Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬, ০১ রজব ১৪৪১ হিজরী

ভালুকায় শিক্ষকে মারধর উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

ময়মনসিংহ ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ২১ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

এক কলেজ শিক্ষককে মারধর করার ঘটনায় ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদসহ ১১জনকে আসামি করে বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে। গতকাল সোমবার দুপুরে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৮নং আমলী আদালতের বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে ভালুকা থানা পুলিশকে নথিভুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন।
এর আগে ময়মনসিংহ মহিলা ডিগ্রী কলেজের খন্ডকালীন প্রভাষক ও ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য মো. হুমায়ুন কবীর (৩০) বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। মামলার আইনজীবী অ্যাডভোকেট শাহজাহান কবীর সাজু জানান, বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে ভালুকা থানা পুলিশকে এফআইআর করার নির্দেশ দিয়েছেন।
আদালত সূত্র জানায়, মামলায় ৫/৬ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বাদি ৫ জন আসামির নাম উল্লেখ করেছেন। তারা হলেন- আবুল কালাম আজাদ (৪৫), ইমরান আলী(৩৩), নাজমুল (২৫), মানিক(২৮) ও আবির(২৫)। জানা যায়, আবুল কালাম আজাদ বিগত সময়ে বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। বিগত আমলে তিনি ভালুকা উপজেলা বিএনপির সদস্য এবং হবিবাড়ী ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করেছেন। তবে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকে আবুল কালাম আজাদ দল বদল করে আওয়ামী লীগের যোগদান করেন এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার আপন ভগ্নিপতি কাজীমুদ্দিন আহম্মেদ ধনু সংসদ সদস্য নির্বাচিত হবার পর উপজেলা কৃষক লীগের সহ-সভাপতি পদ পান উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বিগত ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে বীরমুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক তালুকদারকে তুচ্ছ ঘটনায় লাঞ্ছিত করেন মামলার ১নং আসামি ভালুকা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বীর মুক্তিযোদ্ধা নিজের ফেইসবুক আইডিতে একটি পোস্ট করেন। সরলমনা বাদী ওই পোস্টটি শেয়ার করেন। এতে আসামিরা ক্ষিপ্ত হয়ে গত ২৩ ডিসেম্বর রাতে উপজেলার সিডষ্টোর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বাদিকে পেয়ে ১নং আসামির নির্দেশে অন্য আসামিরা মারধর করে। এতে বাদির ডান কান মারাত্মক ভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়। মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে ভালুকা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ঘটনার বিষয়ে আমি কিছু জানি না। তবে মামলার অভিযোগ দেখে পদক্ষেপ নিব।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মামলা


আরও
আরও পড়ুন