Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭, ০৯ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

আন্দোলনের অংশ হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছি -নীলফামারীতে মির্জা ফখরুল

নীলফামারী সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৭ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:১৩ এএম | আপডেট : ১২:১৮ এএম, ১৭ জানুয়ারি, ২০২০

বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিএনপি উদারপস্থী দল তারা গণতন্ত্রকে বিশ্বাস করে। বিএনপি কোন দাঙ্গাবাজ, উগ্রবাদ বা বিপ্লবী রাজনৈতিক দল নয়। আমাদের হাতে পিস্তল ও বন্দুক নেই জনগণকে সংগঠিত করে নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় যাওয়ার চেষ্টা করতে হবে। ওটাই আমাদের কাজ। এজন্যই আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি।

গতকাল বৃহস্পতিবার নীলফামারী জেলা বিএনপি’র দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। শিল্পকলা একাডেমীতে জেলা বিএনপির আহবায়ক আলমগীর সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিেেসবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল খালেক ও জাহাঙ্গীর আলম। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক এমপি আখতারুজামান মিয়া, নীলফামারী জেলা বিএনপির সদস্য সচিব জহুলল আলম, সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি রাশেদুল ইসলাম ,পৌর বিএনপির সভাপতি মাহাবুব রহমান সহ জেলা ও উপজেলা বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

তিনি বলেন, এই ফ্যাসিবাদী সরকার সরকার নির্বাচন কমিশনকে নিয়ন্ত্রণ করছে। পুলিশ, র‌্যাবসহ অন্যান্য বাহিনী দিয়ে নির্বাচনের ফলাফল তাদের পক্ষে নিয়ে যাওয়ার জন্য অতীতে করেছে বর্তমানেও সেই চেষ্টা করবে। তাহলে আমরা মুখ বুঝে বসে থাকব না আমরা নির্বাচনটা আন্দোলনের অংশ হিসেবে নিয়েছি। সিটি নির্বাচনে আমাদের প্রার্থীদের সাথে বিপুলসংখ্যক মানুষ মাঠে নামছে এই নামাটাইতো আমাদের বিজয়। যেখানে আমরা নামতে পারি না চলতে পারিনা, পুলিশ বাধা দেয়, নির্বাচনের মাধ্যমে আমরা বেরিয়ে আসছি। নেত্রীর মুক্তির কথা বলতে পারছি, ধানের শীষের বিজয়ের কথা বলতে পারছি। এটাই আমাদের বিজয়। এই বিজয়কে আমরা যদি আরো সুসংগঠিত করতে পারি তাহলে তাদেরকে পরাজিত করা সম্ভব হতেও পারে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের উদ্দেশে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমি সহজে তার প্রশ্নের উত্তর দেই না। এই জন্য দেই না যে আমি তার প্রশ্ন আমলেই নেই না। তিনি অনেক কথা বলেন যার সাথে রাজনীতিক ও বাস্তবতার কোন সম্পর্ক থাকে না। তিনি (ওবাইদুল কাদের) এখন তার ঘড়ি সমাচারে সাংঘাতিক ভাবে চিন্তিত আছেন। লা লাখ টাকার ঘড়ি তার হাতে আছে এ নিয়ে কথা হচ্ছে এনিয়ে তিনি বিব্রত অবস্থায় আছেন।

আওয়ামী লীগ নেতাদের প্রশ্ন করে ফখরুল বলেন, আপনারা কথায় কথায় মুক্তিযুদ্ধের কথা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলেন কিন্তু জনগণের ম্যাগনেট ছাড়া, জনগণের অধিকার কেড়ে নিয়ে, জনগণকে হত্যা করে অবৈধভাবে ক্ষমতা যেয়ে যে শাসন করছেন সেই শাসন মুক্তিযুদ্ধের শাসন নয় আপনারা আজকে মুক্তিযুদ্ধকে অপমান করছেন। আপনারা মুক্তিযদ্ধের সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা করছেন। তিনি বলেন যে সংবিধান তৈরী করা হয়েছিল সেই সংবিধান আওয়ামী লীগ লঙ্ঘন করেছেন এজন্য একদিন আপনাদের বিচারের কাঠগড়ায় দাড়াতে হবে।

তিনি আরো বলেন আওমামী লীগ আগে রিলিফ চুরি করত আজ তারা ব্যাংক চুরি করছে, শেয়ার বাজার চুরি করছে। হাজার হাজার টাকা ব্যাংক থেকে উধাও হয়ে যাচ্ছে। আজ লুট ছাড়া কিছু নেই। আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রকে আজ চোর রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। তিনি বলেন ২০১৮ সালের ৩০ডিসেম্বর নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও তারা নির্বাচন করেছে ২৯ তারিখে। নির্বাচন কমিশনকে তারা যা বলছে তাই করছে। র‌্যাব পুলিশ,প্রশাসন সব কিছুকে ব্যবহার করেছে। এমনকি বিচার বিভাগকে ছাড় দেননি। আজ বিচার বিভাগও স্বাধীন নেই। তারা জোর করে ক্ষমতায় রয়েছে।

আওয়ামী লীগের দুশাসন থেকে দেশকে রক্ষার জন্য নেতাকর্মীদের গ্রাম-গঞ্জে সর্বত্র দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান তিনি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু প্রাণ প্রিয় নেত্রীকে মুক্ত করতে বিএনপির নেতাকর্মীসহ সবাই রুকে দাড়াবার আহবান জানান।

 

 

 



 

Show all comments
  • Miah Muhammad Adel ১৭ জানুয়ারি, ২০২০, ৫:৫১ পিএম says : 0
    Albeit true!
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মির্জা ফখরুল


আরও
আরও পড়ুন