Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৯ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

২৪ ঘন্টায় ৫ বাংলাদেশি হত্যা করলো বিএসএফ!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ২:১৭ পিএম

নওগাঁর পোরশার হাঁপানিয়া সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে আজ আরও তিন বাংলাদেশি গরু ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার দুয়ারপাল সীমান্ত এলাকার ২৩১/১০(এস) মেইন পিলারের নীলমারী বিল এলাকায় ভারতের ক্যাদারীপাড়া ক্যাম্পের বিএসএফ জোয়ানরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। গতকাল বুধাবারও (২২ জানুয়ারি) ভোর লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা সীমান্ত এলাকায় দুই বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী। এ নিয়ে গেল প্রায় ২৪ ঘান্টায় বিএসএফের গুলিতে ৫ বাংলাদেশি নিহতের খবর পাওয়া গেছে।

গতকাল ভোরে হাতিবান্ধা উপজেলার গুতামারী ইউনিয়নের বনচৌকি সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে নিহতরা হলেন- আমঝোল গ্রামের শাহাজান আলীর ছেলে সুরুজ (৩৮) এবং একই গ্রামের উসমান আলীর ছেলে সুরুজ (১৭)। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ভারত থেকে গরু নিয়ে ফেরার পথে বিএসএফের গুলিতে তারা নিহত হয়। গুতামারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম সাবু মিয়া জানান, বিএসএফের গুলিতে দুজন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন বলে শুনেছি।

আজকের (বৃহস্পতিবার) ঘটনায় নিহতরা হলেন- পোরশা উপজেলার বিষ্ণপুর বিজলীপাড়ার শুকরার ছেলে রনজিত কুমার (২৫), দিঘীপাড়া গ্রামের খোদাবক্সের ছেলে মফিজুল ইসলাম (৩৫) এবং কাঁটাপুকুরের মৃত জিল্লুর রহমানের ছেলে কামাল হোসেন (৩২)। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার (২২ জানুয়ারি) রাতে বেশ কয়েকজন যুবক ভারতের অভ্যন্তরে অবৈধভাবে গরু আনতে যান। তারা গরু নিয়ে বাংলাদেশে ফেরার পথে বৃহস্পতিবার ভোররাতে পোরশা উপজেলার দুয়ারপাল সীমান্ত এলাকার ২৩১/১০(এস) মেইন পিলারের নীলমারী বিল এলাকায় ভারতের ক্যাদারীপাড়া ক্যাম্পের বিএসএফ জোয়ানরা গরু ব্যবসায়ীদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এ সময় অন্যরা পালিয়ে আসতে সক্ষম হলেও তিন বাংলাদেশি যুবক গুলিবিদ্ধ হন। গরু ব্যবসায়ী মফিজুল ইসলামের গুলিবিদ্ধ মরদেহ বাংলাদেশের ২০০ গজ অভ্যন্তরে পড়ে ছিল। আর রনজিত কুমার ও কামাল হোসেনের লাশ ভারতের ৮০০ গজ অভ্যন্তরে পড়ে ছিল।

এ বিষয়ে ১৬ বিজিবির হাঁপানিয়া ক্যাম্প কমান্ডার নায়েব সুবেদার মোখলেছুর রহমান জানান, তিনজন গুলিবিদ্ধের বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তবে গুলিবিদ্ধদের মধ্যে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে একজন মারা গেছে। অপর দুইজন ভারতের অভ্যন্তরে মারা গেছে কি-না খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। তিনি পতাকা বৈঠকের জন্য বিএসএফকে চিঠি দিবেন বলেও জানান।



 

Show all comments
  • Md. Khadem Hossain ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ৩:৪৮ পিএম says : 0
    মানুষ এমন নৃশংস হয়ে উঠছে? মানুষের দেহ ছিন্নভিন্ন করে দিয়ে কেউ কি পাশবিক আনন্দ পেতে চাইছে?নওগাঁর পোরশার হাঁপানিয়া সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে আজ আরও তিন বাংলাদেশি গরু ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। পোরশা উপজেলার বিষ্ণপুর বিজলীপাড়ার শুকরার ছেলে রনজিত কুমার (২৫), দিঘীপাড়া গ্রামের খোদাবক্সের ছেলে মফিজুল ইসলাম (৩৫) এবং কাঁটাপুকুরের মৃত জিল্লুর রহমানের ছেলে কামাল হোসেন (৩২)। গতকাল ভোরে হাতিবান্ধা উপজেলার গুতামারী ইউনিয়নের বনচৌকি সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে নিহতরা হলেন- আমঝোল গ্রামের শাহাজান আলীর ছেলে সুরুজ (৩৮) এবং একই গ্রামের উসমান আলীর ছেলে সুরুজ (১৭)। হঠাৎ নরবলি হয়ে গেলেন। একই ধরনের পৈশাচিকতা আবার ঘটবে না, তার নিশ্চয়তা কী? এরপর আরো একজন সুস্থ মানুষ এর শিকার হয়ে যেতে পারেন।বাংলাদেশী নাগরিক যত বড় অপরাধ করুন না কেন, তার বিরুদ্ধে ক্রসফায়ার কিংবা এনকাউন্টার ধরনের হত্যা আমাদের সংবিধানের লঙ্ঘন। নরবলিকে আমরা এ মুহূর্তেই ঠেকানোর কোনো ব্যবস্থা নিতে পারি কি?
    Total Reply(0) Reply
  • হোসাইন আহমদ ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:২১ পিএম says : 0
    প্রত্যেকেরই নিজ নিজ দেশের নিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার দায়িত্ব রয়েছে। এ দিক দিয়ে ভারতের জোয়ানরা তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করছে। আমাদের বাংলাদেশিদেরও উচিত নিজ নিজ দেশের নিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা। পাশাপাশি অন্য দেশ ও যেনো আমাদের কারণে অনিরাপদ না হয়। এখন পর্যন্ত যারা মারা যাচ্ছেন তারা সবাই গরু ব্যবসায়ী। কথিত চুরাই কারবারে যুক্ত। একে আমরা নিভৃত করা সময়ের দাবী হয়ে দাড়িয়েছে। না হয় বহিঃদেশে আমাদেরে বদনাম ছড়াবে। এতেও সচেতন হওয়া দরকার। আর হ্যা, এভাবে ক্রসফায়ার করা কাম্য নয়ই তেমনি অবৈধ পথে গরু ব্যবসাও কাম্য নয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Shefayet Ullah ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১০ পিএম says : 0
    ভারতীয় জওয়ান রা তাদের শীতকালীন প্রশিক্ষণে বুলেটের নিশানায় বাঙালীর বুক বেছে নেয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Shefayet Ullah ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১০ পিএম says : 0
    ভারতীয় জওয়ান রা তাদের শীতকালীন প্রশিক্ষণে বুলেটের নিশানায় বাঙালীর বুক বেছে নেয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Shefayet Ullah ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১০ পিএম says : 0
    ভারতীয় জওয়ান রা তাদের শীতকালীন প্রশিক্ষণে বুলেটের নিশানায় বাঙালীর বুক বেছে নেয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Miah Adel ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:৪৬ পিএম says : 0
    Once, following the captivity of a Bangladesh in the hands of Myanmer, Mr. Nanok told in the Assembly that it was like all Bangladeshis were captive in the hands on Myanmer. Why does he not say that killing of a Bangladesh by the Indian BSF is like killing of all Bangladeshis by the BSF? When will this brutal killing will be over if India is so friendly to Bangladesh? No body from the government raises any voice on this ferocious activities of the BSF. But the news is heard that high officials often meet on border matters.. These are unique kinds if killings which do not have any parallels in the civilized world. BSFs themselves prove that they are BTS (Border Terrorist Force).
    Total Reply(0) Reply
  • habib ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ৭:৫৯ পিএম says : 0
    Bangladesher BGB eder kaz ki ?
    Total Reply(0) Reply
  • HOSSAIN ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:০৮ পিএম says : 0
    Don't take it other ways, these killings are simply "Friendly-Fire" from india, the best Friend of Bangladesh ever. Please wait to see more 'Friendly-Fire' is coming.
    Total Reply(0) Reply
  • HOSSAIN ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:০৮ পিএম says : 0
    Don't take it other ways, these killings are simply "Friendly-Fire" from india, the best Friend of Bangladesh ever. Please wait to see more 'Friendly-Fire' is coming.
    Total Reply(0) Reply
  • Mijanur Mondal ২৪ জানুয়ারি, ২০২০, ২:৪৮ পিএম says : 0
    এতো নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য কোনো বাংলাদেশি যদি ভারতের মধ্যে না প্রবেশ করতে পারে।তাহলেNRC করে ভারতবাসীর বাংলাদেশি বলে ভারত থেকে তাড়ানোর মানে কি? দুটি দেশের সরকার মিলে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত করা প্রয়োজন।
    Total Reply(0) Reply
  • Mijanur Mondal ২৪ জানুয়ারি, ২০২০, ২:৪৮ পিএম says : 0
    এতো নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য কোনো বাংলাদেশি যদি ভারতের মধ্যে না প্রবেশ করতে পারে।তাহলেNRC করে ভারতবাসীর বাংলাদেশি বলে ভারত থেকে তাড়ানোর মানে কি? দুটি দেশের সরকার মিলে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত করা প্রয়োজন।
    Total Reply(0) Reply
  • Mijanur Mondal ২৪ জানুয়ারি, ২০২০, ২:৪৮ পিএম says : 0
    এতো নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য কোনো বাংলাদেশি যদি ভারতের মধ্যে না প্রবেশ করতে পারে।তাহলেNRC করে ভারতবাসীর বাংলাদেশি বলে ভারত থেকে তাড়ানোর মানে কি? দুটি দেশের সরকার মিলে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত করা প্রয়োজন।
    Total Reply(0) Reply
  • Mijanur Mondal ২৪ জানুয়ারি, ২০২০, ২:৪৯ পিএম says : 0
    এতো নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য কোনো বাংলাদেশি যদি ভারতের মধ্যে না প্রবেশ করতে পারে।তাহলেNRC করে ভারতবাসীর বাংলাদেশি বলে ভারত থেকে তাড়ানোর মানে কি? দুটি দেশের সরকার মিলে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত করা প্রয়োজন।
    Total Reply(0) Reply
  • Mijanur Mondal ২৪ জানুয়ারি, ২০২০, ২:৫০ পিএম says : 0
    এতো নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য কোনো বাংলাদেশি যদি ভারতের মধ্যে না প্রবেশ করতে পারে।তাহলেNRC করে ভারতবাসীর বাংলাদেশি বলে ভারত থেকে তাড়ানোর মানে কি? দুটি দেশের সরকার মিলে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত করা প্রয়োজন।
    Total Reply(0) Reply
  • M ismail Kabir Ahmed ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৮:০৬ পিএম says : 0
    farsite ekta kota ace ta holo : dost agar hagge dehod bash na darad er orto holo dosto paikhana korleo gondo lagena karon bharat amader dost bharotoi amader shadin ekta desh amader deiyce
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিএসএফের গুলিতে নিহত

৭ জানুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ