Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬, ১০ শাবান ১৪৪১ হিজরী

জার্মানির মসজিদে প্রাণঘাতী হামলার পরিকল্পনা ফাঁস

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১০:০৮ এএম | আপডেট : ১২:১২ পিএম, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

জার্মান সরকার সোমবার জানিয়েছে, গ্রেফতারকৃত একটি চরম-ডান গোষ্ঠীর সদস্যরা নিউজিল্যান্ডে গত বছর যেভাবে মসজিদে হামলা চালিয়েছিল, তার মতোই বড় আকারের হামলার পরিকল্পনা করছিল।
কর্মকর্তারা বলেছেন, শুক্রবার জার্মানিজুড়ে পুলিশি অভিযানে আটক হওয়া ১২ ব্যক্তি ইঙ্গিত দিয়েছে যে, তারা বড় ধরনের হামলার পরিকল্পনা করেছিল। এ দলটির উদ্দেশ্য ছিল নামাজের সময় মুসলমানদের ওপর একযোগে মরাত্মক একাধিক হামলা চালানো।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বজোর্ন গ্রুয়েনওয়েলদার সোমবার বার্লিনের এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘এখানে উদ্ঘাটিত বিষয়গুলি অবাক করে দেয়ার মতো যে, এখানে এমন সেল রয়েছে যারা অল্প সময়ের মধ্যেই চরমপন্থী হয়ে গেছে বলে মনে হয়।
ধর্মটি কী হতে পারে সে সম্পর্কে কোনও উল্লেখ ছাড়াই চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেলের মুখপাত্র স্টিফেন সিবার্ট বলেছেন, ‘এদেশে ধর্মের অবাধ চর্চা রক্ষা করা রাষ্ট্রের এবং অবশ্যই এই সরকারের কাজ’।
‘আমাদের আইনী আদেশের আওতায় জার্মানিতে যে কাউকে তার ধর্মের অনুশীলন করতে দেয়া উচিত’।
সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, এই গ্রুপটি নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে হামলার অনুরূপ সহিংসতা ঘটাতে আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ব্যবহারের পরিকল্পনা করেছিল। গত বছরের মার্চে নিউজিল্যান্ডে দুটি মসজিদে এক চরমপন্থী খ্রিস্টান জঙ্গির হামলায় ৫১ জন শহীদ হয়েছিল।
রিপোর্টে বলা হয়, জার্মান তদন্তকারীরা এই গ্রুপে অনুপ্রবেশকারী কারও কাছ থেকে এই চক্রান্ত সম্পর্কে জানতে পেরেছিল। এই দলের অভিযুক্ত নেতা, যিনি কর্তৃপক্ষের কাছে পরিচিত ছিলেন এবং যার সভা এবং আড্ডার তদারকি পর্যবেক্ষণে ছিলেন, তিনি গত সপ্তাহে তার সহযোগীদের নিয়ে আয়োজিত একটি সভায় তার পরিকল্পনা বিশদভাবে জানিয়েছিলেন।
জার্মান দৈনিক বিল্ডের মতে, নেতা অসবার্গের একজন ৫৩ বছর বয়সী ব্যক্তি এবং তদন্তকারীরা তাকে ভার্নার এস নামে চেনেন।
প্রসিকিউটররা শুক্রবার বলেছিলেন যে, সন্দেহভাজনদের কাছে ইতিমধ্যে অস্ত্র বা অন্যান্য সরবরাহ রয়েছে। এগুলো আক্রমণে ব্যবহৃত হতে পারে জেনে ভোরের দিকে অভিযান চালায়।
শুক্রবার গ্রেফতার ১২ পুরুষের মধ্যে চার জন এই গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বলে বিশ্বাস এবং আরো ৮ জন তাদের অর্থ ও অস্ত্র দিয়ে তাদের সমর্থন দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।
শুক্রবার উত্তর-রাইন ওয়েস্টফালিয়া রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হারবার্ট রেউল বলেছেন, জার্মান নাগরিক এই সন্দেহভাজনরাও এর আগে উগ্র ডানপন্থীদের সাথে সংশ্লিষ্টতার কারণে বরখাস্ত এক পুলিশ কর্মকর্তাকেও অন্তর্ভুক্ত করেছিল।
বিল্ড তাকে ৫০ বছর বয়সী মধ্যযুগীয় ইতিহাসের উৎসাহী থর্স্টেন ডব্লিউ হিসাবে চিহ্নিত করার দাবি করেছেন, যার পোস্টগুলিতে অনলাইনে নিজের ছবিতে একটি তরোয়াল এবং রবষফাল এবং জার্মানিকে "উগ্র বামপন্থী স্বৈরশাসন" হিসাবে বর্ণনা করে এমন ছবি অন্তর্ভুক্ত ছিল।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গ্রুয়েনওয়েলদার বলেছেন, পুলিশ প্রায় ৫০ চরম ডানপন্থী অনুসারীকে ‘বিপজ্জনক’ হিসাবে চিহ্নিত করেছে যারা ৬৬০ ইসলামপন্থী এবং ১০-এরও কম বাম চরমপন্থীর তুলনায় সহিংস হামলা করতে পারে।
২০১৯ সালের গ্রীষ্মে, কর্তৃপক্ষ ‘নর্দান ক্রস’ নামক একটি নব্য-নাজি আন্দোলনে যুক্ত ৩০ জনেরও বেশি লোককে গ্রেফতার করেছিল।
আঞ্চলিক সংবাদপত্র গ্রুপ আরএনডি জানিয়েছে, বডি ব্যাগ এবং কবরে স্প্রে করতে ব্যবহৃত রাসায়নিক কুইকলাইম অর্ডার করার পরে তাদের বেশ কয়েক জন বামপন্থী এবং অভিবাসীপন্থী ব্যক্তিত্বকে হত্যা পরিকল্পনার জন্য সন্দেহ করা হয়েছিল।
সোমবার গ্রুয়েনওয়েলদার বলেন, সর্বশেষ গ্রেফতারগুলি প্রমাণ করে যে, ‘নিরপত্তা পরিষেবাগুলি সজাগ রয়েছে’। সূত্র : এএফপি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জার্মানি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ