Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ০৪ রজব ১৪৪১ হিজরী

রাসেলের ব্যাটে ফাইনালে রাজশাহী

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৫ জানুয়ারি, ২০২০, ১০:৫৫ পিএম

ম্যাচটা একবার হেলে গিয়েছিল রাজশাহী রয়্যালসের দিকে। আরেকবার চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের দিকে। তবে শেষ হাসি হাসলো রাজশাহীই। শেষ ১২ বলে দরকার ছিল ৩১ রান। উইকেট নেই আটটি। কিন্তু ব্যাটিংয়ে ছিলেন আন্দ্রে রাসেল। তার বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে ৪ বল হাতে রেখেই শেষ করল তার দল। তিনি ২২ বলে সাতটি ছয় ও দুটি চারে অপরাজিত ছিলেন ৫৪ রানে। আগামীকাল খুলনা টাইগার্সেরর বিপক্ষে শিরোপার লড়াইয়ে মাঠে নামবে রাজশাহী।
গতকাল দিনের শুরতেই মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে টসে জিতে প্রথমে চট্টগ্রামকে ব্যাটিংযে পাঠায় শোয়েব মালিকের দল। প্রথম ওভারে মোহাম্মদ ইরফানের মেডেন ওভার দিয়ে শুরু। তারপর এই বাঁহাতি তুলে নিলেন জিয়াকে (৬)। তারপর ইনফর্ম ব্যাটসম্যান কায়েসও (৫) ফিরে গেলেন দ্রæত। কিন্তু একপাশ থেকে তান্ডব চালাতে থাকেন ক্রিস গেইল। আফিফের বলে আউট হওয়ার আগে ২৪ বলে ৬০ রানের এক বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন তিনি। অপরপ্রান্তে মাহমুদউল্লাহও ১৮ বলে করেন ৩৩ রান। মাত্র ১০ ওভারে একশ ছাড়ালেও শেষে কোন ব্যাটসম্যান জ্বলে না ওঠায় ১৬৪ রানেই থেমে যায় চট্টগ্রামের ইনিংস। রাজশাহীর বোলারদের মধ্যে মোহাম্মদ ইরফান ও মোহাম্মদ নওয়াজ দু’টি করে উইকেট নেন। এছাড়া আন্দ্রে রাসেল, আফিফ ও কাপালি নেন একটি করে উইকেট।
রান তাড়ায় শুরুতেই হোঁচট খায় রাজশাহী। দলীয় ৮ রানে রুবেলের বলে ক্যাচ আউটে ফেরেন আফিফ (২)। ঠিক পরের ওভারেই রান আউটে আরেক ওপেনার লিটনও (৬) ফিরে যান। তখন এই অবস্থায় এসে পারলেন না কাপালিও (৯)। এরপর ইরফান শুক্কুর ৪২ বলে ৪৫ ও মালিক ২২ বলে ১৪ রান করে ফেরেন। তখন শেষ ভরসা হয়ে আসেন আন্দ্রে রাসেল। তাকে যোগ্য সঙ্গ দিতে থাকেন নওয়াজ। তবে ৫ বলে ১৪ রানে ফিরতে হয় তাকে। এরপর লড়াই একাই চালিয়ে যান রাসেল। তার ব্যাটে চড়েই ফাইনালে পৌঁছে তার দল। রুবেল ও ইমরিত দুটি, এছাড়া রানা, মাহমুদউল্লাহ ও জিয়া নেন একটি করে উইকেট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিপিএল

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
১৮ জানুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ