Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

১৯৮টি কেন্দ্রে ভোট স্থগিত চেয়ে আবেদন

খতিয়ে দেখার আশ্বাস ইসির

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটারদের কেন্দ্রে ঢুকতে না দেওয়ার, ভোটকেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্ট বের করে দেওয়ার, আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য এবং প্রশাসনের কর্মকর্তারাসহ বিভিন্ন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ হাজারো অভিযোগ দিতে দিতে পার হয়েছে নির্বাচন। অথচ ভোটের দিন গতকাল দুপুরে উত্তর সিটির রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম আইএস স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভোট কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বলেন, উপস্থিতি তুলনামূলক কম। কয়েকটি কেন্দ্রে এজেন্ট নিয়ে অভিযোগ পেয়েছি। সেগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পাওয়ার পর সেগুলো খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানা নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা। সব কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেয়াসহ রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবুল কাসেমের কাছে ৩২টি অভিযোগ দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করর্পোরেশনে বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। এদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করর্পোরেশন নির্বাচনে ভোট কারচুপি, এজেন্ট ঢুকতে না দেওয়া, অন্যের ভোট জোর করে দেওয়ার অভিযোগ করে ১৯৮টি কেন্দ্রে ভোট স্থগিত চেয়েছে বিএনপি

গতকাল শনিবার দুপুর সোয়া ১টায় অভিযোগ নিয়ে আসেন তাবিথের প্রতিনিধি জুলহাস। এসময় তিনি রিটার্নিং কর্মকর্তাকে বলেন, বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেওয়া, মারধরসহ বেশকিছু অভিযোগ নিয়ে এসেছি। এখনই ব্যবস্থা না নিলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে। এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম বলেন, অভিযোগ দিয়েছেন, রেখে দিলাম, দেখবো। এখন কথা শোনার সময় নেই। অভিযোগ কি আগেই লিখে রেখেছিলেন নাকি?
জবাবে জুলহাস বলেন, আগে কেন লিখে রাখবো। আমাদের এজেন্টদের বের করে দেওয়া, মারধর করছে নৌকা প্রার্থীর কর্মীরা। অনেকের মাথা ফাটিয়েছে। তারা হাসপাতালে আছে। আজ ভোট, আপনি এখন ব্যবস্থা না নিলে এমনটা হতে থাকবে। এসময় রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম বলেন, অভিযোগ দিয়েছেন দেখবো। আগেও তো দেখেছি। পরে জুলহাস সাংবাদিকদের অভিযোগ করে বলেন, তিনি (রিটার্নিং কর্মকর্তা) আমার কথাই শুনলেন না। এখন আর দুই-তিন ঘণ্টা সময় আছে। এখনো তিনি ব্যবস্থা না নিলে কখন নেবেন? তিনি ফোন করে খোঁজ-খবর নিতে পারেন। প্রমাণ পেলেই ব্যবস্থা নেবেন। তিনি তো অভিযোগ রেখেই দিলেন। এরপর সাংবাদিকদের রিটার্নিং অফিসার বলেন, সকাল থেকে আমি বেশ কয়েকটি কেন্দ্র দেখেছি। সব কেন্দ্রে দুই দলেরই এজেন্ট পেয়েছি। ভোটার উপস্থিতি কম ছিল তবে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে দেখিনি। তারা ঢালাওভাবে অভিযোগ করেছে, কোনো পেসিফিক অভিযোগ করেনি। নির্দিষ্ট অভিযোগ না দেওয়ার ফলে ব্যবস্থা নিতে অসুবিধা হচ্ছে। কিছু কেন্দ্রে ধানের শীষ প্রতীক নেই বিএনপির এমন অভিযোগে তিনি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বলেন, প্রতীক নেই, এটা সম্প‚র্ণ ভুল তথ্য। কোনো কেন্দ্রে এমন ঘটনা ঘটেছে সুনির্দিষ্টভাবে তিনি বলতে পারেননি। বলতে পারলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কেন্দ্রে সংঘাতের বিষয়ে তিনি বলেন, মেয়র প্রার্থীদের নিয়ে কোথাও কোনো ঝামেলা হয়নি। কয়েকটি কেন্দ্রে কাউন্সিলরদের নিয়ে ঝামেলা হয়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তা জানান, কোথাও কোনো ঝামেলা হলে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসার ব্যবস্থা নেবেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে বলা হয়েছে।

উত্তর সিটির রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম বলেন, কয়েকটি কেন্দ্রে এজেন্ট নিয়ে অভিযোগ পেয়েছি। সেগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে। বাড্ডা, লালমাটিয়া মহিলা কলেজে, মোহাম্মদপুর ও মিরপুরের দুই কেন্দ্রে অভিযোগ পেয়েছেন জানিয়ে এ কর্মকর্তা বলেন, “সঙ্গে সঙ্গে নির্বাহী হাকিম ও প্রিজাইডিং অফিসারের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি ঠিক করা হয়েছে।

দক্ষিণের রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, শান্তিপূর্ণ ভোট হয়েছে। কোনো অনিয়মের খবর পাইনি। লালবাগ ১ নম্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে কাউন্সিলর আলেয়া পারভীন রনজুর পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে।

দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের লালবাগ ১ নম্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সংরক্ষিত ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আলেয়া পারভীন রনজু তার পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ করেন। ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ফজলে হক বলেন, সকালে একটু গন্ডগোল হয়েছিল, তবে উনার পোলিং এজেন্ট এসেছে। মিরপুরের রূপনগর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ধানের শীষের প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট শাহাদাত হোসেন জীবন স্বেচ্ছায় কেন্দ্র থেকে চলে গেছেন বলে জানান প্রিজাইডিং অফিসার কামরুজ্জামান। তিনি বলেন, সাদা কাগজে তিনি লিখিত দিয়েছেন, পারিবারিক কাজে চলে যাচ্ছেন। ঢাকা দক্ষিণে কামরাঙ্গীরচরের হাজী আব্দুল আউয়াল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ধানের শীষের এজেন্টকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়ার পর প্রিজাইডিং অফিসার নাসেরকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ধানের শীষের প্রার্থী এজেন্ট দিলেও তিনি বুথে কোনো এজেন্টকে দেখাতে পাননি।

দুই সিটির বিভিন্ন স্থানে ভোটাররা কেন্দ্রে ঢুকতে বাধা পাচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়ার কথা জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সমন্বয়ে গঠিত মনিটরিং সেলের সমন্বয়ক মেজর রাজু। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বিভিন্ন জায়গা থেকে বেশ কিছু অভিযোগ এসেছে। অভিযোগগুলো হলো ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে ঢুকতে পারছে না। সাধারণ ভোটারসহ বিভিন্ন মাধ্যম থেকে আমাদের কাছে অভিযোগগুলো আসছে। আমরা ফোর্স পাঠিয়ে সেগুলো ক্লিয়ার করে দিচ্ছি। এখন পর্যন্ত ১৫টি অভিযোগ এসেছে। এ ধরনের অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন মনিটরিং সেলের প্রধান জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অণুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুল ইসলাম।
তিনি বলেন, আমরা তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিচ্ছি, এক্ষেত্রে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। আমাদের কাছে বিভিন্ন মাধ্যমে অভিযোগগুলো আসছে। ভোটারদের বাধা দেওয়ার কোনো ঘটনা ঘটলে সে ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মনিটরিং সেল এ বিষয়ে সতর্ক রয়েছে। উত্তর কাফরুল উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিকট শব্দ শোনা গেলে কিছুটা আতঙ্ক দেখা দেয়।

মিরপুর বিভাগের উপ কমিশনার মোস্তাক আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, কোনো গুলির ঘটনা ঘটেনি, তবে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে কেউ সেখানে ছোট পটকা ফুটিয়েছে। এক্ষেত্রে ভোটে কোনো প্রভাব পড়েনি।
ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার এবং যুগ্মসচিব বরাবর এক চিঠিতে এই আহŸান জানায় বিএনপি। দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ধানের শীষের এজেন্ট আব্দুস সালাম স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ৬, ৮, ১৫,১৬, ১৭, ২৩, ২৪, ২৬, ২৯, ৫৫ নম্বর ওয়ার্ডগুলোতে আওয়ামী লীগের সমর্থকরা জোরপূর্বক কেন্দ্র দখল করে ভোটারদের ফিঙ্গার নিয়ে তাদের প্রতীকে ভোট, এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া ভোটার প্রবেশে বাধা দেওয়া হচ্ছে।

আব্দুস সালাম জানান, ৬ নম্বর ওয়ার্ডে ১৯টি কেন্দ্র, ৮ নম্বর ওয়ার্ডে ২১টি কেন্দ্র, ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে ২৫টি কেন্দ্র, ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে ২৭টি কেন্দ্র, ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে ১৯টি কেন্দ্র, ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে ১৬টি কেন্দ্র, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে ১৭টি কেন্দ্র, ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে ১৫টি কেন্দ্র, ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে ১৬টি কেন্দ্র, ৫৫ নম্বর ওয়ার্ডে এর মাত্রা বেশি। তাই আমরা এসব কেন্দ্রে ভোট স্থগিতের আহŸান জানিয়েছি। সকাল আটটা থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত এক টানা দুই সিটিতে ভোটগ্রহণ চলে। ভোটে বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটলেও শুরু থেকেই বিএনপি নানা অভিযোগ করে আসছে। কয়েকটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থীদের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিল কম। তবে সরকারি দল আওয়ামী লীগ দাবি করছে, বিএনপি মূলত বিজয়ী হওয়ার জন্য এই নির্বাচনে অংশ নেয়নি। তারা অভিযোগ করার জন্যই ভোটে অংশ নিয়েছিল। তারা বায়বীয় অভিযোগ দিয়ে ভোটকে বিতর্কিত করতে চাচ্ছে।



 

Show all comments
  • Md MostafizurRahman Banijjo ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:০৭ এএম says : 0
    ঢাকা সিটি নির্বাচন! মোট ভোটার ৫৬ লাখ। ভোট পড়েছে ১২ লাখ। বাকি ভোটাররা গেলো কই।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Palash ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:০৭ এএম says : 0
    এই সরকার এর আমোলে ভালো কিছু আশা করা যায় না তাই আমরা সব বোকা তাই এদের নাটক দেখতে হয়
    Total Reply(0) Reply
  • Mostak Sorkar ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:০৭ এএম says : 0
    এই নির্বাচন কমিশনের অধিনে সুষ্ঠ নির্বাচন সম্ভব না।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃআবদুল জাব্বার ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:০৮ এএম says : 0
    চরম বিনোদন পাচ্ছে ঢাকাবাসী!!! হায়রে উন্নয়ন!!! এত উন্নয়ন করে আজ ভোট চুরি করতে হচ্ছে!!!
    Total Reply(0) Reply
  • Md Monowar Hossain ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:০৮ এএম says : 0
    এই আমলে যদি আপনাকে নির্বাচন কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিয়ে আসতে হয় তাহলে এর থেকে বড় লজ্জার আর কিছুই নেই..! ডিজিটাল বাংলাদেশ বলে কথা..!
    Total Reply(0) Reply
  • Noyon Sam ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:০৮ এএম says : 0
    বাংলাদেশের ভঙ্গুর নির্বাচন সিস্টেমটা আগে যা ছিল বর্তমানে শেষ হয়ে গেছে সুতরাং নির্বাচনের নামে কোটি খরচ করার কোন মানে হয়না
    Total Reply(0) Reply
  • Shamsul Hoque ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:০৯ এএম says : 0
    ভোট দিয়ে আসলাম। ভোটার উপস্থিতি কম। তবে ইভিএমে ভোট দেয়া খুবই সহজ। ইভিএমে জাল ভোট দেয়া বা কারচুপির কোন সুযোগ নাই।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Jahid ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:০৯ এএম says : 0
    অভিযোগের প্রয়োজন নেই তো আপনারা সাংবাদিকরা সরোজমিনে গিয়ে তদন্ত করে দেখতে পারেন কোথায় বিএনপি'র এজেন্ট আছে আর কোথায় নাই রাত থেকেই কেন্দ্রগুলো আওয়ামী লীগ নেতাদের দখলে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সিটি করপোরেশন নির্বাচন

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন