Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৯ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

বিশ্বকাপ দিয়েই ফিরবেন ভিলিয়ার্স!

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম

সুযোগ মিললে বিশ্বকাপ খেলতে প্রস্তুত জানিয়েছেন মিস্টার ৩৬০ ডিগ্রী এবি ডি ভিলিয়ার্স। চলতি বছর অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দিয়েই আবারো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার সম্ভবনা রয়েছে তার। দক্ষিণ আফ্রিকার কোচ হয়ে আসা মার্ক বাউচার আর অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি বেশ কিছুদিন ধরেই তার ফেরার কথা বলে আসছিল। এবার নিজেই জানান দিলেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দিয়ে ফেরার ইচ্ছার কথা।

২০১৮ সালের মে মাসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছিলেন ভিলিয়ার্স। এরপর দলের করুণ অবস্থা দেখে বিশ্বকাপের আগেই ফিরতে চেয়েছিলেন প্রোটিয়াদের হয়ে। তবে সে সময় আর ফেরা হয়নি দলে। তা নিয়ে কম জল ঘোলা হয়নি। তবে সাবেক প্রোটিয়া উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মার্ক বাউচার প্রধান কোচের দায়িত্ব পাওয়ার পর দলকে যেন পুরোটাই ঢেলে সাজাচ্ছেন। আর তাই তো আবারো জাতীয় দলের ফেরার রাস্তা প্রশস্ত হচ্ছে ভিলিয়ার্সের।

এ ব্যাপারে ভিলিয়ার্স জানিয়েছেন, ‘টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের এখনো অনেক সময় বাকী আছে।এর মধ্যে যেকোনো কিছু ঘটে যেতে পারে, আবার সামনে আইপিএলও আছে আমাকে সেখানেও ভালো পারফর্ম করতে হবে। সেখানে ভালো পারফর্ম করতে পারলেই কেবল জাতীয় দলে ফেরার কথা ভেবে দেখব।‘

সাবেক প্রোটিয়া কিংবদন্তি গ্র্যায়েম স্মিথ দেশটির ক্রিকেট বোর্ডের ডিরেক্টরের দায়িত্ব গ্রহণ করার পর সব বিভাগকেই ঢেলে সাজিয়েছেন। প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন মার্ক বাউচারকে, বোলিং কোচ হিসেবে শার্ল ল্যাঙ্গাভেল্টকে বাংলাদেশ থেকে উড়িয়ে নিয়ে গেছেন আর ব্যাটিং পরামর্শক হিসেবে দায়িত্ব দিয়েছেন আর এক কিংবদন্তি জ্যাক কালিসকে। সব মিলিয়ে এ যেন এক তারার মেলা।

কোচ এবং অধিনায়কের সঙ্গে ইতোমধ্যেই নিজের ফেরার বিষয়ে কথা বলেছেন ভিলিয়ার্স। তিনি বলেন, ‘আমি বাউচার, স্মিথ আর ফাফের সঙ্গে আমার ফেরার বিষয়ে কথা বলেছি। ওরা সবাই চাইছে আমি যেন আবারো ফিরে আসি। খেলতে পারলে আমিই সব থেকে বেশি খুশি হবো। তবে আবারো ফিরতে হলে আমাকে ভালো পারফর্ম করেই ফিরতে হবে।‘

বাউচার, স্মিথ, ল্যাঙ্গাভেল্ট আর কালিস এই চারের সঙ্গেই জাতীয় দলে দীর্ঘদিন খেলেছেন ভিলিয়ার্স। এক সময়ের সতীর্থরা এখন জাতীয় দলের হর্তাকর্তার দায়িত্বে আছেন। ধারনা করা হচ্ছে তাদের কারণেই আবারো জাতীয় দলে ফেরাটা সহজ হয়ে যাচ্ছে ভিলিয়ার্সের। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘ওরা আমার এক সময়ের সতীর্থ, আমার বন্ধু। আমরা এক সঙ্গে ১০ বছরের বেশি সময় খেলেছি। আমাদের মধ্যে তাই বোঝাপড়াটাও বেশ ভালো। ওরা দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটের দায়িত্ব গ্রহণ করায় আমাদের ক্রিকেট আরো এগিয়ে যাবে। আর তাই তো আমিও ওদের সঙ্গে কাজ করতে চাই।‘

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিশ্বকাপ

৩ জুলাই, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন