Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ০৪ রজব ১৪৪১ হিজরী

সরিষাবাড়ীতে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে আটকে রেখে নির্যাতন

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৫ জানুয়ারি, ২০২০, ৮:১৪ পিএম

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে ঘরে আটকে রেখে পাশবিক নির্যাতন চালিয়েছে স্বামী। উপজেলার মহাদান ইউনিয়নের বাশঁবাড়ী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। টানা ২৪ ঘণ্টা নির্যাতনের পর গৃহবধূর বাবা শনিবার মুমূর্ষু অবস্থায় মেয়েকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। অভিযুক্ত পাষন্ড স্বামী সুলতান আহম্মেদকে শাস্তির দাবি করেছে পরিবার।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নির্যাতিতা গৃহবধূ জানান, বাঁশবাড়ী গ্রামের চান মিয়ার মেয়ের (২১) তিন বছর আগে একই গ্রামের আজিজুল হকের ছেলে সুলতান আহম্মেদের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের একবছর পর স্ত্রীর কাছে এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে স্বামী। পরে গৃহবধূ ওই দাবি পূরণ করেন। এরপর আবারো মোটা অঙ্কের যৌতুক চায় লোভী স্বামী সুলতান আহম্মেদ। এতে স্ত্রী অস্বীকার করলে উভয়ের মধ্যে কলহ সৃষ্টি হয়। স্বামী টানা নির্যাতন শুরু করে স্ত্রীর উপর। এ ঘটনায় গত বছরের ১৪ নভেম্বর জামালপুর আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা হয়। স্ত্রীর মামলায় সুলতান আহম্মেদ দুই সপ্তাহ জেলহাজত বাস করলেও স্বাভাবিক আচরণের শর্তে সমঝোতা করে সে জামিনে মুক্তি পায়। জামিনে এসে স্ত্রীকে সুলতান নিজের বাড়িতে নিয়ে যায়। তারপর হঠাৎ শুক্রবার সকাল থেকে স্ত্রীকে বসতঘরের একটি কক্ষে আটকে রেখে পাশবিক নির্যাতন শুরু করে পাষÐ সুলতান আহম্মেদ। সিগারেট দিয়ে হাত-পা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছেঁকা, বেøড দিয়ে কেটে ক্ষতবিক্ষত ও লাঠি দিয়ে পেটানো হয় তাকে। টানা ২৪ ঘণ্টা নির্যাতনের পর শনিবার সকালে নির্যাতিতার বাবা চান মিয়া সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তালাবদ্ধ একটি কক্ষ থেকে মেয়েকে উদ্ধার করে এবং সরিষাবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

গৃহবধূর বাবা চান মিয়া জানান, আমার জামাই আমার মেয়েকে নির্যাতন করে মেরে ফেলতে চেয়েছিল। আমি উদ্ধার করতে গেলে আমাকেও সে গালাগাল ও হুমকি-ধামকি দেয়। মেয়ের চিকিৎসা চলছে, সে কিছুটা সুস্থ্য হলেই এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়ের করা হবে।
সরিষাবাড়ী থানার ওসি মাজেদুর রহমান জানান,অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নির্যাতন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ