Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬, ০১ রজব ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

১২ মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

নোয়াখালী ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

সেনবাগ উপজেলার কেশারপাড় ইউনিয়নে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে আনোয়ার হোসেন প্রকাশ ইউছুফ নিহত হয়েছেন। ঘটনায় তিন পুলিশ আহত হয়েছে। পুলিশের দাবী, নিহত ইউছুফ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য এবং তার নামে বিভিন্ন থানায় ১২টি মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও ডাকাতির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।
গতকাল মঙ্গলবার সকালে নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল থেকে হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এরআগে সোমবার রাত পৌনে ৩টার দিকে বীরকোর্ট এলাকায় এ বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত আনোয়ার হোসেন ইউছুফ বেগমগঞ্জ উপজেলার পূর্ব লাউতলী গ্রামের আবু তাহের প্রকাশ ওলি উল্যার ছেলে।
আহত পুলিশ সদস্যরা হলো, উপ-পরিদর্শক জসিম উদ্দিন, সহকারি উপ-পরিদর্শক লোকেন মহাজন ও কনেস্টবল আব্দুর রহমান। আহত পুলিশ সদস্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে বেগমগঞ্জ উপজেলার জমিদারহাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে ইউছুফকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে তাকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এসময় সে ডাকাতি, সিঁধেল চুরি, অস্ত্র ও রাতে তার দল ডাকাতি করবে বলে স্বীকার করে। তার দেওয়া তথ্যতের ভিত্তিতে রাত পৌনে ৩টার দিকে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দলের সহযোগিতায় বীরকোর্ট এলাকায় অভিযান চালায় সেনবাগ থানা পুলিশ। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাত ইউছুফের সহযোগিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছুঁড়লে আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুঁড়লে উভয় পক্ষের মধ্যে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে। প্রায় পাঁচ মিনিট ধরে চলে এ বন্দুকযুদ্ধ। এসময় ইউছুফ পুলিশের কাছ থেকে দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করলে তার অজ্ঞাত সহযোগির গুলিতে গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয় সে। পরে তার সহযোগিরা পালিয়ে গেলে ইউছুফকে দ্রæত উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নোয়াখালী জেলা পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন জানান, নিহত ইউছুফ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের একজন সক্রিয় সদস্য। তার বিরুদ্ধে জেলার বিভিন্ন থানায় ডাকাতির ঘটনায় ৭টি, ডাকাতি প্রস্তুতির ঘটনায় ৩টি, সিঁধেল চুরির ঘটনায় ১টি ও অস্ত্র আইনে ১টি মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশী পিস্তল, তিন রাউন্ড পিস্তলের গুলি, চারটি তাজা কার্টুজ, সাত রাউন্ড গুলির খোসা, তিনটি রামদা, একটি টর্চলাইট ও একটি গ্যাস লাইটার উদ্ধার করা হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বন্দুকযুদ্ধ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ