Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

হার দিয়েই শুরু বাংলাদেশের!

জাহেদ খোকন | প্রকাশের সময় : ১৫ জানুয়ারি, ২০২০, ৮:২৪ পিএম | আপডেট : ৯:৩৩ পিএম, ১৫ জানুয়ারি, ২০২০

হার দিয়েই মুজিববর্ষের প্রথম ক্রীড়া আসর বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট শুরু করল বাংলাদেশ। বুধবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ফিলিস্তিন ২-০ গোলে স্বাগতিক বাংলাদেশকে হারিয়ে শুভ সূচনা করেছে। বিজয়ী দলের হয়ে ফরোয়ার্ড খালেদ সালেম ও লাইথ খারুব একটি করে গোল করেন।

আগের দিন বাংলাদেশ অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া বলেছিলেন, তারা জয় নিয়েই মাঠ ছাড়বেন। স্বাগতিক কোচ জেমি ডে’র আশা ছিল- ফিলিস্তিনের পয়েন্ট কেড়ে নিবে তার দল। কিন্তু স্বপ্ন বাস্তবে রূপ নেয়নি। জয় তো দূরের কথা, এক পয়েন্ট নিয়েও মাঠ ছাড়তে পারেনি লাল-সবুজরা। বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়নই শুধু নয় ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়েও বাংলাদেশের (১৮৭) চেয়ে অনেক এগিয়ে ফিলিস্তিন (১০৬)। স্বাগতিকদের সঙ্গে তাদের পার্থক্যটা কাল চোখে আঙ্গুল দিয়ে বুঝিয়ে দিল যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটি। ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সমান তালে খেলেই সহজ জয় তুলে নিলো ফিলিস্তিন।

মঙ্গলবার ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে এবং অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া দেশসেরা ফরোয়ার্ড নাবীব নেওয়াজ জীবনকে না পাওয়ার আফসোস করেছিলেন। অসুস্থতার কারণে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ থেকে ছিটকে পড়েছেন জীবন। কিন্তু তার সেই ৯ নম্বর জার্সি গায়ে ফিলিস্তিনের বিপক্ষে খেললেও মাঠ মাতাতে পারেননি মতিন মিয়া।

বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের রুখতে ৪-৪-২ ফরমেশনে খেলতে নামে বাংলাদেশ। কিন্তু কোচ জেমির সেই ফর্মূলা একেবারেই বিফলে গেছে। চারজন ডিফেন্ডার রায়হান হাসান, রহমত মিয়া, তপু বর্মন ও ইয়াসিন খানের রক্ষণবুহ্য বার বার ভেদ করেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। মাঝমাঠে অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া, মামুনুল ইসলাম মামুন, সাদ উদ্দিন ও সোহেল রানাও তেমন আটকে রাখতে পারেননি প্রতিপক্ষদের। ফরোয়ার্ডে মতিন মিয়া ও মোহাম্মদ ইব্রাহিম তো ছিলেন একেবারেই নিষ্প্রভ। জাতির জনকের নামে টুর্নামেন্টে জ্বলে উঠতে পারেননি বাংলাদেশের কোন ফুটবলারই। যার ফল এই হার। ম্যাচের শুরু থেকেই স্পষ্ট আধিপত্য ছিল ফিলিস্তিনের। তাই গোল পেতে বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি তাদের। ম্যাচের ২৯ মিনিটেই এগিয়ে যায় সফরকারীরা। কাউন্টার অ্যাটাক থেকে খালেদ সালেম স্বাগতিক গোলরক্ষক আশরাফুল রানাকে বোকা বানিয়ে তার পাশ দিয়েই আলতো টোকায় বল জালে ফেলেন (১-০)। জাতীয় দলের অন্যতম গোলরক্ষক শহিদুল ইসলাম সোহেল অসুস্থ থাকায় আশরাফুল রানাকে এ ম্যাচে সেরা একাদশে রাখেন কোচ জেমি। পিছিয়ে পড়ার পর মিনিট চারেকের মধ্যে গোলের দারুণ এক সুযোগ পায় বাংলাদেশ। এসময় রায়হান হাসানের থ্রো’র বলে বাঁদিকে দাঁড়ানো তপু হেড নেন। কিন্তু বল অল্পের জন্য জাল খুঁজে পায়নি। সাইডবার ঘেঁষে বাইরে চলে যায়। দ্বিতীয়ার্ধে যেন গোলক্ষুধা নিয়ে মাঠে নামে ফিলিস্তিন। ম্যাচের ৫৮ মিনিটে ফের গোল করে ব্যবধান বাড়ায় তারা। এবার গোলের নায়ক লাইথ খারুব। তিনি ডানপ্রান্ত দিয়ে সতীর্থের লম্বা পাস বুক দিয়ে রিসিভ করে বক্সের ভেতর থেকে ডানপায়ের শটে গোল করেন (২-০)। বাংলাদেশ ডিফেন্ডার ইয়াসিন বল ক্লিয়ার করতে পারতেন। কিন্তু তিনি হেড নিতে ব্যর্থ হওয়ায় বল পেয়ে যান খারুব। ব্যাস, সুযোগের স্বদব্যবহার করেন তিনি। ম্যাচের বাকি সময় আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে খেলা চললেও আর কোন গোল হয়নি। ফলে শেষ পর্যন্ত ২-০ ব্যবধানের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে ফিলিস্তিন। আগামী রোববার ‘এ’ গ্রæপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশ খেলবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ