Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১২ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

সিনেমায় হলি আর্টিসান হামলা, ফারুকী-মহেশ ভাটকে নোটিশ

বিনোদন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৮:১৫ পিএম

তিন বছর আগে বাংলাদের রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিসান হামলার ঘটনা নিয়ে কোনো প্রকার চলচ্চিত্র, প্রামাণ্যচিত্র বা নাটক নির্মাণ না করতে ভারতীয় চলচ্চিত্রকার মহেশ ভাট ও বাংলাদেশের নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকীকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছে ল’ ফার্ম ‘লিগ্যাল কাউন্সিল’।

তারা বুধবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় এই বিষয়ে একটি বিজ্ঞাপনও দিয়েছে। তাদের প্রতিষ্ঠান ‘অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন’র পক্ষ থেকে এই নোটিশ দেয়া হয়েছে।

‘লিগ্যাল কাউন্সিল’র ব্যারিস্টার মিতি সানজানা বলেন, আমরা এই নোটিশটি পাঠিয়েছি বাংলাদেশের চলচ্চিত্র নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকীসহ শনিবার বিকেল সিনেমার বাংলাদেশি প্রযোজক জাজ মাল্টিমিডিয়া ও জার্মানের প্রযোজক টেন্ডেম প্রডাকশনকে। সেই সঙ্গে ভারতের তিন চলচ্চিত্রকার মহেশ ভাট, অগ্নিদেব চ্যাটার্জি ও গুলপানাংকেও নোটিশ দিয়েছি।

‘তাদের মধ্যে গুলপানাং জবাব দিয়েছেন নোটিশ পেয়েই। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেছেন যে, হোলি আর্টিসান নিয়ে কোনোরূপ নির্মাণ থেকে বিরত থাকবেন। আশা করছি অন্যরাও বিষয়টি বিবেচনা করবেন।’

জানা গেছে, বলিউডের মহেশ ভাট, অগ্নিদেব চ্যাটার্জি ও গুলপানাংয়ের উদ্যোগে একই ঘটনা নিয়ে আরেকটি সিনেমা তৈরির প্রক্রিয়া চলছিল।

দৈনিক পত্রিকায় দেওয়া বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রকাশ হওয়া নোটিশে বলা হয়েছে, মিসেস রুবা আহমেদ গত ১ জুলাই ২০১৬-এর হোলি আর্টিজানের মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় তার একমাত্র সন্তান অবিন্তা কবিরকে হারিয়েছেন। অবিন্তার মর্মান্তিক মৃত্যুর পর কয়েকজন নির্দেশক/প্রযোজক মিসেস রুবা আহমেদের সাথে যোগাযোগ করে হোলি আর্টিজানের কাহিনিভিত্তিক চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রস্তাব দেন। মিসেস রুবা আহমেদে সেসব নির্দেশককে স্পষ্টভাবে তার তীব্র আপত্তি জ্ঞাপন করেন।

‘অবিন্তা কবির ছিলেন তাদের একমাত্র সন্তান এবং বেদনাদায়ক মৃত্যু তার পরিবারের সদস্যদের জীবনকে নিদারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে এবং তারা প্রচণ্ড মানসিক যন্ত্রণার মধ্য দিয়ে দিনযাপন করছেন। সবার কাছে যা কেবল একটি নির্মম হত্যাকাণ্ড, তা অবিন্তার মা এবং তার পরিবারের জন্য এক চরম দুর্ভাগ্য এবং নির্মম সত্য, যা তারা প্রতিনিয়ত দুঃখভারাক্রান্ত হৃদয়ে বয়ে চলেছেন। হোলি আর্টিজানকে কেন্দ্র করে কোনোরূপ মিডিয়া নির্মাণের মাধ্যমে সেসব ঘটনা আবার জনগণের মাঝে প্রচার করলে, তা কেবল সেই দুর্ঘটনার করুণ এবং কষ্টদায়ক স্মৃতিগুলোকেই জাগিয়ে তুলবে, যা অবিন্তার মা এবং তার পরিবার প্রতিনিয়ত ভুলে থাকার জন্য সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন।’

সেখানে আরও বলা হয়, ‘সম্মানিত প্রযোজক, পরিচালক, অভিনেতা, কলাকুশলী, মিডিয়া সংস্থা, মিডিয়া বিতরণকারী সংস্থা, লেখক, ক্লিপ-লেখকদের হোলি আর্টিজান ঘটনাকে তুলে ধরে বা এমন কোনও চরিত্রকে বর্ণনা করে, যার সাথে অবিন্তা কবিরের প্রত্যক্ষ বা অপ্রত্যক্ষ সাদৃশ্য রয়েছে, সেইরূপ যেকোনও ধরনের পূর্ণ বা স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র, টেলিফিল্ম, নাটক, নাটিকা, উপন্যাস, গল্প, ইত্যাদির রচনা, প্রযোজনা, পরিচালনা, বিতরণ, বিপণন, উপস্থাপন, প্রকাশনা, অভিনয় ইত্যাদি থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানানো হচ্ছে। তা সত্ত্বেও যদি কেউ এমন কোনও কাজে লিপ্ত হন, তাহলে সব লঙ্ঘনকারীর বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে ঢাকার গুলশান হোলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় ৯ ইতালীয়, ৭ জাপানি, ১ ভারতীয় ও ২ বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হন। রাতভর সন্ত্রাসী ও জঙ্গি হামলার পরদিন (শনিবার) সকালে সেনাবাহিনীর ‘অপারেশন থান্ডার বোল্ট’র মাধ্যমে এর সমাপ্তি ঘটে। পরে সেখান থেকে পাঁচ জঙ্গির সঙ্গে রেস্তোরাঁর প্রধান শেফ সাইফুল ইসলামের লাশ উদ্ধার হয়। আর সাইফুলের সহকারী জাকির হোসেন শাওন ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ঢালিউড

১১ নভেম্বর, ২০২০
৪ নভেম্বর, ২০২০
৩ নভেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ