Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭, ২৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

দেশে দেশে মাহে রমজান

প্রকাশের সময় : ২৯ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

আমেরিকার ইসলামিক সেন্টারে আনাগোনা বাড়ে রমজানে
ইনকিলাব ডেস্ক : আমেরিকার মুসলিমদের জন্য রমজানের সময়টা অন্যান্য সকল জায়গার মুসলিমদের মতোই। এই সময়টা হল রোজা রেখে ও ব্যক্তিগত মননশীলতার চর্চার মাধ্যমে আল্লাহমুখী হওয়ার সময়। এ সময়ে নামাজ, ইবাদত ও দান বৃদ্ধি পায়। বেশিরভাগ ইসলামিক সেন্টার সব সময় খোলা থাকে, যাতে যে কেউ এসব জায়গায় রোজার মাসে এসে ইবাদত করতে পারে। অনেক সময় মসজিদে মসজিদে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়, যা ধর্মীয় বিশ্বাসকে উজ্জীবিত করতে সাহায্য করে।
ইসলামিক সেন্টারগুলোতে মানুষের আসা-যাওয়া বেড়ে যায়। সম্প্রতি মুসলিম হওয়া মানুষদেরকে তাদের পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা দেখতে আসেন, সহকর্মীরা বন্ধুদের সাথে খাবার ভাগাভাগি করে খান এবং বিভিন্ন ইউনিভার্সিটির সাথে সাথে স্কুল, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে লোকজনকে এই মাসের বিশেষ খাবার ও আধ্যাত্মিক আশীর্বাদ নেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়। অনেক সময়, রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক নেতারা এসব সেন্টারে বেড়াতে আসেন এবং সমাজে মুসলিমদের গুরুত্বপূর্ণ অবদানকে স্মরণ করেন।
বেশিরভাগ মসজিদই প্রতিদিন ইফতার সরবরাহ করে, যা সন্ধ্যায় রোজা ভাঙার সময়কার খাবার। মেন্যুতে আপনি সবরকম খাবারই পাবেন, পুরোদস্তুর আমেরিকান খাবারের পাশাপাশি সাউথইস্ট এশিয়া, আরব দেশসমূহ, আফ্রিকা বা ইউরোপ সব জায়গার খাবার থেকে আপনি বেছে নিতে পারবেন। এটি যেন ভোজনরসিকদের জন্য স্বর্গ। রাতে অতিরিক্ত নামাজ আদায় করা হয়, সাধারণত এই নামাজ একজন দক্ষ কুরআন তিলাওয়াতকারী পরিচালনা করেন, এই ধর্মীয় সম্প্রদায় এই সময়ে আধ্যাত্মিকতার চূড়ান্তে পৌঁছে, যা এই আশীর্বাদপুষ্ট মাসের একটি অনন্য বৈশিষ্ট্য।
আমেরিকাতে রমজান এক দায়িত্ববোধের জন্ম দেয় যার সাথে যুক্ত হয় নিজের সম্প্রদায়ের প্রতি সম্মান ও গর্ব। এখানে রমজান অনন্য, ঠিক যেমন এটি অন্যান্য দেশগুলোতেও অনন্য, এটি এমন এক সময় যখন পেট থাকে শূন্য অথচ হৃদয় থাকে পরিপূর্ণ। সূত্র : শেয়ার আমেরিকা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: দেশে দেশে মাহে রমজান
আরও পড়ুন