Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ভারতে বিচারের মুখোমুখি জুয়াড়ি সঞ্জীব চাওলা

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০২ এএম

২০২০ সালে এসে কুখ্যাত ম্যাচ ফিক্সিং কান্ডে বড় সাফল্য তদন্তকারীদের। ২০ বছর পর সেই ফিক্সিং কান্ডের অন্যতম হোতা সঞ্জীব চাওলাকে দেশে ফেরাল ভারত। কুখ্যাত জুয়াড়িকে ফিরিয়ে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছে ইংল্যান্ড সরকার। ফলে দীর্ঘদিন ধরে ওয়ান্টেড এই জুয়াড়িকে নিজেদের হেফাজতে নিল পুলিশ। আপাতত তাঁকে তিহার জেলে রাখা হবে।

২০০০ সালের সেই ম্যাচ ফিক্সিংকান্ডের কথা এখনো অনেক ক্রিকেটপ্রেমীর মনে পড়বে। দক্ষিণ আফ্রিকা তথা বিশ্বক্রিকেটকে রীতিমতো আলোড়িত করেছিল তৎকালীন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক হ্যানসি ক্রোনিয়ের একটি স্বীকারোক্তি। ক্রোনিয়ে স্বীকার করেছিলেন, ‘তিনি জুয়াড়িদের পাল্লায় পড়ে ম্যাচ ফিক্স করেছেন।’ ক্রোনিয়ের সঙ্গে জুয়াড়িদের যোগাযোগ করিয়ে দিয়েছিলেন এই সঞ্জীব চাওলা। এছাড়াও চাওলার বিরুদ্ধে একাধিক ফিক্সিংয়ের অভিযোগ আছে।

২০০০ সালের ৭ এপ্রিল হ্যানসি ক্রোনিয়ের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগ দায়ের করে দিল্লি পুলিশ। মাসখানেক পরেই জিজ্ঞাসাবাদে ফিক্সিংয়ের কথা স্বীকার করেন ক্রোনিয়ে। তিনি জানিয়ে দেন, সঞ্জীব চাওলা নামের ওই জুয়াড়িই তাঁকে ফিক্সারদের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দিয়েছেন। ক্রোনিয়ের স্বীকারোক্তির পর ম্যাচ ফিক্সিংয়ের তদন্ত গতি পায়। কিন্তু, বছর দুই পরে এক ভয়াবহ বিমান দুর্ঘটনায় মারা যান ঘটনার ম‚ল অভিযুক্ত এবং সাক্ষী ক্রোনিয়ে। ঝিমিয়ে পড়ে ম্যাচ ফিক্সিং তদন্তের গতি।

এদিকে, সঞ্জীব চাওলা ভারত ছেড়ে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন ইংল্যান্ডে। সেখানেই নাগরিকত্ব নিয়ে এতদিন থাকছিলেন কুখ্যাত এই জুয়াড়ি। তার বিরুদ্ধে ২০১৩ সালে চার্জশিট পেশ করে দিল্লি পুলিশ। এতদিন লন্ডনের আদালতে তার প্রত্যর্পণের মামলা চলছিল। অবশেষে সাফল্য পেল ভারত। বৃহস্পতিবারই দেশে ফেরানো হয়েছে সঞ্জীব চাওলাকে। ইংল্যান্ড সরকারের সঙ্গে হওয়া প্রত্যর্পণ চুক্তিতে এটাই প্রথম হাই প্রোফাইল প্রত্যর্পণ করল ভারত সরকার। চাওলার প্রত্যর্পণের ফলে বিজয় মালিয়া, নীরব মোদিদের জন্যও রাস্তা খুলে যাবে বলে ধারণা তদন্তকারীদের।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জুয়াড়ি সঞ্জীব
আরও পড়ুন