Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৮ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৬ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

উটগুলো হত্যা না করে দান করে দিন : অস্ট্রেলিয়াকে এরদোগান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ জানুয়ারি, ২০২০, ৩:০২ পিএম

অতিরিক্ত পানি ও খাদ্য সাবাড় করার কারণে দক্ষিণাঞ্চলের ১০ হাজারেরও বেশি উটকে গুলি করে মেরে ফেলার কাজ শুরু করেছে অস্ট্রেলিয়ার। ওই হত্যাযজ্ঞের প্রথমদিনে বৃহস্পতিবার দেড় হাজার উটকে প্রশিক্ষিত স্নাইপার দিয়ে আকাশ থেকে (হেলিকপ্টার থেকে) গুলি করে মারা হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়াকে এই ১০ হাজার উট মেরে ফেলার পরিবর্তে ইসলামি রীতিতে জবাই করে তা দান করার আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপের দেশ তুরস্কের সরকারি মানবিক সহযোগিতা সংস্থা।

অস্ট্রেলিয়ার দক্ষিণাঞ্চলের আনানজু পিতজানৎজাতজারা ইয়ানকুনিৎজাতজারা ল্যান্ডস (এওয়াইপি) খুবই খরাপ্রবণ এলাকা। যে কারণে এ অঞ্চলে পানির খুব সংকট। এখানকার বন্য উটগুলো খুব বেশি করে পানি খেয়ে নিচ্ছে। ফলে স্থানীয়দের জন্য থাকছে না পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি।
সে কারণে বিশ্ব উষ্ণায়নের অজুহাতে এ অঞ্চলের অন্তত ১০ হাজার উট হত্যার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। হেলিকপ্টার থেকে বন্য উটগুলোকে গুলি করে মারা হবে বলে জানা যায়। অস্ট্রেলিয়াকে এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার আহবান জানিয়েছে তুরস্ক।

ফিলিস্তিনভিত্তিক গণমাধ্যম গাজা আল-আনের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, তুরস্কের সরকারি মানবিক সহযোগিতা সংস্থা (আইএইচএইচ)এর সহকারি পরিচালক সিরকান নার্গিস ১০ হাজার উট গুলি করে না মেরে সেগুলোকে ইসলামি রীতি অনুযায়ী জবাই করে বিশ্বের দরিদ্র ও প্রয়োজনগ্রস্ত মানুষদের মাঝে বিতরণের আহবান জানিয়েছেন।
তুরস্কের আইএইচএইচ সংস্থাটি এ মর্মে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে যে, অস্ট্রেলিয়া যেন তাদের এই সিদ্ধান্ত থেকে ফিরে আসে। তারা এ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে বলেও জানায় সংস্থাটি।

অস্ট্রেলিয়ার ১০ হাজার উট না মেরে তা জবাই করে প্রয়োজনগ্রস্ত মানুষকে দান করার কাজে সহযোগিতা করলে নিঃসন্দেহে দেশটি বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হবে।
উল্লেখ্য যে, অস্ট্রেলিয়ায় গত সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে দাবানল। সম্প্রতি এ দাবানল ভয়াবহ আকার ধারণ করেছেন। দাবানলের আগুনের তীব্রতা কমার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। আগুনের উত্তাপে পশু-পাখীসহ নানান প্রজাতির প্রাণী ও সরিসৃপ মারা যাচ্ছে। এ পর্যন্ত বিভিন্ন প্রজাতির অন্তত ৫০ কোটি প্রাণী মারা গেছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে৷
শুধু বন্য প্রাণীই নয়, দাবানল লোকালয়েও ছড়িয়ে পড়ছে। এখন পর্যন্ত প্রায় ২শ’ ঘরবাড়ি পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।



 

Show all comments
  • rejahafiz ১১ জানুয়ারি, ২০২০, ৪:৩৬ পিএম says : 0
    আল্লাহর গজব থেকে তারা কি বাঁচতে চায় না৷ গজবের মধ্যযুগীয় অপরাধে লিপ্ত --
    Total Reply(0) Reply
  • Arif ur rahman ১২ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:৩০ এএম says : 0
    আশা করি তুরুষ্কের এই কথাটি অস্ট্রেলিয়া সরকার গ্রহন করবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Arif ur rahman ১২ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:৩০ এএম says : 0
    আশা করি তুরুষ্কের এই কথাটি অস্ট্রেলিয়া সরকার গ্রহন করবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Himel ১৩ জানুয়ারি, ২০২০, ১:৫৬ এএম says : 0
    এদের মানবিকতা আজ বিবর্জিত আবর্জনার স্তুপে পরিনত হয়েছে।প্রকৃতির সাথে লড়াই করে কেউ বিজয়ী হয়নি বরং প্রকৃতির প্রতিকূলতা মেনে নিয়ে অবস্থার বিচারে সেসব উট জবাই করে প্রয়োজনে রপ্তানি করা হউক।তাতেও আল্লাহ প্রদত্ত সম্পদের উত্তম ব্যাবহার হবে,বেচে যাবে অনেক পাপ থেকে।
    Total Reply(0) Reply
  • tarik ১৪ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:২৯ পিএম says : 0
    আশা করি তুরুষ্কের এই কথাটি অস্ট্রেলিয়া সরকার গ্রহন করবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Md. Humyun Kabir ১৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১০:১৫ এএম says : 0
    Please give the 10 thousands camels in palestine.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তুরস্ক

৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ