Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০, ১৪ চৈত্র ১৪২৬, ০২ শাবান ১৪৪১ হিজরী

জেরুজালেম বাদ দিয়ে ফিলিস্তিন রাষ্ট্র হতে পারে না : আব্বাস

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:১১ এএম

ফিলিস্তিনিদের প্রবল বিরোধিতা উপেক্ষা করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শেষ পর্যন্ত ফিলিস্তিন-ইসরাইল সংকট সমাধানের লক্ষ্যে কথিত শান্তি পরিকল্পনা ‘ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি’ উপস্থাপন করেছেন। হোয়াইট হাউসে তিনি মঙ্গলবার ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে পাশে নিয়ে তার একপেশে এই আপস প্রক্রিয়া উপস্থাপন করেন। খবর আনাদোলুর। তথাকথিত এ মার্কিন শান্তি পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করে ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, জেরুজালেমকে রাজধানী করে একটি স্বাধীন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র ছাড়া তিনি কখনই এ পরিকল্পনা মানবেন না। মঙ্গলবার ওই একপেশে পরিকল্পনার প্রতিবাদে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, মার্কিন-ইহুদিবাদী এই পরিকল্পনায় ঐতিহাসিক জেরুজালেম আল-কুদস শহরকে ইসরাইলি ভ‚খÐের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসরত ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের তাদের মাতৃভ‚মিতে ফিরে যাওয়ার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। এ ছাড়া জর্দান নদীর পশ্চিমতীরের অবশিষ্ট অংশ ও গাজা উপত্যকা নিয়ে একটি দুর্বল ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের কথা বলা হয়েছে। মাহমুদ আব্বাস বলেন, ফিলিস্তিনিদের পাশাপাশি বিশ্বের বহু মুসলিম দেশ ট্রাম্পের এই একতরফা বা বর্ণবাদী পরিকল্পনার বিরোধিতা করেছে। ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আরও বলেছেন, আমি হাজারবার বলেছি– এ পরিকল্পনা মানি না, মানি না, মানি না। কথিত ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি উপস্থাপনের পর ডোনাল্ড ট্রাম্প মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে কথা বলার জন্য তাকে টেলিফোন করলেও তিনি ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি। মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, যে পরিকল্পনায় জেরুজালেম আল-কুদসকে রাজধানী করে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের কথা নেই, সে পরিকল্পনা তিনি মেনে নেবেন না। ৮৪ বছর বয়সী এ ফিলিস্তিনি নেতা বলেন, ফিলিস্তিনি জনগণের কাছে একজন ‘বিশ্বাসঘাতক’ হিসেবে পরিচিত হয়ে তিনি কবরে যেতে চান না। তিনি বলেন, জেরুজালেম বিক্রি করার জিনিস না। পবিত্র এ ভ‚মি ছাড়া কোনোভাবেই স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠন হতে পারে না। ট্রাম্পের ওই পরিকল্পনা প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে ফিলিস্তিন ও জর্ডানে কয়েকটি শহরে এর প্রতিবাদে ক্ষোভে ফেটে পড়েন বিক্ষুব্ধ লোকজন। আল-জাজিরা, রয়টার্স।

 



 

Show all comments
  • Jubayer Ahmed ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ২:০৩ এএম says : 0
    এই ইহুদীরা ছিল যাযাবর, তাদের নির্দিষ্ট কোন ভুখন্ড ছিলোনা। এই যুক্তরাষ্ট্র তৎকালীন আরব শাসক দের ধোঁকা দিয়ে, এদেরকে আস্রিত হিসেবে ফিলিস্তিনে জায়গা করে দিয়েছিল।আজ ফিলিস্তিনি জনগণ নিজ দেশে অসহায়ের মতো বেঁচে আছে মাত্র। জেরুজালেমে অবস্থিত পবিত্র মসজিদুল আকসা, মুসলমানদের প্রথম কিবলা,আজ এই পবিত্র মসজিদুল আকসা, ইহুদিদের দখলে ধিক্কার আরব বিশ্বকে।
    Total Reply(0) Reply
  • Mollick Delowar Dulal ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ২:০৩ এএম says : 0
    জেরুজালেম কে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা হলে,আমেরিকা ও ইসরায়েলের অস্তিত্ব ই বিলীন হবে।কারন এই জেরুজালেমের সাথে বহু শহিদের রক্ত মিশে আছে। অতএব সাবধান।
    Total Reply(0) Reply
  • Hasan Muhammad Fariduzzaman ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ২:০৩ এএম says : 0
    সক্ষমতা অর্জনের মাধ্যমে ঘুরে দাড়ানোর কোন বিকল্প ফিলিস্তিনি মুসলমানদের নেই। এই ঘুরে দাড়ানোর জন্য প্রথমেই দরকার সিসির অপসারন এবং মিশরে ইসলাম ও মুসলমান পন্থি সরকার। সারা বিশ্বে আরব রাজাদের বিরোধিতাকে জোড়দার করতে হবে আমাদেরকেই।
    Total Reply(0) Reply
  • Eden Garden ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ২:০৪ এএম says : 0
    মুসলিম নাম ধারী আরবের কিছু ইহুদী আছে তাদের গোপন আতাত এর কারণে ফিলিস্তিন ঘরের ভিতরে মার খাচ্ছে।
    Total Reply(0) Reply
  • G.M Simon Reza ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ২:০৪ এএম says : 0
    দো-জাহানের মালিক আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে ফরিয়াদ করি ইহুদী দের ধ্বংস করে দাও মাবুদ তুমি রহমানের রহিম তোমার চেয়ে দয়ালু আর কেউ নেই তুমি আমার ফিলিস্তিনের নির্যাতিত নিপিড়ীত ভাই বোনেদের উপর তোমার রহমত নাজিল করো।মাবুদ তুমি ছাড়া তো মুসলিম দের কেউ নাই।
    Total Reply(0) Reply
  • Amir Hossain Sheikh ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ২:০৫ এএম says : 0
    Jerusalem is the part of Palestine
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Zakir ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ২:০৫ এএম says : 0
    কক্ষনো না ,মানি না মানবো না । ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের জেরুজালেম আছে থাকবে।।।
    Total Reply(0) Reply
  • habib ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:২৯ এএম says : 0
    kichu munafiq muslim netar karone aj palestine dokhol kore rekhece Israel
    Total Reply(0) Reply
  • MD Sagor Mia ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ৭:০৮ এএম says : 0
    ফিলিস্তিন একটি স্বাধীন রাষ্ট্র। আর ইহুদিরা ফিলিস্তিনে যাযাবর বা শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছিল। তাই যাযাবর বা শরণার্থীরা কখনো রাষ্ট্রগঠনের ক্ষমতা রাখে না। ইহুদিদেরকে ফিলিস্তিন থেকে বের করে আমেরিকা নিয়ে যাওয়া হোক।ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত কখনোই মানা হবে না। তারা হচ্ছে যাযাবর তারা কি করে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে রাষ্ট্র গঠন করবে। এটা বেআইনি, এটা অন্যায়, এটা জুলুম।সুতরাং ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্তকে পুরো মুসলিম বিশ্ব একযোগে প্রত্যাখ্যান করেছে। It is not acceptable.
    Total Reply(0) Reply
  • মীর মোশাররফ হোসেন ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ৯:৪৮ এএম says : 0
    কমপক্ষে ১৯৬৭ সালের বিভাজন মেনে নেয়া যায়। ইজরায়েল মধ্যপ্রাচ্যে একটা বিশফোড়া। একে উপড়ে ফেলাই উচিৎ।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Eaqub Ali ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:৪৬ পিএম says : 0
    ট্রাম্পের ইহুদিদের প্রতি যদি এতই দরদ লাগে তাহলে, আমেরিকাতো বড় রাষ্ট্র ইহুদিদের সেখানে জায়গা দিক। ইহুদিদের নিয়ে ট্রাম্পের এত মাথাব্যাথা কেন।মধ্যপ্রাচ্যে থেকে পশ্চিমা সেনাবাহিনী প্রত্যাহার করা হোক।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Eaqub Ali ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:৪৭ পিএম says : 0
    ট্রাম্পের ইহুদিদের প্রতি যদি এতই দরদ লাগে তাহলে, আমেরিকাতো বড় রাষ্ট্র ইহুদিদের সেখানে জায়গা দিক। ইহুদিদের নিয়ে ট্রাম্পের এত মাথাব্যাথা কেন।মধ্যপ্রাচ্যে থেকে পশ্চিমা সেনাবাহিনী প্রত্যাহার করা হোক।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Eaqub Ali ৩০ জানুয়ারি, ২০২০, ১১:৪৭ পিএম says : 0
    ট্রাম্পের ইহুদিদের প্রতি যদি এতই দরদ লাগে তাহলে, আমেরিকাতো বড় রাষ্ট্র ইহুদিদের সেখানে জায়গা দিক। ইহুদিদের নিয়ে ট্রাম্পের এত মাথাব্যাথা কেন?মধ্যপ্রাচ্যে থেকে পশ্চিমা সেনাবাহিনী প্রত্যাহার করা হোক।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফিলিস্তিন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ