Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

ঘটা করে বিদায়ের প্রয়োজন দেখেন না মাশরাফি

‘বিসিবি চাইলে’ অধিনায়কত্বও ছাড়বেন

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৪ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম

নিজ থেকেই মাশরাফি বিন মুর্তজা কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকতে চান না- সেটি আগের দিনই সাংবাদিকদের জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। তবে কি অবসর ভাবনা পেয়ে বসেছে দেশসেরা অধিনায়ককেও! গত বিশ্বকাপের আগে থেকেই জোর গুঞ্জন ছিল বিশ্বকাপ খেলেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছাড়বেন দেশের সফলতম অধিনায়ক। চোট নিয়ে বিশ্বকাপে গিয়ে মাশরাফি ছিলেন বিবর্ণ। ৮ ম্যাচে পেয়েছিলেন কেবল ১ উইকেট। দলও প্রত্যাশাপূরণ করতে না পারায় মাশরাফির অবসর নিয়ে আলাপ চড়া হয়। কিন্তু নিজের অবসর নিয়ে বরাবরই নিশ্চুপ থেকেছেন মাশরাফি।

মাশরাফিকে কেন্দ্রীয় চুক্তিতে না রাখার সিদ্ধান্ত একপ্রকার চ‚ড়ান্ত। কিন্তু এখনো তিনি কাগজ-কলমে বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক। চুক্তিতে না থাকা একজন খেলোয়াড়ের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিয়মিত অধিনায়কত্ব করা কঠিনই। এমন দৃষ্টান্ত বিশ্বক্রিকেটেও খুব একটা নেই। অধিনায়কত্বের বিষয়টি মাশরাফি বিসিবির ওপর ছেড়ে দিচ্ছেন, ‘বিসিবি থেকে যদি এখনই ছেড়ে দিতে বলে, তাহলে এখনই ছেড়ে দেব। সমস্যা নেই।’ বিসিবি বললে ছাড়বেন, কিন্তু নিজের সিদ্ধান্ত নিশ্চয়ই আছে। মাশরাফি অবশ্য সেটি বলতে চাইলেন না, ‘আমার সিদ্ধান্ত আমার কাছে থাক।’

কেন বিসিবি সভাপতিকে চুক্তিতে না থাকার কথা বলেছেন, সেটি নাজমুল কিছুটা বলেছেন। গতকাল মাশরাফি জানালেন, বিসিবি চাইলে তিনি ওয়ানডে অধিনায়কত্বও ছাড়তে রাজি। বিপিএলের ম্যাচ-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি আরেকটু ব্যাখ্যা দিলেন, ‘নতুন কাউকে সুযোগ দিতেই বলেছি। তিন বছর পর বিশ্বকাপ। যে আসবে সে হয়তো ভাববে আমি কেন্দ্রীয় চুক্তিতে আছি, তার দায়িত্ব বাড়বে। তার খেলার ইচ্ছা বাড়বে। আমার মতে নতুন কাউকে সুযোগ দেওয়াই ভালো।’

তবে তার আগে ক্যারিয়ারজুড়েই নিবেদন দিয়ে গেছেন মাশরাফি। পেসার, মারদাঙ্গা ব্যাটসম্যান কিংবা অধিনায়কত্ব- হাঁটুতে আটটি অস্ত্রপচার নিয়েও সেরাটা দিয়ে গেছেন যে কোনো অবস্থাতেও। এমন একজনের বিদায় নিয়ে তাই বিসিবি একটু বাড়তি ভাবনাই ভেবে রাখছে। আগের দিনই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, ‘আমরা চাইব ওকে (মাশরাফি) খুব ভালো করে বিদায় দিতে। এমনভাবে বিদায় দেওয়া হবে যেটা ওর আগে বাংলাদেশের কেউ পায়নি, পরেও কেউ পাবে না। এখন সে যদি চায় হবে, না হলে তো কিছু করার নেই।’

বিসিবির এই জাঁকাল বিদায় মাশরাফি নিতে চান না। তবে বিসিবিকে একটা ধন্যবাদ দিয়ে রাখলেন ঢাকা প্লাটুন অধিনায়ক, ‘কালও ক্রিকেট বোর্ডের চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটার ছিলাম। আজ থেকে আর নেই। সব সময় ভাবি ক্রিকেট বোর্ড খেলোয়াড়দের অভিভাবক। তাদের বিপক্ষে যাওয়াটা কখনই গর্বের কিছু মনে করিনি। এবং কখনো মনেও করি না। ক্রিকেট বোর্ডকে আন্তরিক ধন্যবাদ যে তারা চেয়েছে আমার বিদায়ী ম্যাচ আয়োজন বা অবসরের বিষয়ে চিন্তা করেছে। পরিষ্কার বার্তা দিচ্ছি, আমার ইচ্ছা নেই। তবে যদি কখনো সুযোগ আসে তাহলে দেখা যাবে। আবার কার কাছ থেকে বিদায় নেব সেটাও কথা। আমার কোনো ইচ্ছে নাই।’

জাতীয় দলে সুযোগ হলে হলো, না হলে নাই। কিন্তু ঘরোয়া ক্রিকেটটা চালিয়ে যেতে চান মাশরাফি। প্রস্তুতি নিচ্ছেন ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের নতুন আসরে খেলার। বিপিএলের পরের আসরের প্রসঙ্গে উঠতেই জানালেন, দল পেলে অবশ্যই খেলবেন।

চার শিরোপা জিতে বিপিএলের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি। ৮১ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় সফলতম পেসার। ঢাকা প্লাটুনের হয়ে এবারের আসর খারাপ করেননি। ৪১ গড়ে নেন ৮ উইকেট। ওভার প্রতি রান দেন ৭.৬২ করে। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে এলিমিনেটর ম্যাচে হেরে এবারের আসর থেকে বিদায় নেয় ঢাকা। পরের আসরে কি দেখে যাবে মাশরাফিকে, ‘যদি দল পাই, ইনশা আল্লাহ। দেখি নিলামে দল পাই কি না।’

এবারের বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটে লম্বা সময় দল পাননি মাশরাফি। অবশেষে দেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে অষ্টম ধাপে তাকে দলে নেয় ঢাকা প্লাটুন। অনেক পরে দলে নিলেও অধিনায়ক হিসেবে অবশ্য তাকেই বেছে নেয় ঢাকা।

প্রথম বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটেও তিনি অনেকটা সময় ছিলেন উপেক্ষিত। পরে তৃতীয় রাউন্ডে তাকে নিয়েছিল ঢাকা গø্যাডিয়েটর্স। সেই দলকে শিরোপা জয়ে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তিনি, ‘ক্রিকেট খেলা চালিয়ে যেতে চাই, এটা আমি পরিষ্কার করেই বলেছি। আগের দিনও পরিষ্কার করে বলেছি যে, আমি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে খেলব। বিপিএল আছে, বিপিএলে খেলব। আমি এটা উপভোগ করছি।’

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মাশরাফি


আরও
আরও পড়ুন