Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৬, ১৪ শাবান ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

প্রতিশোধে চোখ আবাহনীর

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০২ এএম

এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন (এএফসি) কাপের প্লে-অফ পর্বে ঢাকা আবাহনী লিমিটেড মালদ্বীপের মাজিয়া স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন ক্লাবের মুখোমুখি হচ্ছে আজ। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বিকেলে পাঁচটায় শুরু হবে ম্যাচটি। টুর্নামেন্টের আগের আসরে আবাহনী চুড়ান্ত পর্বে খেললেও এবার তাদের প্লে-অফ পর্বের বাধা টপকাতে হবে। খেলা হবে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে। মাজিয়ার বিপক্ষে দু’লেগ মিলিয়ে জিততে পারলেই চুড়ান্ত পর্বের ‘ই’ গ্রæপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে বাংলাদেশের দলটি।

চলতি মৌসুমে ঘরোয়া ফুটবলের প্রথম আসর ফেডারেশন কাপের শেষ চারে উঠতে ব্যর্থ হয় আবাহনী। কোয়ার্টার ফাইনালে জায়ান্ট কিলার খ্যাত রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটির বিপক্ষে টাইব্রেকারে হেরে বিদায় নেয় ঢাকার আকাশী-হলুদ শিবির। এ ব্যর্থতা কাটাতে চায় দলটি। এএফসি কাপের প্লেÑঅফ পর্বে নিজ দলের খেলোয়াড়দের কাছ থেকে নজরকাড়া পারফরম্যান্স দেখতে চান আবাহনীর পর্তুগিজ কোচ মারিও ল্যামোস। গতকাল বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) ভবনে আয়োজিত ম্যাচপূর্ব এক সংবাদ সম্মেলনে এমন আশাবাদই ব্যক্ত করেন ল্যামোস। তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের কারণে বেশ কিছুদিন আবাহনীর জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের পাইনি। তবে তাদেরকে ছাড়াই প্রায় এক মাস বাকিদের নিয়ে প্রস্তুতি সেরেছি। প্রস্তুতিও ভালো হয়েছে। ঘরোয়া আসরের ভুলগুলো নিয়ে কাজ করেছি। তাই এএফসি কাপে জয় দিয়েই মিশন শুরু করতে চাই।’

ল্যামোস আরো বলেন, ‘ফেডারেশন কাপের শেষ আটে হেরে যাওয়ার আগে দু’ম্যাচে ৯ গোল করেছিলাম আমরা। তাই এবার রক্ষণভাগ নিয়েই কাজ করেছি বেশি।’ মাজিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে তিনি যোগ করেন, ‘আমরা গোল করতে চাই। কিন্তু গোল হজম করতে চাই না। আমি চাই, ছেলেরা আক্রমণে, রক্ষণে, সেট-পিসে যেন সমান পারদর্শী থাকে। আরো ভালো খেলে। আগামীকাল (আজ) যেন আমরা সব দিক দিয়ে নিখুঁত ফুটবল খেলতে পারি।’

২০১৭ সালে এএফসি কাপের গ্রæপ পর্বে এই মাজিয়ার কাছেই হেরেছিল ঢাকা আবাহনী। তাই এবার প্রতিপক্ষকে সমীহ করলেও নিজ দলের সম্ভাবনা দেখছেন দলটি পর্তুগিজ কোচ। তার কথায়, ‘মাজিয়া ভালো দল। তাদের প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধা রয়েছে আমার। কিন্তু আমি মনে করি, আমরা তুলনামূলকভাবে ভালো দল এবং আমরা ম্যাচে জয়ের জন্যই মাঠে নামব। আমি অনুমান করতে পারি না, কিন্তু অনুভব করছি আমরা ম্যাচটা জিতব। যদিও এএফসি কাপ ভিন্ন ধরনের টুর্নামেন্ট। আর আমরা টুর্নামেন্টের গত আসরে নিজেদের মাঠে একটা ম্যাচও হারিনি। তাই এ ম্যাচেও আবাহনীর জেতা উচিত।’

অন্যদিকে ম্যাচ জিততে আত্মবিশ্বাসী মাজিয়ার কোচ মারিয়ান সেকুলোভস্কিও। ২০১৭ সালে এ টুর্নামেন্টের দু’ম্যাচেই আবাহনীকে একই ব্যবধানে (২-০) হারিয়েছিল মাজিয়া। সেই সুখস্মৃতি নিয়ে মারিয়ান বলেন, ‘হোম এবং অ্যাওয়েতে আমাদের দু’টি ম্যাচ খেলতে হবে। আপাতত অ্যাওয়ে ম্যাচ নিয়েই ভাবছি। সবসময়ই আমাদের লক্ষ্য থাকে সেরা খেলা উপহার দিয়ে ম্যাচ জেতা। সেই রসদ আমাদের রয়েছে। কারণ আমরা সব বিভাগেই শক্তিশালী।’ মালদ্বীপের লিগে টানা দু’আসরে চ্যাম্পিয়ন মাজিয়া ক্লাব। সর্বশেষ ক’দিন আগে মালদ্বীপের লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে দলটি। খেলোয়াড়দের টানা ম্যাচ খেলার ক্লান্তি এ ম্যাচে কোনো প্রভাব ফেলবে না বলে মনে করেন সেকুলোভস্কি।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল

১ এপ্রিল, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন