Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০, ২৬ আষাঢ় ১৪২৭, ১৮ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

গড়াই নদীর ভাঙন হুমকির মুখে শহররক্ষা বাঁধ

কুষ্টিয়া থেকে স্টাফ রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ১৬ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

কুষ্টিয়ায় গড়াই নদী ভাঙ্গনে বিপন্নের মুখে আশ্রায়ন প্রকল্পসহ বিভিন্ন স্থাপনা ও জনপদ
এ যেন বিনা মেঘে বজ্রপাত। নদীতে পানি নেই। শুষ্ক মৌসুমে যতসামান্য পানি প্রবাহেই তীব্র ভাঙ্গনে বিপন্নের মুখে কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার হেলালপুর আশ্রায়ন প্রকল্পসহ জনপদ। পূর্ব থেকেই ঝুঁকিপূর্ন বিবেচনায় এখানে প্রতিরক্ষা গ্রোয়েনও করেছিলো পানি উন্নয়ন বোর্ড। সেটিও এখন বিপন্নের অপেক্ষায়। স্থানীয় ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, প্রতিবছর তীর সংলগ্ন এসকেবি ইটভাটার মাটি কাটার কারণে এ ভাঙ্গনের সৃষ্টি। সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, তীব্র ভাঙ্গন ঠেকাতে ইতোমধ্যে অস্থায়ী ভিত্তিতে বালির বস্তা ফেলা হচ্ছে। তবে আক্রান্ত স্পট রক্ষায় স্থায়ী প্রতিরক্ষা জরুরি মনে করছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। সে সাথে আক্রান্ত স্থান থেকে ইটভাটার মাটি উত্তোলন বন্ধেও উদ্যোগ নেবেন বলে জানায় প্রশাসন।

খোকসা উপজেলার হেলালপুর সরকারি আশ্রায়ন প্রকল্পের বাসিন্দা সুফিয়া খাতুন বলেন, শুষ্ক মৌসুমে আকস্মিক গড়াই নদীর পার ভেঙ্গে আমরা এখন চরম বিপন্নের মুখে। এখানে ৩৫ পরিবারের সবাই সহায় সম্বলহীন উদ্বাস্তু। প্রতিবছর নদী ও তীর থেকে ইটভাটার মাটি উত্তোলনের কারণে নীচু হয়ে যাওয়ায় পানি ঢুকে সৃষ্টি হয়েছে এ ভাঙ্গন। ভাঙ্গন বন্ধে স্থায়ী ব্যবস্থা না নিলে আমরা যে ভাসমান উদ্বাস্তু ছিলাম আবার তাই হবে সবার অবস্থা।

ঘটনাস্থলে জরুরি বালির বস্তা ডাম্পিং কাজ দেখভালের দায়িত্বে পানি উন্নয়ন বোর্ড কুষ্টিয়ার উপ-সহকারি প্রকৌশলী (এসও) রফিকুল ইসলাম বলেন, গত ৪ জানুয়ারি শুরু হওয়া ভাঙ্গনে এক সপ্তাহে প্রায় ৫০০ মিটার এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একদিকে নদীর মাঝখানে চর জেগে পানি প্রবাহে বাধাগ্রস্ত হওয়ায় সেখান থেকে প্রবাহমুখের দিক পরিবর্তন, অন্যদিকে নদীতীর থেকে মাটি উত্তোলনের ফলে নীচু হয়ে যাওয়ায় পানি ঢুকে এ স্থানটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জায়গাটি পূর্ব থেকেই ঝুঁকিপূর্ণ ছিলো বলে এখানে একটা গ্রোয়েনও করা হয়েছিলো খোকসা উপজেলা শহর রক্ষায়। সেটাও এখন চরম ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে।

স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্ত ভুক্তভোগীদের অভিযোগ বিষয়ে এসকেবি ইটভাটার ব্যবস্থাপক গণেশ কুমার বলেন, জমি তাদের নিজস্ব মালিকানা সম্পত্তি, সেজন্য এখান থেকে মাটি কেটে উত্তোলন করি।

খোকসা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরীন কান্তা বলেন, গড়াই নদীর পার ভেঙ্গে আশ্রায়ন প্রকল্প, খোকসা শহর রক্ষাবাধসহ জনপদ চরম ঝুঁকির মুখে পড়ায় তাৎক্ষনিক ভাঙ্গন ঠেকানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে এবং বালির বস্তা ফেলা হচ্ছে। সেখান থেকে যাতে আর কেউ অপরিকল্পিত মাটি খনন বা উত্তোলন করতে না পারে সে বিষয়েও পদক্ষেপ নেয়া হবে।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী পিযুষ কৃষ্ণ কুন্ডু বলেন, গড়াই নদীর বাম তীরবর্তী খোকসা উপজেলার হেলালপুর আশ্রায়ন প্রকল্প, শহর রক্ষাবাধসহ গোটা এলাকার বিভিন্ন স্থাপনা ও জনপদ চরম ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। এ মুহুর্তে বালির বস্তা ফেলে তাৎক্ষনিক ভাঙ্গন মোকাবিলার চেষ্টা করা হচ্ছে তবে আগামী বর্ষা মৌসুমে এ জায়গা রক্ষায় স্থায়ী ব্যবস্থা গ্রহনের পরিকল্পনা করা হচ্ছে। নচেৎ নদীর মরফোলজিক্যাল চেঞ্জের ফলে ওইখানে নদীর টার্ণিং পয়েন্ট জনপদে ঢুকে পড়তে পারে।

 



 

Show all comments
  • ** হতদরিদ্র দীনমজুর কহে ** ১৬ জানুয়ারি, ২০২০, ১০:৫৩ এএম says : 0
    সরকারের উচিৎসকল উন্নায়নের পাশাপাশি নদী ভাংঙন রোধে কার্যকরী পদখ্যেপ নেওয়া।পটুয়াখালি জেলার বাউফল থানার ধুলিয়া তেতুঁলিয়া নদীর ভাংঙন রোধ ও এখন সমায়ের দাবী।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ