Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ০৪ রজব ১৪৪১ হিজরী

ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি চীন, আক্রান্ত ১ লাখ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:৪০ এএম | আপডেট : ১২:৩০ পিএম, ২৬ জানুয়ারি, ২০২০

চীনের প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। তবে সরকার যতটা বলছে তার চেয়েও পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়ে পড়েছে। এখন পর্যন্ত সেখানে প্রায় এক লাখ মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে এক চিকিৎসা কর্মী দাবি করেছেন।
উহান শহরের হাসপাতালে কর্মরত এক নার্সের দাবি, সেখানে ইতোমধ্যেই ৯০ হাজার মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মাস্ক পরে হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসায় নিয়োজিত রয়েছেন ওই নার্স। তিনি বলছেন, সরকারিভাবে যে সংখ্যা বলা হচ্ছে প্রকৃতপক্ষে আক্রান্তের সংখ্যা আরও কয়েক গুণ বেশি।
যদিও সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, নতুন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে প্রায় দুই হাজার মানুষ। গত ডিসেম্বরের শেষের দিকে হুবেই প্রদেশের রাজধানী শহর উহানে প্রথম ফ্লু টাইপের এই করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঘটে।
এমন এক সময় এই ভাইরাসটি দেখা দিল যখন চীন নববর্ষ উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। নববর্ষের ছুটিতে চীনের কোটি কোটি মানুষ দেশের একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে ঘুরতে যায়। সারাদেশেই উৎসবের পরিস্থিতি বিরাজ করে।
এমন অবস্থায় এই ভাইরাস আরও বেশি ছড়িয়ে পরতে পারে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সে কারণে নববর্ষের অনেক অনুষ্ঠান বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। পরিস্থিতি খারাপ হতে শুরু করায় চীনা কর্তৃপক্ষ উহান থেকে চলাচলকারী সকল যানবহন বন্ধ ঘোষণা করেছে। হুবেই প্রদেশে ভ্রমণে কড়া সতর্কতা জারি করেছে দেশটির সরকার।
উহানে রোববার থেকেই প্রাইভেট যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে। করোনাভাইরাসের বিস্তারের আশঙ্কায় এই শহরের বাসিন্দাদের অন্য কোথাও চলে যাওয়া কিংবা শহরে কাউকে আসতে দেয়াও হচ্ছে না।
পরিস্থিতি মোকাবিলায় এক সপ্তাহের মধ্যে জরুরি ভিত্তিতে দুটি হাসপাতাল নির্মাণ করা হচ্ছে। এতে আড়াই হাজারের বেশি মানুষ চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন। উহানে ইতোমধ্যে দেশটির সামরিক বাহিনীর বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পাঠানো হয়েছে।
এদিকে, করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় শনিবার দেশটির সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিশেষ বৈঠকে করেছেন প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। ওই বৈঠকে তিনি বলেছেন, ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছে চীন।
চীনে প্রাদুর্ভাব ঘটলেও বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া, নেপাল, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, ফ্রান্স এবং যুক্তরাষ্ট্রেও লোকজন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে।
চীনে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। অনলাইনে একটি ভিডিওতে এক নারীকে বলতে শোনা গেছে যে, আমি এই শহরে আছি যেখান থেকে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঘটেছে। আমি এখানে সত্যি বলতে এসেছি। এই মুহূর্তে উহান শহরসহ হুবেই প্রদেশের বিভিন্ন স্থানে ৯০ হাজার মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত।
ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউটিউবে ওই নারীর এই ভিডিওটি প্রায় বিশ লাখ বার দেখা হয়েছে। তিনি ওই ভিডিওতে সবাইকে সতর্ক করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি সবাইকে বলতে চাই যারা এই ভিডিও দেখছেন তারা দয়া করে বাইরে বের হবেন না। কোনো পার্টি করবেন না। বাইরে কিছু খাবেন না। এক বছর পর আমরা নববর্ষ পালন করতে পারব। যদি আপনারা এখন নিরাপদ থাকেন তবে আগামী বছর আপনারা আপনাদের পরিবারের সঙ্গে সুস্থভাবে আগামী বছর মিলিত হতে পারবেন।



 

Show all comments
  • Md. Yeakub Ali ২৬ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০৪ পিএম says : 0
    Keno Dormogrontho Chenge korbina.
    Total Reply(0) Reply
  • Sm mozibur bin kalam ২৬ জানুয়ারি, ২০২০, ৩:৪০ পিএম says : 0
    চীন মুসলমানদের উপর সীমাহীন নির্যাতন চালাচ্ছে। আল্লাহর গজব এবার টের পাবে। সারাদেশে মরার ভয়ে কেউ কারো সাথে হাত মিলায় না।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনা ভাইরাস


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ