Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৯ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

‘লঙ্কাওয়াশ’ কি ভুলে গেলেন গুল

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০০ এএম

ঘরের মাঠে পাকিস্তান শক্তিশালী দল। এই কথায় সন্দেহ নেই। বহু নাটকীতার পর বাংলাদেশ দল যাচ্ছে পাকিস্তান সফরে। শুরুতে দুই টেস্ট ও তিন টি-টোয়েন্টি খেলার কথা থাকলেও এখন যোগ হয়েছে একটি ওয়ানডে। ঘরের মাঠে হতে যাওয়া সিরিজের তিন সংস্করণেই পাকিস্তানের জয় দেখছেন দেশটির পেসার উমর গুল। তবে বাংলাদেশ যে কঠিন প্রতিপক্ষ, সেই সতর্কবার্তাও দিয়ে রেখেছেন তিনি পাকিস্তানকে।

গত সপ্তাহে দুবাইয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে ঘরের মাঠের সিরিজ চ‚ড়ান্ত করে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। যদিও তিন সংস্করণের সিরিজ তিন ধাপে আয়োজন করবে তারা। শুরুতে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি খেলে চলে আসবে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ধাপে খেলবে একটি টেস্ট। আর তৃতীয় ও শেষ ধাপে দ্বিতীয় টেস্ট খেলার আগে মুখোমুখি হবে এক ম্যাচের ওয়ানডেতে।

২৪ জানুয়ারি লাহোরের টি-টোয়েন্টি দিয়ে শুরু হবে বাংলাদেশ-পাকিস্তান লড়াই। এই সিরিজের জন্য দওল ঘোষণা করেছে স্বাগতিকরা। অনেক সিনিয়র খেলোয়াড়কে বাদ দিয়ে নতুনদের সুযোগ দিয়েছেন প্রধান কোচ ও প্রধান নির্বাচক মিসবাহ-উল-হক। দলে নেই মোহাম্মদ আমির-ওয়াহাব রিয়াজদের মতো অভিজ্ঞ পেসার। এরপরও তাদের একসময়কার সতীর্থ গুলের বিশ্বাস, বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন সংস্করণেই জিতবে পাকিস্তান।

২০১৬ সালে জাতীয় দলের জার্সিতে সবশেষ ম্যাচ খেলা ৩৫ বছর বয়সী পেসার পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম পাকপ্যাশনডটনেট-এ দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘পাকিস্তান সব সংস্করণেই ভালো দল, তবে সীমিত ওভারে সাফল্য সবচেয়ে বেশি। বলা হয়ে থাকে, যে দলের দিন ভালো যায়, তারাই সবসময় জয়ের হাসি নিয়ে মাঠ ছাড়ে। বাংলাদেশ কাজটি অনেকবার করে দেখিয়েছে, স্বাভাবিকভাবেই তারা কঠিন প্রতিপক্ষ হতে যাচ্ছে পাকিস্তানের। তবে পাকিস্তান ঘরের মাঠে খেলবে বলে শক্তির জায়গাটা বেশি।’

তাহলে বাংলাদেশ-পাকিস্তান লড়াইয়ে কার জয়ের পাল্লা ভারি থাকছে? এই প্রশ্নে গুলের স্পষ্ট জবাব, ‘শক্তি-সামর্থ্যে পাকিস্তান এগিয়ে, তাছাড়া খেলবে ঘরের মাঠে। তাই পাকিস্তান যে বাংলাদেশের বিপক্ষে তিনটি সিরিজই জিতবে, এতে আমার কোনও সন্দেহ নেই।’

বাংলাদেশ পাকিস্তান সফরে আসতে রাজি হওয়ায় বিসিসিকে ধন্যবাদও দিয়েছেন এই পেসার, ‘বিসিবির পাকিস্তান সফর করাটা খুব ভালো ও বিচক্ষণ সিদ্ধান্ত। শ্রীলঙ্কা দলের প‚র্ণাঙ্গ সিরিজের সময় আমরা দেখছি পাকিস্তান এখন কতটা নিরাপদ। আমার বিশ্বাস এশিয়ার সব দেশ একে অন্যকে সমর্থন দিয়ে যাবে।’

বাংলাদেশের পাকিস্তান সফরের প্রথম ধাপে ২৪ থেকে ২৭ জানুয়ারি হবে তিনটি টি-টোয়েন্টি। সব ম্যাচই লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। দ্বিতীয় ধাপের সফরে হবে একটি টেস্ট। ৭ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি পাঁচ দিনের ম্যাচটি হবে রাওয়ালপিন্ডিতে। আর তৃতীয় ও শেষ ধাপের পাকিস্তান সফরের শুরুতে বাংলাদেশ ৩ এপ্রিল করাচিতে একটি ওয়ানডে খেলে সেখানেই দুই দিন পর নামবে দ্বিতীয় টেস্টে।

এখানে গুল হয়তো একটি তথ্য জানেন না। সাম্পতিক সময়ে পাকিস্তানের মাটিতে টি-টোয়েন্টি ও টেস্ট সিরিজ খেলে গেছে শ্রীলঙ্কা। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ঘরের মাঠে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দলটিকে হোয়াইটওয়াশ করেছিল লঙ্কানরা। আবার সেই দলে ছিলনা কোন সিনিয়র ক্রিকেটারও। সেবার প্রতিটি ম্যাচই হয়েছিল লাহোরে। এবারও কিন্তু সেই লাহোরেই। তাই গুলকে একটু অপেক্ষা করতে হবে সম্ভাব্য ফলের জন্য। ভুলে যাওয়া ‘লঙ্কাওয়াশ’ এবার বাংলাওয়াশেও রূপ নিতে পারে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন