Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

তরুণরা দিন দিন ইসলামি ভাবধারায় আকৃষ্ট হচ্ছে

সালাফি-ওহাবি ও জামাতিরা বাংলাদেশে ব্যর্থ হয়েছে, ওসমানীনগরে মাদরাসা উদ্বোধনকালে আলহাজ এ এম এম বাহাউদ্দীন

উসমানীনগর থেকে সালাহ উদ্দিন ইবনে শিহাব, আনোয়ার হোসেন জসিম | প্রকাশের সময় : ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৫:৫৫ পিএম | আপডেট : ১:৪৪ পিএম, ৩০ জানুয়ারি, ২০২০

দৈনিক ইনকিলাবের সম্পাদক ও মাদরাসা শিক্ষকদের সংগঠন বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভাপতি আলহাজ এ এমএম বাহাউদ্দীন বলেন, বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মের শিক্ষিত তরুণরা ইসলামি ভাবধারার প্রতি দিন দিন আকৃষ্ট হচ্ছে। ইউরোপে পরিবর্তন শুরু হয়েছে। মুসলমানরা শুধু নিজ দেশেই নয় ইউরোপ, আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশে^র বিভিন্ন দেশে ইসলামের পক্ষে কাজ করছে। বাংলাদেশের আলেম উলামা ও পীরবুযুর্গরা অসংখ্য মাদরাসা মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেছেন। এ কারণে এদেশে অসংখ্য আলেম তৈরি হয়েছেন। এখন তাদের থেকে ইসলামের বহুমুখী ফায়দা নিতে হলে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে হবে। সঠিকভাবে কাজের ম্যাপ তৈরি করতে হবে।

গতকাল (২৯ জানুয়ারি) দুপুরে সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলার মির্জা শহিদপুর গ্রামে আলহাজ আতাউর রহমান চৌধুরী হাফিজিয়া দাখিল মাদরাসা ও মোহাম্মাদ ইছহাক মিয়া চৌধুরী এতিমখানার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি একথাগুলো বলেন।

মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী আলহাজ মাহবুবুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সিরাজাম মুনিরা অ্যাডুকেশন সেন্টার ইউকের পরিচালক আলহাজ হাফিয সাব্বির আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এ এমএম বাহাউদ্দীন আরো বলেন, সৌদি সরকার তাদের আইডিওলজি প্রতিষ্ঠার জন্য সারাবিশ্বে মসজিদ মাদরাসা তৈরি করছে। কিন্তু এসব কোন কাজে লাগে নাই। বাংলাদেশেও বাতিল ধ্যান ধারণার সালাফি, ওহাবি ও জামাতিরা ব্যর্থ হয়েছে। অর্থ ও সুযোগ-সুবিধার বিনিময়ে অনেক আলেমকে তারা ব্যবহার করছে।

তিনি সুন্নি আলেমদের এক্ষেত্রে ভূমিকা রাখার প্রতি গুরুত্ব আরোপ করে বলেন, সুন্নি আলেমদেরকে আরো বেশি কথা বলতে হবে। সিরিয়ার শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ হানাফি মাজহাবের। রাজনৈতিক কারণে যেসব আলেম সেখান থেকে বের হয়ে আসছেন তাদের বেশিরভাগই সুন্নি মতাদর্শের। এরা ইউরোপসহ বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছেন। এর প্রভাব পড়ছে সেই দেশগুলোতে। ইউরোপে বাংলাদেশের আলেমদেরও প্রভাব বাড়ছে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহর সভাপতি আল্লামা হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী।
তিনি বলেন, যে এলাকায় একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা হয় সেখানে দোয়ার সিলসিলা কায়েম হয়ে যায়। সেই অঞ্চলের সমস্ত মানুষ এই দোয়ার ভাগ পায়। আল্লাহর রহমত বর্ষিত হতে থাকে। তিনি বলেন আরো বলেন, দ্বীনি ইলিম অর্জনের গুরুত্বপূর্ণ স্থান হচ্ছে মাদরাসা। মাদরাসায় কুরআন, হাদিসের তালিম দেওয়া হয়। এতে মানুষের মধ্যে দ্বীনি মনোভাব তৈরি হয়। বর্তমানে মানুষের মাঝে ইসলামের সঠিক জ্ঞান না থাকায় শয়তানী বাড়ছে। খুন খারাবি বৃদ্ধি পেয়েছে। দ্বীনি ইলিম অর্জন করে আমাদেরকে এ সমস্ত শয়তানী কাজ থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সিরাজাম মুনিরা অ্যাডুকেশন সেন্টারের প্রিন্সিপাল শায়খ সাইয়্যিদ ফাদি জুবা ইবনে আলী, ইউরোপের স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল এস-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর তাজ চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাওলানা আহমদ হাসান চৌধুরী ফুলতলী।

উপস্থিত ছিলেন আনজুমানে আল-ইসলাহর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি প্রিন্সিপাল মাওলানা ছরওয়ারে জাহান, দৈনিক ইনকিলাবের আইটি প্রধান সৈয়দ এ রহমান গালিব, দৈনিক ইনকিলাবের বিশেষ প্রতিনিধি এস এইচ চৌধুরী,  দৈনিক সিরাজাম মুনিরা অ্যাডুকেশন সেন্টারের পরিচালক আলহাজ মো. জসিম উদ্দিন, সুমী মহসিনা অ্যাডুকেশন ট্রাস্ট ইউকের চেয়ারম্যান আলহাজ মো. চন্দন মিয়া, ফুলতলী ইসলামিক সেন্টার কভেন্ট্রি ইউকের প্রিন্সিপাল মাওলানা আবুল হাসান, সিলেট মহানগর আল-ইসলাহর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আজির উদ্দিন পাশা, আলহাজ ফয়ছল আহমদ চৌধুরী, ডা. কুতুব উদ্দিন অ্যাডুকেশন ট্রাস্ট, মৌলভীবাজারের চেয়ারম্যান মো. ফখরুল ইসরাম, সংগীতশিল্পী মুজাহিদুল ইসলাম বুলবুল, সাপ্তাহিক পূর্বদিক পত্রিকার সহযোগী সম্পাদক সালাহ্ উদ্দিন ইবনে শিহাব, আনজুমানে আল-ইসলাহ মৌলভীবাজার জেলা শাখার অফিস সম্পাদক মাওলানা শফিকুল আলম সুহেল, মাদরাসার সুপার মোহাম্মদ আবুল খায়ের, ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া, উসমানীনগর উপজেলা কারী সোসাইটির সসভাপতি মাওলানা ছাদিকুর রহমান শিবলী, উপজেলা আল-ইসলাহর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল মতিন গজনবী প্রমুখ।



 

Show all comments
  • আবু নোমান ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১৬ পিএম says : 0
    আমরাও আপনার সাথে কন্ঠ মিলিয়ে বলতে চাই, ইনশাআল্লাহ ২৫ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ হবে আধুনিক ইসলামী রাষ্ট্র ও সমাজ ব্যবস্থার রোল মডেল।
    Total Reply(0) Reply
  • শাহে আলম ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১৮ পিএম says : 0
    দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ হজরত মাওলানা এম. এ. মান্নান (রহঃ) যেভাবে এ দেশের ইসলাম, মুসলমান ও মাদ্রাসা শিক্ষার জন্য কাজ করে গেছেন ঠিক একইভাবে তার সুযোগ্য সন্তান এ এম এম বাহাউদ্দীন সাহেবেও কাজ করছেন। এজন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করি, এই পরিবার ও তাদের সকল কর্মকাণ্ডের প্রতি তিনি যেন রহমত ও বরকত দান করেন।
    Total Reply(0) Reply
  • নাহিদা সুলতানা ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১৮ পিএম says : 0
    জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভাপতি প্রখ্যাত ইসলামী চিন্তাবিদ এ এম এম বাহাউদ্দীন সাহেব এখন দেশের আলেম-ওলামা-পীর-মাশায়েখদের আস্থার প্রতীক
    Total Reply(0) Reply
  • Sarfaraz Ahmed ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১৯ পিএম says : 0
    আমি বিশ্বাস করি, জমিয়াতুল মোদার্রেছীন রাজনীতির সাথে না থাকলেও সুষ্ঠু রাজনৈতিক সংস্কৃতি চর্চায় পরোক্ষভাবে হলেও অবদান রাখবে। দেশের তওহীদি জনতাকে কুরআন ও সুন্নাহর ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ করবে। ইসলামি শিক্ষা বাস্তায়নে অগ্রণী ভূমিকা রাখবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Hafiz ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:২০ পিএম says : 0
    দোয়া করি আপনার কথা আল্লাহ কবুল করুন। ইসলামি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা ছাড়া আলেমউলামাদের সম্মান, মর্যাদা, ক্ষমতা, অধিকার পুরোপুরি ভাবে ভোগ করা সম্ভব নয়। আল্লাহ আলেম সমাজকে অবশ্যই সম্মানিত করবেন।
    Total Reply(0) Reply
  • Abdul Hakim Rahat ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:২০ পিএম says : 0
    I Salute you sir for your excellent roll at Jamiatul mudarresin. I hope your organization play it's leading roll to stablish complete Islami education in our country with each criteria.
    Total Reply(0) Reply
  • সোহেল হায়দার ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:২২ পিএম says : 0
    আপনার সাথে একমত। সতর্ক না হলে বড় ধরনের ম্যাচাকার ঘটে যেতে পারে। যা আমাদের আরও বড় ক্ষতির কারণ হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Farooq Farooq ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১৯ পিএম says : 0
    যারা বলে বাংলাদেশের জন্ম হয়েছে ধর্মনিরপেক্ষ মতবাদের ওপর, আমি তাদের হয় বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী অথবা মুর্খ বলবো। কেননা তৎকলীন পূর্ব বাংলা ভারত থেকে বিভক্ত হয়েছে শুধু ধর্মের কারণে। আর সেটা হলো ইসলাম। পশ্চিমবঙ্গ আর আমাদের মধ্যে বিভক্ত হওয়ার মতো আর একটা কারণ কেও দেখাতে পারবে না। আমরা মুসলিমনা সসম্মান ও অধিকার নিয়ে বেঁচে থাকার জন্যই এই ভূখন্ডের জন্ম। তাই ইসলামি রাষ্ট্রের দিকে ধাবিত হওয়ায় বাংলাদেশের মূল গন্তব্য।
    Total Reply(0) Reply
  • Shawkat Ali ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:২২ পিএম says : 0
    যে দেশে আলেম-ওলামারা ডজনাধিক দলে বিভক্ত সেই দেশে তারা মুসলমানদের স্বার্থ ও মর্যাদা রক্ষায় কতটুকু ভুমিকা পালন করবে? আজ মুসলমান যে যার গোষ্ঠিগত স্বার্থ রক্ষায় ব্যস্ত। তাই তারা বড়জোর দু'চারজনকে কোরবানী দিতে পারে কিন্তু বৃহত্তর মুসলিম কমিউনিটির জন্য তারা খুব সামান্যই করতে পারে।
    Total Reply(0) Reply
  • মাহফুজ আহমেদ ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:২৩ পিএম says : 0
    শ্রদ্ধেয় সম্পাদক ও বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভাপতি এ এম এম বাহাউদ্দীন অত্যন্ত মূল্যবান ও বাস্তবসম্মত কথা বলেছেন।
    Total Reply(0) Reply
  • Jabed ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:২৩ পিএম says : 0
    Thanks for very nice and important speech
    Total Reply(0) Reply
  • Jamal Khan ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১৯ পিএম says : 0
    মনে রাখা ভালো হবে, বাংলাদেশ ভূখণ্ডের সৃষ্টিই হয়েছে ইসলামের জন্য। আজ আমরা আমাদের প্রিয়ভূমিকে ইসলাম থেকে অনেক দূরে দেখতে পেলেও একদিন খাঁটি মুসলিমরাই এদেশ শাসন করবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Kamrul Hasan ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১৬ পিএম says : 0
    Although, Bangladesh Jamiatul Mudarresin is a Unpolitical social organization, But it Works for Islam and Madrasah Education in Bangladesh.
    Total Reply(0) Reply
  • Hasib Billah ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১৬ পিএম says : 0
    Thanks Sir, I like you & Your Organization. I also think Jamiatul Mudarresin is the leading platform of Bangladesh which always play it's active roll for Islami education.
    Total Reply(0) Reply
  • নাজমুস ছমির ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:১৭ পিএম says : 0
    মুসলমানদের ক্ষতি করতে ধর্ম ব্যবসায়ী যুগে যুগে ছিল, বর্তমানেও অাছে ভবিষ্যতেও থাকবে। তবে আপনাদের মতো ব্যক্তিরা যতদিন তৎপর আছে ইনশায়াল্লাহ তারা ক্ষতি করতে পারবে না। আপনি ও আপনার সংগঠনের জন্য শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা রইলো অনন্তন।
    Total Reply(0) Reply
  • সাইফুল ইসলাম ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:৩৭ এএম says : 0
    এটা সত্যি খুব ভালো খবর
    Total Reply(0) Reply
  • নোমান ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:৩৮ এএম says : 0
    তরুণ সমাজকে ইসলামি ভাব ধারা গড়ে তুলতে সকলের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এ এম এম বাহাউদ্দীন
আরও পড়ুন