Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৯ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

ফেরত যাচ্ছে সেই শুকরের বর্জ্য

চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৮:৩৩ পিএম

অবশেষে ফেরত যাচ্ছে শুকরের বর্জ্যমিশ্রিত মিট অ্যান্ড বোন মিল। মাছ আর মুরগির খাবারের নামে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে দেশে আনা হয় এসব আমদানি নিষিদ্ধ পণ্য। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের কড়া নজরদারীতে ধরা পড়ে ১৮টি বড় চালান। নানা হুমকি ধমকি আর মামলা করেও এসব পণ্য খালাস করতে না পেরে রণেভঙ্গ দিতে বাধ্য হয়েছেন আমদানিকারকেরা।

১১টি চালান ফেরত বা সংশ্লিষ্ট দেশে পুনঃ রফতানির আবেদন জমা পড়েছে কাস্টম হাউসে। এরমধ্যে চারটি চালান ইতোমধ্যে ফেরত গেছে। একটি চালানে থাকা মাছের খাবারের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় তা পুনঃ রফতানির আবেদন বাতিল করা হয়েছে। বাকি ছয়টি চালান ফেরত দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

বিষয়টি স্বীকার করে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের অতিরিক্ত কমিশনার মো. আকবর হোসেন বুধবার দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, শুকরসহ পশুর বর্জ্যমিশ্রিত একইসাথে আমদানি নিষিদ্ধ এসব চালান দেশে খালাসের কোন সুযোগ নেই। কাস্টম হাউস এ ব্যাপারে কোন ছাড় না দেওয়ায় সংশ্লিষ্ট আমদানিকারকেরা এসব পণ্য ফেরত পাঠাতে বাধ্য হচ্ছেন। আরও এমন পাঁচটি চালান ধরা পড়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, তাদের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহার করে নিষিদ্ধ পণ্য আমদানি তথা চোরাচালানের কোন সুযোগ দেয়া হবে না।

চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে ফিশফিড আমদানির নামে শুকরের বর্জ্যযুক্ত মাছ ও মুরগির খাবার নিয়ে আসার বিষয়টি গত বছরের ২৪ জুলাই প্রথম গণমাধ্যমের নজরে আনেন কাস্টম হাউসের কমিশনার মোহাম্মদ ফখরুল আলম। এরপর থেকে ফিশফিডের আড়ালে আমদানি নিষিদ্ধ এসব পণ্য চালান আটকে কঠোর হয় কাস্টম হাউস। একের পর এক আটক হতে থাকে চালান। কাস্টমসের নিজস্ব ল্যাব, চট্টগ্রামের পিআরটিসি (পোল্ট্রি রিসার্স অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টার) এবং ঢাকার আইসিডিডিআরবিতে একাধিকবার পণ্যগুলোর রাসায়নিক পরীক্ষায় মিট অ্যান্ড বোন মিলের প্রমাণ পাওয়া যায়।

উল্লেখ্য, এসব খাবার খেলে মাছ ও মুরগির বাচ্চা দুই সপ্তাহের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ আকার ধারণ করে। যা জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকি স্বরূপ।



 

Show all comments

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ