Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৪ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

ভাঙন শুরু বিজেপি জোটে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০২ এএম

দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনের আগে বেশ বড় ধরনের ধাক্কা খেল ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। তাদের জোট ভেঙে বেরিয়ে গেছে দুই পুরনো সঙ্গী শিরোমণি অকালি দল ও জননায়ক জনতা পার্টি (জেজেপি)। বলা হচ্ছে, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) আর জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) ইস্যুতে মতের মিল না হওয়াতেই জোট ছেড়েছে অকালি দল। আর জেজেপি সরাসরি কিছু না বললেও ধারণা করা হচ্ছে, বিজেপির সঙ্গে আসন ভাগাভাগিতে সমঝোতা না হওয়াতেই বিজেপির সঙ্গ ছেড়েছে তারা। ভারতের গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিএএ নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই বিজেপির সঙ্গে মতবিরোধ চলছিল অকালি নেতাদের। দলটির অন্যতম নেতা মনজিন্দর সিং শীর্ষা বলেছেন, ‘সিএএ নিয়ে আমাদের অবস্থান পর্যালোচনা করতে বলা হয়েছিল, কিন্তু তাতে রাজি হইনি। আমাদের অবস্থান স্পষ্ট, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন থেকে মুসলিমদের বাদ দেয়া যাবে না। অকালি নেতারা সিএএ-এনআরসি নিয়ে দ্ব›েদ্বর কথা বললেও সংবাদমাধ্যমের দাবি, বিজেপির সঙ্গ ছাড়ার ম‚ল কারণ আসন সমঝোতা। ২০১৫ সালের দিল্লি নির্বাচনে তিনটি আসনে প্রার্থী দিয়েছিল অকালি। তবে তাদের প্রার্থীদের লড়তে হয়েছিল বিজেপির পদ্ম প্রতীক নিয়ে। কিন্তু, এবারের নির্বাচনে নিজেদের দলীয় প্রতীক দাঁড়িপাল্লাতেই লড়তে চান অকালি নেতারা। আর তা নিয়েই যত দ্ব›দ্ব। এদিকে, জননায়ক জনতা পার্টির সঙ্গেও আসন নিয়ে ঝামেলায় জড়িয়েছে বিজেপি। হরিয়ানা সীমান্তে অন্তত ১২টি আসন দাবি করেছিল জেজেপি। কিন্তু এতগুলো দিতে নারাজ গেরুয়া শিবির। আর তাতেই ভেঙে যায় দীর্ঘদিনের জোট। দুর্দিনের দুই বিশ্বস্ত সঙ্গী জোট ছাড়ায় দিল্লি নির্বাচনে চাপ বেড়ে গেল ক্ষমতাসীন বিজেপির। তবে এমন দুঃসময়ে তাদের জন্য কিছুটা হলেও স্বস্তি যে, জোট ছেড়ে আলাদাভাবে নির্বাচনে লড়বে না অকালি। ইন্টারনেট



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন