Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ৬ কার্তিক ১৪২৭, ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলায় রায় পড়ছেন আদালত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ৩:৪২ পিএম

রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ সংক্রান্ত মামলার রায় পড়া শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় বেলা ৩টায় রায় পড়া শুরু করে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ আদালত ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস (আইসিজে)।

গত ডিসেম্বরে হেগের আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে গাম্বিয়ার মামলার শুনানি শুরু হয়। আদালতে মিয়ানমারের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন অং সান সু চি। মামলায় দ্বিতীয় দিনের শুনানিতে সু চি মিয়ানমারের গণহত্যার অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন।

বিশেষজ্ঞরা এই মামলাটিকে ‘ঐতিহাসিক আইনি চ্যালেঞ্জ’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। মিয়ানমার সরকার আদালতের যেকোনও আদেশ মেনে নেবে কী না তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

তদন্ত কর্মকর্তা রিড ব্রোডি বলেছেন, ‘আমাদের সময়ের সবচেয়ে খারাপ গণ-নিপীড়নের বিরুদ্ধে রায় দিতে চলেছে আইসিজে। এমন সময়ে রায় দিতে হচ্ছে, যখন সেখানে এখনো নিপীড়ন চলছে।’

আইসিজের সাবেক আইনজীবী মাইক বেকার জানিয়েছেন, মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যে অপরাধের অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে জরুরি ব্যবস্থা নিতে হবে। মামলাটিকে আরও আন্তর্জাতিক তদন্তের অধীনে রাখতে হবে। তবে তিনি আদালতের আদেশ নিয়ে সতর্ক করে বলেছেন, ‘এটি হবে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত। পক্ষপাত ছাড়াই মামলার যোগ্যতা বিবেচনা করে রায় দেয়া হবে।’

যদিও অস্থায়ী রায়ের আদেশ বাধ্যতামূলক, তবুও আইসিজের এই রায় কার্যকর করার কোনো উপায় নেই। অনেকের মনে তাই প্রশ্ন, মিয়ানমার আইসিজের রায় বাস্তবায়ন করবে কী না, অথবা অস্থায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের আদেশ দেয়া হবে কী না?

যদি মিয়ানমার রায় মানতে রাজি না হয় তাহলে, গাম্বিয়ার মামলাটি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে পাঠানো হতে পারে। সেখানেই সিদ্ধান্ত হবে তারা মিয়ানমারকে রায় মেনে চলতে বাধ্য করবে কী না। নিরাপত্তা পরিষদের ভোটাভুটিতে মিয়ানমারের সুবিধা পাওয়া সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ তার পক্ষে রয়েছে ভেটো ক্ষমতাসম্পন্ন চীন ও রাশিয়া। আমস্টারডাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সের্গেই ভ্যাসিলিয়েভ বলেছেন, ‘আমি প্রত্যাশা করছি, আদালত গাম্বিয়ার সঙ্গে থাকবে এবং তাদের অধিকাংশ দাবি মঞ্জুর করবে।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রোহিঙ্গা সঙ্কট


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ