Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০, ২৪ চৈত্র ১৪২৬, ১২ শাবান ১৪৪১ হিজরী

স্কুল শিক্ষার্থীদের সঞ্চয় ১৬০০ কোটি টাকা

মুজিববর্ষে বৃহৎ পরিসরে স্কুল ব্যাংকিং কনফারেন্স

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৮:৩৯ পিএম

স্কুল ব্যাংকিং কার্যক্রমের আওতায় ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের ব্যাংক হিসাব ও সঞ্চয় দুই বাড়ছে। ২০১৯ সালের ডিসেম্বর শেষে বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকে স্কুল শিক্ষার্থীদের নামে ১৯ লাখ ৮০ হাজার হিসাব খোলা হয়েছে। এসব হিসাবে সঞ্চয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় এক হাজার ৬১৬ কোটি টাকা। রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) স্কুল ব্যাংকিং এবং কর্মজীবি শিশু-কিশোদের ব্যাংক হিসাব পরিচালনা সংক্রান্ত সভায় এ তথ্য দেওয়া হয়। বৈঠকে আসছে মুজিববর্ষে স্কুল ব্যাংকিংয়ের নতুন পণ্য চালু করা এবং বৃহৎ পরিসরে কেন্দ্রীয়ভাবে স্কুল ব্যাংকিং কনফারেন্স আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক জোয়ারদার ইসরাইল হোসেন। বৈঠকে দেশের সব তফসিলি ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইনক্লুশন বিভাগের ফোকাল কর্মকর্তারা অংশ নেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক জোয়ারদার ইসরাইল হোসেন বলেন, স্কুল ব্যাংকিং ও পথ ও কর্মজীবি শিশুদের একাউন্ট খুলতে ব্যাংকগুলোকে একটা টার্গেট থাকে। ওই টার্গেট ব্যাংকগুলো কতটা পরিপালন করতে সক্ষম হলো সেটা পর্যালোনার জন্যই তাদের সঙ্গে মিটিং করা হয়েছে। এ সময়ে তাদের বেশকিছু দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, কিছৃু কিছু ব্যাংকের স্কুল ব্যাংকিংয়ে হিসাব কমে গেছে। ওইসব ব্যাংকে এ বিষয়ে আরও মনোযোগি হওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া মুজিববর্ষে স্কুল ব্যাংকিং নিয়ে নতুন কিছু করা যায় কিনা সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। পাশাপাশি প্রত্যেকটি ব্যাংকে পথশিশুদের একাউন্ট খুলতে অগ্রাধিকার দিতে বলা হয়েছে।

বৈঠকে মুজিববর্ষে বৃহৎ পরিসরে কেন্দ্রীয়ভাবে স্কুল ব্যাংকিং কনফারেন্স আয়োজনের ওপর জোর দেওয়া হয়। ওই কনফারেন্সে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনের উপর বিভিন্ন প্রেজেন্টেশন, উপহার হিসেবে মুজিবুর রহমানের বই দেওয়ার বিষয়টিও আলোচনা হয়। এছাড়া বৈঠকে স্কুল ব্যাংকিংয়ের বিদ্যমান রিপোটিং ফরম্যাট সংশোধের বিষয়েও আলোচনা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের ছোটবেলা থেকেই সঞ্চয়ের অভ্যাস গড়ে তুলতে চালু করা হয় স্কুল ব্যাংকিং কার্যক্রম। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা যেমন উপকৃত হচ্ছে, তেমনি বাণিজ্যিক ব্যাংকও পাচ্ছে আমানত। ওই আমানত বিনিয়োগ হয়ে জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান রাখছে।

২০১০ সালে সঞ্চয়ে উদ্বুদ্ধ করতে ‘স্কুল ব্যাংকিং’ কার্যক্রম শুরু হলেও শিক্ষার্থীরা টাকা জমা রাখার সুযোগ পায় ২০১১ সালে। আর ২০১৩ সালের ২৮ অক্টোবর স্কুল ব্যাংকিংয়ের পূর্ণাঙ্গ নীতিমালা জারি করা হয়। স্কুল ব্যাংকিং কার্যক্রমের মাধ্যমে শিশু-কিশোরদের মধ্যে আর্থিক সেবা পৌঁছে দেয়ার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৫ সালে ‘চাইল্ড এন্ড ইউথ ফাইন্যান্স ইন্টারন্যাশনাল’র (সিওয়াইএফআই) ‘কান্ট্রি অ্যাওয়ার্ড’ পুরস্কারে ভূষিত হয় বাংলাদেশ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ