Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

ভারতের কেরালায় করোনাভাইরাস বিপর্যয় ঘোষণা, ছুটি বাতিল

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৩:৩৪ পিএম

ভারতের কেরালা রাজ্য করোনাভাইরাসকে ‘রাজ্যের বিপর্যয়’ হিসেবে ঘোষণা করেছে। ভারতে এখনও পর্যন্ত যে তিনজনের শরীরে নভেল করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে, তারা সবাই কেরালার বাসিন্দা। ওই তিনজনই শিক্ষার্থী এবং তারা চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে ফিরেছে। কিন্তু এই তিনজনের সঙ্গে আপাতত যারা সংস্পর্শে এসেছেন, তাদের চিহ্নিত করতে হিমশিম খাচ্ছে কেরালা সরকার।
কেরালার স্বাস্থ্য দপ্তর জানিয়েছে, তাদের ৪০ হাজার কর্মী ময়দানে নেমেছেন। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলোও। কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলাজা জানিয়েছেন, স্বাস্থ্য দপ্তর ছাড়াও আরও ৪০টি দপ্তরের কর্মীদের করোনাভাইরাস মোকাবিলার কাজে নামানো হয়েছে। স্বায়ত্ত¡শাসিত সরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রায় ১২০০ কর্মীকেও নিয়োগ করা হয়েছে।
স্বাস্থ্য দপ্তরের প্রধান সচিব রাজন খোবরাগাড়ে জানিয়েছেন, ব্যবস্থায় কোনও ত্রুটি রাখা হচ্ছে না। করোনাভাইরাস আক্রান্ত তিনজন কেরালার বিভিন্ন হাসাপাতালে ভর্তি রয়েছেন। বিচ্ছিন্ন ওয়ার্ডে তাদের চিকিৎসা চলছে।
কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজা বলেন, এই ঘোষণা মানুষকে ভয় দেখানোর জন্য নয়। ভাইরাসটির বিস্তার নিয়ন্ত্রণে রাখার পদক্ষেপগুলো আরও জোরালো করতে এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত তৃতীয় রোগীকে হাসপাতালে আলাদা করে রাখা হয়েছে। রোগীর অবস্থা এখন স্থিতিশীল। চিকিৎসকেরা ওই রোগীকে নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণে রেখেছেন।
কে কে শৈলজা বলেন, কেসরগড় এলাকা থেকে তৃতীয়জনের আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ওই রোগীকে কাঞ্চনগড় জেলার কেসরগড় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এখনো আতঙ্কিত হওয়ার মতো কিছু হয়নি।
এদিকে গত তিনদিনে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে যে ৮০ জন সংস্পর্শে এসেছেন, তাদের চিহ্নিত করে হাসপাতালে বিশেষ পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি রাজ্যজুড়ে ২২৩০ জনের ওপর নজরদারি চালাচ্ছে স্বাস্থ্য দপ্তর। এখনও পর্যন্ত বিভিন্ন হাসপাতালে ২৭টি আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরি করা হয়েছে। এছাড়া রাজ্যের প্রতিটি জেলায় দুটি করে ওয়ার্ড প্রস্তুত রাখা হয়েছে।
উল্লেখ্য, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে চীন ও চীনের বাইরে এখনও পর্যন্ত অন্তত ৪২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ২০ হাজারের বেশি মানুষ। চীন ছাড়াও আরও অন্তত ২৩টি দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস

২৩ নভেম্বর, ২০২০
২৩ নভেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন