলতে আমরা প্রস্তুত আছি। আমাদের আসলে হারনোর কিছু নেই, তবে পাওয়ার অনেক কিছুই আছে।’

অন্যদিকে গেল মৌসুমে প্রথমবার ফেডারেশন কাপে অংশ নিয়ে ফাইনালে খেললেও শিরোপা জেতা হয়নি বসুন্ধরার। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে ঢাকা আবাহনীর কাছে ৩-১ গোলে হেরে অভিষেক আসরের সোনালী ট্রফি হাতছাড়া হয় তাদের। যদিও পরে লিগ শিরোপা জিতে নিজেদের যোগ্যতার প্রমাণ দেয় বসুন্ধরা। তবে ফেডারেশন কাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার আক্ষেপ রয়ে গেছে দলটির। টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ঢাকা আবাহনী এবার কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিলে ফেডারেশন কাপ শিরোপার অন্যতম দাবিদার হিসেবে ধরা হচ্ছে বসুন্ধরাকে। প্রতিপক্ষ অপেক্ষাকৃত কম শক্তির হওয়ায় এবার শিরোপা জয়ের সম্ভাবনা উকি দিচ্ছে ক্লাবটির সামনে। যে কারণে বসুন্ধরার স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রোজনের ভাবনাও জয় ভিন্ন অন্য কিছুই নেই। তিনি বলেন,‘আগের ম্যাচে আমার ছেলেরা পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলেছে। তারা সুযোগ গুলো কাজে লাগিয়ে গোল আদায় করে নিয়েছে। ফাইনালেও এ ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চাই। আমাদের লক্ষ্য ম্যাচ জিতে শিরোপা নিয়ে মাঠ ছাড়া।’

ঐতিহ্যবাহী দল হলেও কাগজে কলমে তেমন বড় দল নয় রহমতগঞ্জ। তবে এবার একের পর এক চমক দেখিয়ে ফেডারেশন কাপের ফাইনালে উঠে এসেছে দলটি। গ্রুপ পর্বে প্রথম ম্যাচে অপেক্ষাকৃত শক্তিশালী সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করে শুরু রহমতগঞ্জের। পরের ম্যাচে তারা আরেক শক্তিধর শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে সবাইকে চমকে দেয়। দুই ম্যাচে ২ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে শেষ আট নিশ্চিত করে তারা। কোয়ার্টার ফাইনালে বর্তমান ঢাকা আবাহনীর বিপক্ষে নজরকাড়া ফুটবল উপহার দিয়ে জয় ছিনিয়ে নেয় রহমতগঞ্জ। নির্ধারিত সময়ের খেলা ১-১ ব্যবধানে ড্র থাকলে টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে আবাহনীকে হারিয়ে শেষ চারে ওঠে রহমতগঞ্জ। আর সেমিফাইনালে আরেক ঐতিহ্যবাহী মোহামেডানকে ১-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট কাটে তারা। এখন তাদের চোখে স্বপ্ন শিরোপা জিতে নতুন ইতিহাস গড়ার। টুর্নামেন্টের বর্তমান রানার্সআপ বসুন্ধরা কিংসও অপেক্ষা করছে গত আসরের ব্যর্থতা ঘোচাতে। ফেডারেশন কাপের প্রথম শিরোপা জিততে মরিয়া দলটি। ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয়ে দিয়ে এবারের আসর শুরু করলেও দ্বিতীয় ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে ২-০ গোলে হেরে যায় বসুন্ধরা কিংস। শেষ আটে মুক্তিযোদ্ধার মতো দলের বিপক্ষে কঠিন লড়াই করতে হয়েছে তাদেরকে। নির্ধারিত সময়ে ১-১ ব্যবধানের ড্র থাকা ম্যাচটি শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকারে ৪-১ গোলে জিতে সেমিফাইনালে ওঠে বসুন্ধরা। আর শেষ চারে নবাগত বাংলাদেশ পুলিশকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালে জায়গা পায় জায়ান্টরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন