Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনায় প্রস্তুত কেন্দ্র নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া মেনেই কেন্দ্রের কাছে প্রস্তাব জানাতে হবে : রবিশঙ্কর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০২ এএম

সিএএ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম ভরকেন্দ্র শাহিনবাগ। শাহিনবাগের সিএএ বিরোধী আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনার জন্য প্রস্তুত কেন্দ্রীয় সরকার। তবে, নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া মেনেই আন্দোলনকারীদের আলোচনার প্রস্তাব জানাতে হবে। এ কথা বলেছেন. ভারতের কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ। ধর্মের ভিত্তিতে তৈরি হয়েছে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন। এই অভিযোগ তুলে আইন বাতিলের দাবিতে শাহিনবাগে অবস্থান বিক্ষোভ চালাচ্ছেন সংখ্যালঘু স¤প্রদায়ের মহিলারা। এতদিন তাদের উদ্দশ্যেই নানা কট‚ক্তি করেছেন গেরুয়া শিবিরের একাধিক নেতৃত্ব। তবে এই প্রথম শাহিনবাগের আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনার কথা বললেন মোদী সরকারের কোনও মন্ত্রী। টুইটে রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন, সিএএ নিয়ে যেসব সন্দেহ দানা বেঁধেছে তা দ‚র করতে শাহিনবাগের আন্দোনকারীদের সঙ্গে কথা বলতে সরকার প্রস্তুত। তবে, আলোচনার জন্য নির্দিষ্ট পদ্ধতি মেনেই আর্জি জানাতে হবে আন্দোলনকারীদের। কেন্দ্র কেন নিজে উদ্যোগী হয়ে শাহিনবাগের আন্দোলনকারীদের সঙ্গে কথা বলছে না? এই প্রশ্নের জবাবে ইন্ডিয়া টিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এর আগে কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘কোনও আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হলে ভাল। তবে তাদের স¤প্রদায় (মুসলিম) থেকেই টিভিতে বারংবার অনেকে বলছেন যে সিএএ বাতিল না হওয়া পর্যন্ত কোনও আলোচনা হবে না। নয়া আইন নিয়ে আলোচনা চাইলে নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া মেনেই শাহিনবাগের আন্দোলনকারীদের আলোচনার প্রস্তাব দিতে হবে।’ মন্ত্রী স্পষ্ট করে দেন যে সরকারের পক্ষে আগে গিয়ে শাহিনবাগের আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনা ‘সম্ভব নয়’। রবিশঙ্কর প্রসাদের প্রশ্ন, ‘সরকারের প্রতিনিধি সেখানে গিয়ে অপ্রীতিকর পরিস্থিতির শিকার হলে কি হবে?’ খবরে বলা হয়, সিএএ ঘিরে দেশজুড়ে বিতর্ক। চলছে আন্দোলন। এদিকে নয়া নাগরিকত্ব আইন বাস্তবায়ন করতে মরিয়া পদ্ম বাহিনী। এই অবস্থায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিক্ষোভকারী সঙ্গে কেন্দ্রীয় পদক্ষেপ ঘিরে অসন্তুষ্ট এনডিএ শরিক অকালি দল, জেডিইউ, এলজেপি। শুক্রবার জোটের বৈঠকেও প্রধানমন্ত্রীর সামনেও সেই কথা জানিয়েছিলেন শরিক নেতারা। কেন্দ্রীয় সরকারি নানা পদক্ষেপে মুসলিমদের মনে নয়া আইন ঘিরে প্রশ্ন উঠছে। স‚ত্রের খবর, প্রধানমন্ত্রী অবশ্য বৈঠকে শরিক নেতাদের আশ্বস্ত করে জানান, দেশের মুসলিমদের সব ধরণের নাগরিকদের সুযোগ সুবিধা রয়েছে। তাদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার কোনও উদ্দেশ্য সরকারের নেই। আন্তর্জাতিক মহলেও মোদী সরকারের সিএএ নানাভাবে সমালোচিত। যা ঘিরে দেশেও বিরোধ চলছে। শরিকরাও অসন্তুষ্ট। ইতিমধ্যেই ঢোক গিলে প্রস্তাবিত এনআরসিকে আপাতত দ‚রে ঠেলেছে কেন্দ্র। এই প্রেক্ষাপটে সিএএ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম ভরকেন্দ্র শাহিনবাগের বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সরকারের কথা বলতে চাওয়ার প্রস্তাব যথেষ্ট তাৎপর্যবাহী বলেই মনে করা হচ্ছে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সিএএ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ