Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪ আশ্বিন ১৪২৭, ০১ সফর ১৪৪২ হিজরী

এমন দিনই চেয়েছিল দেশ, পায়নি আগে

মো. জাহিদুল ইসলাম | প্রকাশের সময় : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

অতীতে অনেকবারই বিজয়ী ক্রীড়াবিদদের বিমানবন্দরে ফুল দিয়ে বরণ করে নিয়েছেন বাংলাদেশ। কিন্তু গতকাল বিমানবন্দরে দেখা গেল সম্প‚র্ণ অন্য আবহ। অন্য রকম উৎসব। এবার যে বিশ্বজয়ী ক্রীড়াবিদদের বরণ করে নিল বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী যুব ক্রিকেট দল ঢাকায় এসে পৌঁছে বিকেল ৫টার একটু আগে। আকবর আলী, তৌহিদ হৃদয়দের ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নাজমুল হাসান। সেই স্বপ্নযাত্রা শেষ হয় মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে। এর আদ্যপান্ত জানাচ্ছেন মো. জাহিদুল ইসলাম ও ছবি তুলেছেন ইকবাল হাসান নান্টু

বীরেরা ফিরছে বিশ্বজয় করে, সেই দুপুর থেকে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের সামনে ক্রিকেটামোদীর ভিড়। ধাতব ট্রফিটি হাতে কখন আসবেন আকবর আলীরা, অপেক্ষার প্রহর যেন শেষ হচ্ছিল না তাদের। অবশেষে ‘চ্যাম্পিয়ন’ স্টিকারে মোড়ানো গাড়ি মিরপুরে পৌঁছাতেই বাধভাঙা উল্লাস। সেøাগান-সেøাগানে মিরপুরের আকাশে ছড়িয়ে পড়ে আনন্দের রেনু।

অপেক্ষায় ফল নাকি মিষ্টি হয়! মিরপুর স্টেডিয়ামের সামনে জড়ো হওয়া সমর্থকেরা সেটিই পেলেন। তাদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে গ্র্যান্ড স্ট্যান্ড। সেখান থেকেই তারা সরাসরি উপভোগ করতে পারছেন বীরদের বরণের মুহ‚র্ত। লাল-সবুজ পতাকা উড়িয়ে, দলের জার্সি গায়ে জড়িয়ে ‘বাংলাদেশ বাংলাদেশ’ সেøাগানে বরণ করে নিচ্ছেন অন‚র্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেট জয়ীদের। আনন্দ যেন সীমাহীন।

বিসিবির অন্যতম পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জামাল ইউনুসও এই দলে। তার কাছে এই দিনটি জীবনের সেরা, ‘এর চেয়ে খুশি আমি কখনও হয়নি। এই মুহ‚র্তটা আজীবন মনে থাকবে।’

বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী বললেন, এই অর্জন অনেক পরিশ্রমের ফল। যুবাদের হাত ধরে আসার সাফল্যের ধারা সামনেও ধরে রাখার প্রতিজ্ঞা উৎসবের দিনে। বিসিবির কর্তা অনুভ‚তি ভাগাভাগি করলেন এভাবে, ‘খুব ভালো লাগছে, এটা আমাদের বিনিয়োগের ফল। অনেক পরিশ্রমে এসেছে দিনটি। আশা করি ওদের হাত ধরেই আরও এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।’

বিশ্বজয়ীদের বরণ করে নিতে মিরপুর স্টেডিয়ামে নানা আয়োজন। মাঠের মাঝেই বানানো হয়েছে মঞ্চ। গ্র্যান্ড স্ট্যান্ডে মাঝের করিডোর ধরে পাতা হয়েছে লাল গালিচা, সেখান দিয়ে হেঁটেই মঞ্চ উঠেছে বিশ্বজয়ী দল। মঞ্চেই কেক কেটে তাদের জানানো হয়েছে শুভেচ্ছা।

শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে দর্শকের ভিড়এর আগে গতকাল বিকেল ৫টায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামে চ্যাম্পিয়নদের বহন করা বিমানটি। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এবং বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান তাদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন। পরে বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে যুবাদের সঙ্গে একই গাড়িতে মিরপুরের উদ্দেশে যাত্রা করেন বিসিবি প্রধান। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে মিরপুরে পৌঁছায় বিশ্বজয়ীদের বহন করা গাড়ি।

বিশ্বজয়ীদের স্বপ্নযাত্রা
দেশে ফিরেছেন বিশ্বকাপ জয়ী অন‚র্ধ্ব-১৯ দল। শাহজালাল বিমানবন্দরে তাদের বরণ করে নিতে আয়োজনের কমতি ছিল না। ফুল-মিষ্টি নিয়ে হাজির হয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কর্তা-ব্যক্তিরা। লম্বা ভ্রমণ শেষে দেশে ফেরা বীরেরা এখন মিরপুরে অবস্থিত বিসিবি কার্যালয়ের দিকে। সেখানে তাদের সংবর্ধনা দিতে আছে আরও নানা আয়োজন।

গতকাল বিকেল ৫টায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামে চ্যাম্পিয়নদের বহন করা বিমানটি। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল তাদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন। পরে বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে যুবাদের সঙ্গে একই গাড়িতে মিরপুরের উদ্দেশে যাত্রা করেন বিসিবি প্রধান।

হোম অব ক্রিকেটকে আগেই সাজানো হয়েছে অনেকটা বিয়ে বাড়ির সাজে। বিমানবন্দর থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে যাওয়া হয় মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। তাদের পৌঁছার ঘণ্টা খানেক আগেই বিমানবন্দর এলাকায় রাখা হয় দুটি বিশেষ বাস। পুরো বাসটি ‘চ্যাম্পিয়ন’ স্টিকার দিয়ে মুড়ে দেওয়া, সেখানে শোভা পায় চ্যাম্পিয়ন ক্রিকেটারদের ছবি।

মোটর শোভাযাত্রায় আকবর আলিদের বিশেষ বাসে করে নেওয়া হয় মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। এসময় রাস্তার দুপাশে দাঁড়িয়ে সাধারণ মানুষও অভিবাদন জানান বাংলাদেশকে প্রথম বৈশ্বিক শিরোপা এনে দেওয়া ক্রিকেটারদের। বিমানবন্দর থেকে মিরপুরগামী পুরো রাস্তা মুখর হয়ে উঠে ‘বাংলাদেশ, বাংলাদেশ’ সেøাগানে। স্টেডিয়ামের সামনে আগে থেকেই জড়ো ছিলেন হাজার হাজার মানুষ। পুষ্পবৃষ্টি আর সেøাগানে পুরো এলাকা প্রকম্পিত করে রাখেন তারা। অন‚র্ধ্ব-১৯ দলের ট্রফি জয়ের আনন্দে তারা উচ্ছ¡াস প্রকাশ করেছেন। আতিকুর নামের এক ক্রিকেটভক্ত বলেছেন, ‘ভাবতে ভালো লাগছে, এখন আমরা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন। ছোটদের পথ ধরে বড়রাও আমাদের সাফল্য এনে দেবে।’

মিরপুরে বিশ্বজয়ের নায়কেরা
চ্যাম্পিয়নরা আসছে। এই দৃশ্য বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম। তাই বিমানবন্দরে ঘণ্টা তিনেক আগেই ক্রিকেট ভক্তদের জটলা। চ্যাম্পিয়ন দলকে বরণ করে নিতে তর সইছে না তাদের। অবশেষে অপেক্ষার প্রহর শেষ করে চারবারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে হারিয়ে জেতা অন‚র্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের সোনালি ট্রফিটি নিয়ে বেরিয়ে এলেন আকবররা। গতকাল বিকেল ৫ টায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে নামে চ্যাম্পিয়নদের বহন করা বিমানটি। পরে ভিআইপি লাউঞ্জে যুব ক্রিকেট দলকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এবং বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। নাজমুল হাসানের সঙ্গে ছিলেন বিসিবির পরিচালকেরা। প্রায় একসঙ্গে মিষ্টিমুখও করানো হয় ক্রিকেটারদের।
হোম অব ক্রিকেটকে আগেই সাজানো হয়েছে অনেকটা বিয়ে বাড়ির সাজে। বিমানবন্দর থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে যাওয়া হবে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। ঘণ্টা খানেক আগেই তাদের জন্য বিমানবন্দর এলাকায় রাখা হয়েছে দুটি বিশেষ বাস। পুরো বাসটি ‘চ্যাম্পিয়ন’ স্টিকার দিয়ে মুড়ে দেওয়া, সেখানে শোভা পাচ্ছে চ্যাম্পিয়ন ক্রিকেটারদের ছবি। এই বাসে করেই যুব ক্রিকেট দল গেছে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। একই গাড়িতে সওয়ার বিসিবি সভাপতি।

বিমানবন্দরের ভিআইপি এলাকায় জড়ো হয়েছেন হাজার হাজার ক্রিকেটভক্ত। এদের বেশির ভাগই ঢাকা মহানগরীর, ঢাকার আশে-পাশের জেলা থেকেও এসেছেন ভক্তরা। অন‚র্ধ্ব-১৯ দলের ট্রফি জয়ের আনন্দে তারা উচ্ছ¡াস প্রকাশ করছেন। বিমানবন্দরে টাইগার সাজের বড় একটি মাসকট রাখা হয়েছে। মাসকটকে ঘিরে রেখেছেন উচ্ছ¡সিত ক্রিকেটপ্রেমীরা।

হোম অব ক্রিকেট যেন বিয়ে বাড়ি
কাঙ্খিত ট্রফি জিতে দেশে ফিরেছেন বিশ্বকাপ জয়ী অন‚র্ধ্ব-১৯ দল। শাহজালাল বিমানবন্দরে তাদের বরণ করে নিতে আয়োজনের কমতি ছিল না। ফুল-মিষ্টি নিয়ে হাজির হয়েছিলেন বাংলাদেশের ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কর্তা-ব্যক্তিরা। লম্বা ভ্রমণ শেষে দেশে ফেরা বীরদের তারপর নিয়ে যাওয়া হয়েছে মিরপুরে অবস্থিত বিসিবি কার্যালয়ে। উৎসবমুখর পরিবেশে তাদের বরণ করে নিয়েছে হোম অব ক্রিকেট। সেখানেও আকবরদের সংবর্ধনা দিতে আছে নানা আয়োজন।

গতকাল বিকেল ৫টায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামে চ্যাম্পিয়নদের বহন করা বিমানটি। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল তাদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন। পরে বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে যুবাদের সঙ্গে একই গাড়িতে মিরপুরের উদ্দেশে যাত্রা করেন বিসিবি প্রধান। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে মিরপুরে পৌঁছায় বিশ্বজয়ীদের বহন করা গাড়ি।

হোম অব ক্রিকেটকে আগেই সাজানো হয়েছে অনেকটা বিয়ে বাড়ির সাজে। বিমানবন্দর থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। তাদের পৌঁছার ঘণ্টা খানেক আগেই বিমানবন্দর এলাকায় রাখা হয় দুটি বিশেষ বাস। পুরো বাসটি ‘চ্যাম্পিয়ন’ স্টিকার দিয়ে মুড়ে দেওয়া, সেখানে শোভা পাচ্ছে চ্যাম্পিয়ন ক্রিকেটারদের ছবি।

বিমানবন্দরের ভিআইপি এলাকায় জড়ো হয় ক্রিকেটভক্তরা। অন‚র্ধ্ব-১৯ দলের ট্রফি জয়ের আনন্দে তারা উচ্ছ¡াস প্রকাশ করেছেন। আগত এক ক্রিকেটপ্রেমী জানিয়েছেন, ‘ভাবতে ভালো লাগছে, এখন আমরা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন। ছোটদের পথ ধরে বড়রাও আমাদের সাফল্য এনে দেবে।’

দুই বছর এক লাখ টাকা করে বেতন
শুধু চলতি সাফল্য নয়, সামনের সময়টাও যাতে অন‚র্ধ্ব-১৯ দলের ক্রিকেটাররা বাংলাদেশ দলকে অনেক কিছু দিতে পারেন সেই পরিকল্পনাই নিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বিশ্বকাপ জয়ী এই দলটিকে ধরে রাখার জন্য বেশ ভাল একটা উদ্যোগ নিয়েছেন বিসিবি। গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে বিসিবি সভাপতি জানিয়েছেন-‘অনূর্ধ্ব-১৯ এই দলটিতে সামনের দু’বছরের জন্য নিবিড় প্রশিক্ষণে রাখা হবে। এই দুই বছরে পুরো দলের খেলোয়াড়দের চুক্তির আওতায় আনা হবে। সেই চুক্তি অনুযায়ী এই ক্রিকেটাররা মাসে এক লাখ টাকা করে বেতন পাবেন। এই দলটি নিয়ে অন‚র্ধ্ব-১৯ নামে একটি বিশেষ ইউনিট গড়া হবে। সেই ইউনিটে বিশ্বকাপ জয়ী ক্রিকেটাররা সামনের সময়ের জন্য নিজেকে তৈরি করবেন। সেই প্রস্তুতির মঞ্চ হলো জাতীয় দলে নিজেদের জায়গা করে নেয়ার জন্য।’ বিসিবি চাইছে এই ইউনিটে থেকে নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার পর ক্রিকেটাররা জাতীয় দলে খেলার দাবি জানাতে পারবেন।

বিসিবির এই উদ্যোগকে বিশ্বকাপ জয়ী দলের অধিনায়ক আকবর আলী বড় অনুপ্রেরণা হিসেবে নিয়েছেন, ‘আমাদের সামনে এখন একটাই কাজ পরবর্তী পর্যায়ের ক্রিকেটের জন্য কিভাবে নিজেদের প্রস্তুত করতে হয়-সেই দক্ষতা অর্জন করা। বিসিবি আমাদের জন্য যে উদ্যোগ নিয়েছে সেটা আমাদের জন্য অনেক বড় অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে। আমরা এখন সামনের দিনের আরো বড় সাফল্যের অপেক্ষায় আছি।’

আকবরদের মুশফিকের ‘স্যালুট’
বিশ্বকাপ জয়ী অন‚র্ধ্ব-১৯ দলকে বরণ করে নিতে বেশ জমকালো সাজে সাজানো হয়েছে হোম অফ ক্রিকেটখ্যাত শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামকে। পুরো স্টেডিয়াম জুড়ে লাগানো হয়েছে টাইগার যুবাদের ছবি সংবলিত ব্যানার। টাইগারদের স্বাগত জানিয়েছে পুরো দেশবাসী।
গতকাল বিকেলে এমিরাত এয়ারলাইনসের একটি বিমানে চেপে দেশে ফিরে বিশ্বজয়ীরা। যুবাদের পৌঁছাবার প্রাক্কালে তাদের অভ্যর্থনার প্রস্তুতি দেখতে বিসিবি’তে হাজির হন বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিম। স্টেডিয়াম প্রাঙ্গণে এসে বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের জন্য বোর্ডের করা আয়োজন দেখে অভিভ‚ত হয়েছেন তিনিও। পুরো স্টেডিয়াম ঘুরে দেখার এক ফাঁকে আকবর আলীদের সম্মান জানাতে ভোলেননি মুশফিক।

শরীফুল-নাবিলদের উল্লাসের ছবির সামনে দিয়ে যাবার সময় সেখানে দাঁড়িয়ে ‘স্যালুট’ দিয়ে একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেন তিনি। সেই ছবির ক্যাপশনে লিখেন, ‘ভাইয়েরা, তোমাদের জন্য গর্বিত।’

ফাইনালে শিরোপা নিশ্চিত হওয়ার পর, তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় মুশফিক জানিয়েছিলেন এটিই তার জীবনের সেরা অর্জন। এছাড়া ম্যাচ শেষে টাইগার যুবাদের জয় উদযাপনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে আপলোড করে তিনি লেখেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ! মাশাআল্লাহ বাঘের দল। সত্যিই অনেক বেশি গর্বিত। অনেক অনেক অভিনন্দন অধিনায়ক আকবর এবং তার দলকে।’

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিশ্বকাপ

৩ জুলাই, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন